• আপডেট টাইম : 15/08/2022 08:31 AM
  • 473 বার পঠিত
  • শরীফুল ইসলাম, কুষ্টিয়া
  • sramikawaz.com

একটি বিয়েকে কেন্দ্র করে গ্রামের শিশু কিশোর বয়োবৃদ্ধসহ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের ছিল বাঁধভাঙ্গা উচ্ছাস। কারণ সাড়ে ৩ বছর পর খাদিজা তার স্বামী ঘর ফিরে যাচ্ছেন। বড়বোনের ঘরে কনে হয়ে যাচ্ছেন অনুষ্ঠানিকভাবে। বড়বোনের সন্তানকে লালন পালন এবং রেজিষ্ট্রেশন বিহীন পূর্বের কলেমা পড়ানো বিয়ের স্বীকৃতি দিতে প্রশাসনের কর্তাব্যক্তির ছিল শনিবারের আনুষ্ঠানিক আয়োজন।


কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার হোগলবাড়িয়া ইউনিয়নের বেগুনবাড়িয়া গ্রামের দরিদ্র দিনমজুর শফিকুল ইসলামের বড় মেয়ে সানজিদা খাতুনের সাথে প্রায় ৬ বছর পূর্বে বিয়ে হয় একই উপজেলার পিয়ারপুর ইউনিয়নের জয়ভোগা গ্রামের আজবুল হোসেনের ছেলে মাসুমের সাথে। বিয়ের দুইবছর পর মাসুম ও সানজিদার ঘরে জন্ম নেয় শিশু সাদিক। সাদিকের জন্মের একমাস পর অসুস্থ হয়ে মা সানজিদা খাতুন মারা যান। শিশু সাদিকের দেখভালের দায়িত্ব পড়ে সানজিদার ছোন বোন খাদিজা খাতুনের ওপর। বড়বোনের সন্তান লালন পালন করতে গিয়ে বোন জামাই মাসুমের সাথে সম্পর্কে জাড়িয়ে পড়ে খাদিজা। ঘটনাটি জানাজানি হলে গ্রাম্য শালিসে রেজিষ্ট্রেশন বিহীন কলেমা পড়িয়ে তাদের বিয়ে দেওয়া হয়। বিয়ের ৬ মাস পর মাসুম খাদিজাকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়।


দরিদ্র বাবা মা ১৬ বছর বয়সী অপ্রাপ্তবয়স্ক খাদিজাকে নিয়ে সমাজপতি ও পুলিশ প্রশাসনের দ্বারে দ্বারে ঘুরে সুবিচার থেকে বঞ্চিত হয়। দীর্ঘদিন পর স্বামীর ঘর ফিরে পাওয়ার আশায় অবশেষে তারা স্মরণাপন্ন হোন দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আব্দুল জব্বারের নিকট। তিনি উদ্যোগ নিয়ে ছেলে পক্ষের সাথে কথা বলে তাদের বিয়েতে রাজী করান। খাদিজার বর্তমান বয়স ১৯ বছর। তাই শনিবার প্রশাসনের কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে শনিবার মাসুম-খাদিজার আনুষ্ঠানিকভাবে বিয়ে সম্পন্ন হয়। খাদিজার বিয়েতে খুশি ছিল এলাকাবাসীও।


মাসুম ও খাদিজার ভাঙ্গাঘর জোড়া দিতে পেরে প্রশাসনের কর্মকর্তা ও জনপ্রতিও খুশি ছিলেন। দুইপক্ষের ভাঙ্গাঘর জোড়া লাগাতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আব্দুল জব্বার। তিনি বলেন, সমাজের শান্তি শৃক্সখলা বজায় রাখতে দুইপক্ষের সাথে কথা বলার পর মনে হয়েছে তারা ভুলের মধ্যে আছে। আমি তাদের ভুল ধরিয়ে দিয়ে দুইপক্ষকে রজি করিয়েছি। তাইর ফলশ্রæতিতে আজকের এ বিয়ের আয়োজন।


বিয়ের অনুষ্ঠনে উপস্থিত দৌলতপুর উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাড. এজাজ আহমেদ মামুন বলেন. ধর্মীয় বিধান ও রাষ্ট্রীয় অনুশাসন মেনে দৌলতপুর ইউএনও আব্দুল জব্বার সাহেবের সহযোগিতায় দুই পরিবারের মধ্যে অনুষ্ঠানিকভাবে পারিবারিক বন্ধন সৃষ্টি করা হলো। এই দুই পরিবারের প্রতি আমাদের সজাগ দৃষ্টি সবসময় থাকবে।

এদিকে দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও দৌলতপুর উপজেলা চেয়ারম্যানের আন্তরিক সহযোগিতায় খাদিজা তার স্বামীর ঘর ফিরে পাওয়ায় তাদের প্রতি চরম কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন হোগলবাড়িয়া ইউনিয় পরিষদের চেয়ারম্যান সেলিম চৌধুরী।
দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আব্দুল জব্বারের সহযোগিতায় ¯^ামীর ঘর ফিরে পাওয়ায় তাদের ভবিষ্যৎ মঙ্গল কামনায় সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন বর মাসুম ও কনে খাদিজা।
দু’জনের হাত এক করতে পেরে উভয় পরিবার সন্তোষ প্রকাশ করেছেন বলে জানিয়েছেন বরের বাবা আজবুল হোসেন ও কনের মা ফিরোজা খাতুন ।
দীর্ঘ সাড়ে ৩ বছর পর স্বামীর ঘরে খাদিজা। বড়বোনের সন্তান সাদিককে নিয়ে সুখেই কাটবে তাদের জীবন ও সংসার। এমনটাই মনে করেন উভয় পরিবারসহ এলাকাবাসী। আর তারা সুখে থাক এমন কামনা আমাদের।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...