• আপডেট টাইম : 11/11/2022 06:19 PM
  • 3735 বার পঠিত
  • শরীফুল ইসলাম কুষ্টিয়া
  • sramikawaz.com

‘এসো হে প্রভু নিরঞ্জন’ এই বাণীকে প্রতিপাদ্য করে প্রভুর ডাকে প্রয়াত গুরু সুলতান ফকিরের আদেশে দেশ বিশ্ব বরেণ্য বাউল শিল্পী ওস্তাদ শফি মন্ডল খেলাফত নিয়েছেন। ইহজাগতিক লোভ, লালসা, মায়া-মমতা ও মোহ ত্যাগ করে তিনি জীবীত থেকেও গ্রহণ করেছেন মরনের ¯^াদ। সস্ত্রীক খেলাফত নেওয়া সাধুসঙ্গ অনুষ্ঠানে শফি মন্ডলের আখড়াবাড়িতে আগমন ঘটেছিল হাজারও সাধু, গুরু, বাউল ও লালন অনুসারীদের।
‘আর কি হবে এমন জনম বসবো সাধুর মেলে, হেলায় হেলায় দীন বয়ে যায় ঘিরে নিলো কালে’ হেলায় হেলায় দিন গড়িয়েছে তাইতো জাগতিক মায়া ত্যাগ করে ¯্রােষ্টার ডাকে নিজেদের দীনহীন করে শুধুমাত্র সাদা কাফনের কয়েক টুকরো কাপড় পরিধান করে ওস্তাদ শফি মন্ডল ও তার স্ত্রী জরিনা খাতুন নিয়েছেন খেলাফত। আজ শুক্রবার বেলা ১১টায় কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার হোসেনাবাদ গ্রামের শফিমন্ডলের নিজ আখড়াবাড়িতে অনুষ্ঠানিকভাবে খিলকা পরিয়ে গুরু দীক্ষায় দীক্ষিত করে তাদের দেওয়া হয় খেলাফত। জিন্দা থেকেও মরা হওয়ায় তাই এসময় পরিবারের সদস্য, উপস্থিত বাউল সাধু ও দর্শকদের কান্নায় সেখানকার পরিবেশ ভারী হয়ে উঠে। চোঁখ বেঁেধ সাতপাক ঘুরিয়ে দীনহীন করে তাদের গুরুদীক্ষায় দীক্ষিত করা হয়। পরানো হয় তাদের শুভ্র ভূষণ। তবে এমন বসনে ভূষণের আগে জাগতিক মায়া ত্যাগ করে পরলৌকিক জগতে প্রবেশের আগমূহুর্তে শফি মন্ডল তাঁর অভিব্যক্তিতে লালন সাঁইজির বাণীর উদ্ধৃতি দিয়ে বলেছেন ‘দিন থাকিতে দিনের সাধন কেন করলি না, সময় গেলে সাধান হবে না’ তাই বর্তমান সময়টাকে সুন্দর কাজে লাগাতে না পারলে পরবর্তীতে এসবের জন্য পস্তাতে হবে। কারন একালে বসে পরকালের ইবাদত করলে একালের ইবাদত হবে না। এপারেও যিনি ওপারেও তিনি। ভিন্নতা কোথায়। তাই আমার গুরু সুলতান ফকির বলেছেন, শফি সময় হয়েছে দীক্ষা নিতে হবে তাই গুরুর আদেশ পালন করছি। গুরুকৃপা ছাড়া কি মুক্তির পথ মেলে?
সংসার ধর্ম ত্যাগ করে বাবা মা’র এভাবে চলে যাওয়া মন থেকে মেনে নিতে না পারলেও গুরুর আদেশে ¯্রােষ্টার ডাকে খিলাফত নেওয়ার জন্য সকলের কাছে দোয়া ও প্রার্থনা কামনা করেছেন তাঁর বড় মেয়ে গুনী শিল্পী ফারজানা ববি লিনা।
বরেন্য এই বাউল শিল্পীকে খিলাফত দিতে পেরে তার গুরু মা প্রয়াত সুলতান ফকিরের সহধর্মিনিও খুশি হয়েছেন।
এদিকে শফি মন্ডলের খিলাফত গ্রহণ উপলক্ষে আয়োজিত সাধুসঙ্গ অনুষ্ঠানে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দেশের নানা প্রাপ্ত থেকে লালন ভক্ত, বাউল, সাধুগণ আখড়াবাড়িতে জড়ো হতে থাকেন। সান্ধ্যকার্য শেষে রাত সাড়ে ৮টায় মুড়ি সেবার পর শুরু সাধুসঙ্গ অনুষ্ঠান। সেখানে পরিবেশিত হয় লালনের বাণী এবং তা পরিবেশন করেন দেশ্যের খ্যাতিমান বাউল শিল্পী লায়লা, পলাশ, শাহাবুল, লিনা ও বরেন্য বাউল শিল্পী ওস্তাদ শফি মন্ডল সহ অন্যান্য বাউল শিল্পীবৃন্দ। সংগীতের মুর্ছনা চলে চলে গভীর রাত পর্যন্ত।
আবার শফি মন্ডলের খেলাফত অনুষ্ঠানে যোগ দিতে পেরে সাধুরা খুশি হয়েছেন বলে জানিয়েছেন চাঁন্দু ফকির সহ আমন্ত্রিত সাধুগণ ।
আজ শুক্রবার বিকেল ৩টায় পূণ্য সেবা গ্রহণের মধ্য দিয়ে শেষ হয় সাধুসঙ্গ অনুষ্ঠান। আর এর মধ্যদিয়ে সাঙ্গ হয় সাধুদের মিলন মেলা।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...