• আপডেট টাইম : 05/06/2022 08:34 AM
  • 2487 বার পঠিত
  • আওয়াজ প্রতিবেদক
  • sramikawaz.com

গার্মেন্টস কারখানায় মানুষ এখন চাকরি করতে চাচ্ছে না। মানুষ এখন গ্রামেই কাজ পাচ্ছে। শ্রমিকরা যে বেতন পায় তার চেয়ে গ্রামে কাজ করে বেশি আয় করছে। এ জন্য শ্রমিক পাওয়ার জন্য মাইকিং করা লাগছে। বেতন বৃদ্ধি করুন তা না হলে আগামীতে উৎপাদন করার মত শ্রমিক পাবেন না বলে হুসিয়ারি উচ্চারণ করলেন এপি-এর সাংবাদিক শফিকুল ইসলাম।
৪ জুন শনিবার রাজধানীর কারওয়ানবাজার সিএ ভবন অডিটোরিয়ামে দ্য ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্টস অব বাংলাদেশ (আইসিএবি) ও ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরাম (ইআরএফ) আয়োজিত ‘সামষ্টিক অর্থনীতির বর্তমান অবস্থা: বাংলাদেশ প্রে¶িত’ বিষয়ক গোলটেবিল আলোচনায় ইআরএফ এর সহ-সভাপতি ও বার্তা সংস্থা এএফপির ব্যুারো চিফ এম শফিকুল আলম এ কথা বলেন।
সরকারী গবেষণা প্রতিষ্ঠান বিআইডিএস এর মহাপরিচালক ড. বিনয়ক সেন বলেন, সরকার ভর্তুকি মূল্যে ওএমএস এর চাউল, ডাল তেলের মত নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য দেওয়া হচ্ছে। করোনা মহামারীর অভিঘাত মোকাবেলা ও বৈশি^ক মূল্যস্ফীতি পরবর্তি পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে সাধারণ মানুষের খাদ্য সহযোগিতা হিসাবে এটা দেয়া হচ্ছে। এটা একটু পরিকল্পিত উপায়ে গার্মেন্টস শ্রমিক সহ অন্যান্য খাদের ৭০/৮০ লাখ শ্রমিককে দিতে হবে। তবে খেয়াল রাখতে হবে যাতে বেসরকারী খাতের উপর যেন কোন চাপ সৃষ্টি না হয়।
সফিকুল ইসলাম বলেন, এখন রংপুরের প্রত্যন্ত অঞ্চলে কর্ম চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে। এখন আর তারা দেশের পূর্বাঞ্চলে কৃষি কাজ করার জন্য যাচ্ছেন না। গ্রামের কর্মসংস্থান তৈরি হয়েছে। এর ফলে কুমিল্লা সহ দেশের পূর্বাঞ্চলে কৃষি জমি কৃষিশ্রমিকের অভাবে পড়ে থাকছে। একটির বেশি ফসল হচ্ছে না। এ প্রভাব তৈরি পোশাক কারখানা সহ সব ধরণের কারখানা উপর পড়ছে। কারখানায় শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে না, উৎপাদন ব্যহত হচ্ছে। উৎপাদন সক্ষমতার পূর্ণ ব্যবহার করতে পারছে না। কারখানার সামনে মাইক দিকে প্রচার করা হচ্ছে, শিক্ষানবিস শ্রমিক নেওয়া হবে, ট্রেনিংকালিন সময়ে পূর্ন সুযোগ সুবিধা দেওয়া হচ্ছে।
তিনি বলেন, মানুষের আর কাজের জন্য শহরমুখি হচ্ছে না, এজন্য এমন অবস্থা তৈরি হচ্ছে। শ্রমিকদের বেতন বৃদ্ধি করতে হবে, যাতে শ্রমিকরা গার্মেন্টস কারখানায় চাকরি করতে আসে। বেতন না বাড়ালে আগামীতে গার্মেন্টস শ্রমিকই পাওয়া যাবে না।
ইআরএফ সাধারণ সম্পাদক এসএম রাশিদুল ইসলাম বলেন, মূল্যস্ফীতি গরীব মানুষ সংকটে পড়েছে। তাদের ক্ষয় ক্ষমতা কমে গেছে। ওএমএস এর মাধ্যমে ১ কোটি মানুষকে খাদ্য দেওয়ার হচ্ছে। প্রয়োজনে বাজেটে ভর্তুকি বাড়িয়ে ১ কোটি থেকে ২ কোটি করতে হবে। যাতে মূল্যস্ফীতিজনিত সমস্যার কারণে মানুষের যে সমস্যা পড়েছে তার থেকে পরিত্রান পায়।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) এর বিশেষ ফেলো ড. মোস্তাফিজুর রহমান, পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর, পলিসি এক্সচেঞ্জ বাংলাদেশের চেয়ারম্যান ড. এম মাসরুর রিয়াজ, ঢাকা চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি (এমসিসিআই)’র সাবেক সভাপতি আবুল কাশেম খান, বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) মহাপরিচালক ড. বিনায়ক সেন, মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি’ (এমসিসিআই) সভাপতি মো. সাইফুল ইসলাম, গবেষণা সংস্থা র‌্যাপিড এর নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক ড. এম আবু ইউসুফ, আইসিএবির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শুভাশীষ বোস প্রমূখ বক্তব্য রাখেন।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...