• আপডেট টাইম : 14/05/2022 07:57 AM
  • 251 বার পঠিত
  •   কাজী রুহুল আমিন
  • sramikawaz.com

 

আজ মহান মে দিবস। শ্রমিক শ্রেণির লড়াই সংগ্রামের দিন। সংস্কারবাদীরা শুধুমাত্র আনুষ্ঠানিক কর্মসূচি ও উৎসব পালনের দিন হিসেবে এই দিবসটি পালন করে আত্মতুষ্টিতে ভুগেন। কিন্ত সমাজ বিপ্লবের ট্রেড ইউনিয়ন কর্মীরা এই দিনকে শ্রমিকশ্রেণি তথা মানবজাতির মুক্তি সংগ্রামের বিশেষ দিন হিসেবে পালন করে থাকি।

 ঈদের কারনে জমায়েতের সংখ্যাগত দিক থেকে অপরাপর সময়ের চেয়ে দুর্বল থাকলেও এবারের মে দিবসের গুরুত্ব অনেক বেশি। কেননা বাংলাদেশের প্রায় সাত কোটি শ্রমিকের ন্যায়সংগত অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে ৯ দফা দাবি উত্থাপন করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই ২০ হাজার টাকা জাতীয় ন্যুনতম মজুরি নির্ধারণের আওয়াজ উঠেছে। শ্রম আইন ও বিধি সংশোধনের কার্যক্রম চলছে। দ্রব্য মূল্যের উর্ধগতির ফলে শ্রমিকরা বর্তমানের প্রাপ্ত মজুরিতে খেয়ে পরে বেচে থাকতে পারছেনা, বিধায় রেশনিং প্রথা চালু অতীব জরুরি।

 

এসব ন্যায়সংগত দাবী আদায়ের সংগ্রামে সংগঠন ও সংগ্রামকে অগ্রসর করতে হলে যে বিষয়গুলো বিশেষভাবে মনে রাখতে হবে।

 

 শ্রমিকদের মধ্যে শ্রেণি সংগ্রামের রাজনৈতিক চেতনা বৃদ্ধি করতে হবে। লড়াই সংগ্রামে হঠকারিতা বা আপোষকামিতা দুটোই ক্ষতিকারক। দুটোই ঐক্যবদ্ধ সংগ্রামকে বাধাগ্রস্হ করে। সংগ্রামবিহীন ঐক্য মূল্যহীন এবং ঐক্যহীন সংগ্রাম শক্তিহীন বিধায় ঐক্য এবং সংগ্রাম উভয় বিষয়েই গুরুত্ব দিতে হবে।

মনে রাখতে হবে, শ্রমিকেরা নিজেরা ছাড়া আর কেউ ঐক্য দান করতে পারেনা। শ্রমিকের ঐক্যে সাহায্য করার ক্ষমতা আর কারো নেই। ঐক্যকে বিনষ্ট করতে বুর্জোয়া কৌশলের আঁকাবাকা পথ গড়ে ওঠে। যদি শ্রমিক সংগঠনের নেতৃত্ব মধ্যবিত্ত পেটিবুর্জোয়া শ্রেণীর হয় তাহলে শোষক-পুজিপতিরা নানাবিধ অপকৌশলের মাধ্যমে সংগঠনের এইসব নেতৃত্বের সাথে নানাবিধ সম্পর্ক গড়ে তুলে এসকল নেতৃত্বকে সুবিধাবাদীতে পরিনত করতে সক্ষম হয়। ফলে শ্রমিকদের সংগঠনের নেতৃত্বে সচেতন শ্রমিকরা না থেকে মধ্যবিত্তরা থাকলে সংগঠন বিপদজনক পথে ধাবিত হয়।কখনো কখনো অসচেতন শ্রমিকরাও এসব পথে ধাবিত হয়।

তাই শ্রমিকদের মধ্য থেকে গড়ে ওঠা সচেতন বিপ্লবীদের নেতৃত্বই অধিক গুরুত্বপূর্ণ। আর মধ্যবিত্ত এমনকি উচ্চবিত্ত থেকে এসে যারা বিপ্লব করতে চায় তারা প্রথমে শ্রেণিচ্যুত হয়ে নিজেরা শ্রমিকশ্রেণির প্রকৃত সংস্কৃতি চর্চা ও লড়াইয়ে পরিক্ষিত হয়ে শ্রমিকদের সচেতন করার কাজে আত্ননিয়োগ করতে হবে। তা না করে শ্রেণিচ্যূত না হয়ে যদি বিলাসী জীবনযাপন বহাল রাখে তাহলে তাদের দ্বারা শ্রেণি সংগ্রামের ফাকা বুলি আওড়ানো সম্ভব হবে কিন্ত শ্রেণি সংগ্রাম হবেনা। যদি মধ্যবিত্তরা সংগঠন ও সংগ্রামের অগ্রভাগে থেকে শ্রমিকদেরকে পরিচালনা করতে চায়, তাহলে তা হবে আত্নপ্ররোচনা। কেননা মধ্যবিত্তরা তাদের পেটি বুর্জোয়া সংস্কৃতির চর্চা করতে থাকে বিধায় শ্রমিকদের স্বার্থের তুলনায় নিজের আধিপত্য ও কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠাকেই প্রাধান্য দিয়ে থাকে। শ্রমিকদের ঐক্য ও সংগ্রামকে বিনষ্ট করে এসকল মধ্যবিত্ত পদলোভী বাক্যবাগিস বিপ্লবীরা।

 

মনে রাখতে হবে শ্রমিকের মাঝে না গিয়ে, শ্রমিকদেরকে শোষণমুক্তির চেতনায় সংগঠিত না করে, যেসকল পেটিবুর্জোয়া স্তরের বুদ্ধিভিত্তিক বিপ্লবীরা বিপ্লবের প্রতিশ্রুতি দেয়, অথচ শ্রেণি সংগ্রাম করে না, তারা আত্নপ্ররোচক এবং বিপ্লবের পথে বড় বাধা। তাই আজকের মে দিবসে বাংলাদেশের সাতকোটি শ্রমিক ভাই বোনদের প্রতি আহবানঃ- আসুন ঐসকল মধ্যবিত্ত পেটি বুর্জোয়া পদলোভী বাক্যবাগীস বিপ্লবীদের দিকে তাকিয়ে না থেকে শোষিতদের ঐক্য জোরদার করি। নিজেদেরকে সচেতন বিপ্লবী হিসেবে বিপ্লবী লড়াইয়ে নিয়োজিত করি। সচেতন বিপ্লবী আদর্শের শ্রমিকদের নেতৃত্বে শ্রমিকশ্রেণির সচেতন সংগ্রাম জোরদার করে রাষ্ট্র ক্ষমতা দখল করি। শোষনমুক্ত সমাজ সমাজতন্ত্র কায়েম করি।

 

কাজী রুহুল আমিন:

সদস্য, সিপিবি, কেন্দ্রীয় কমিটি ট্রেড ইউনিয়ন কর্মী

 

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...