• আপডেট টাইম : 18/05/2022 12:33 PM
  • 397 বার পঠিত
  • মো. মহিউদ্দিন
  • sramikawaz.com

 


বিশ্বে যা কিছু চির কল্যাণকর অর্ধেক তার করিয়াছে নারী অর্ধেক তার নর। বহুকাল আগেই কবি এ বানী উচ্চারণ করেছেন। নারী বিহীন নর যেমন মূল্যহীন তেমনি নর বিহীন নারী। পৃথিবী সৃষ্টির লগ্ন থেকে আল্লাহতাআলা পৃথিবীতে জোড়ায় জোড়ায় সকল প্রাণী প্রেরণ করেছেন। আর সেজন্যই বৈচিত্রপূর্ণ এই পৃথিবীতে সবকিছুই ভারসাম্যপূর্ণ ভাবে পরিচালিত হচ্ছে। চন্দ্র সূর্য, গ্রহ নক্ষত্র যেমন বিধাতার নির্ধারিত নিয়মে পরিচালিত হচ্ছে তেমনি পৃথিবীর সকল প্রাণীকুল ও পরিচালিত হচ্ছে তাঁরই নিয়মে। পৃথিবীতে নিয়মের যা কিছু ব্যত্যয় ঘটে তার সবটুকুই মনুষ্য সৃষ্ট। মানুষ তার স্বার্থ সিদ্ধির জন্য প্রয়োজনে অপ্রয়োজনে নিয়মের ব্যত্যয় ঘটিয়ে থাকে। যা মোটেও কাম্য নয়। পরিবার, সমাজ, রাষ্ট্র, পৃথিবী সকল মানুষই পরিচালিত হচ্ছে তার নিজ নিজ পরিমন্ডলে বসবাসকারী অঞ্চলের আইনের বিধি বিধান মোতাবেক।

মানুষ তার জীবন জীবিকার প্রয়োজনেই কর্মে নিয়োজিত হয়। একটি ভৌগোলিক সীমারেখায় আবদ্য থেকে নিজ নিজ আইনে পরিচালিত হচ্ছে এক একটি রাষ্ট্র এবং রাষ্ট্রে বসবাসরত মানব মন্ডলী। এই মানব মন্ডলীর মধ্যে নর নারীর বহু বিভাজন লক্ষ্য করা যায়। সমাজ ও রাষ্ট্র ভেদে নর-নারীর সম্মান ও ক্ষমতার ভিন্নতা লক্ষ্য করা যায়। পরিবার, সমাজ, রাষ্ট্র সকল ক্ষেত্রেই নর-নারীর অবদান সমান ভাবে বিদ্যমান। কিন্তু পুরুষ শাসিত বা নিয়ন্ত্রিত সমাজ ব্যবস্থায় নরের পরিপূর্ণ মর্যাদার ¯^ীকৃতি থাকলেও নারীর মর্যাদায় প্রায়শই বৈষম্য লক্ষ্য করা যায়। যা রাষ্ট্র পরিচালনা ও সমাজ চিন্তায় বিরুপ প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। আমাদের সমাজ ব্যবস্থায় একটা সময় ছিল নারী ঘরেই আবদ্ধ থাকত। ঘরের কাজকর্ম যেমন রান্নাবান্না, সন্তান পালন, সাংসারিক নানান কাজকে কর্ম হিসাবে বিবেচনা করা হত না। এখনও ঘরে আবদ্ধ নারী যিনি সাংসারিক সকল দায়িত্ব পালন করেন তার সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলে বলা হয় হাউজওয়াইফ অর্থাৎ কিছু করেন না। যিনি ঘরের বাইরে যাচ্ছেন বা দেশে বিদেশে কাজের সন্ধানে অভিবাসিত হয়ে কাজে নিয়োজিত হচ্ছেন। তিনি কর্মে বা শ্রমে নিয়োজিত আছেন বলে বিবেচিত হচ্ছেন। আমাদের সমাজ ব্যবস্থায় অনেক প্রতিকূলতা মোকাবেলা করে এগিয়ে যাচ্ছে নারী। গত এক দশকে নারী জাগরনে বিপ্লব ঘটেছে বাংলাদেশে। প্রায় দুই তিন দশক আগে আরএমজি সেক্টরে নিয়োজিত নারীকে সমাজ যে ভাবে বাঁকা চোখে দেখতো আজকে তার অনেকটাই অবসান ঘটেছে। আজকে নারী বিমান চালাচ্ছে, চালাচ্ছে রেল, কার সহ সকল মটরযান। নারী আজ সংসদে যেমন সোচ্চার তেমনি প্রশাসনে, যুদ্ধক্ষেত্রে , স্বাস্থ্য , শিক্ষায় , আর্থিক প্রতিষ্ঠানসহ সকল সেক্টরে স্ব স্ব যোগ্যতায় বলিয়ান হয়ে উঠছে।


নারী আজ ঘরে আবদ্ধ নেই। নারী এখন দেশ জয় করে জগত জয়ের নেশায় নিজেদের এগিয়ে নিচ্ছে। আমরা এখন বাংলাদেশ নারী জাগরনের এক অনন্য ও ঐতিহাসিক যুগ সন্ধিক্ষণ অতিক্রম করছি।
নারীর শ্রম বিহীন পরিবার, সমাজ, রাষ্ট্র এখন অচল। বাংলাদেশের সকল নারীরা যদি এক সপ্তাহ হাত গুটিয়ে বসে থাকে তখন বুঝা যাবে আমাদের সমাজে নারীর শ্রম কত অবসম্ভাবী হয়ে পরেছে। মোট জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেক নারীর কর্মক্ষমতা এবং কর্মদক্ষতা কাজে লাগাতে পারলেই বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে দূরন্ত, দুর্বার গতিতে। বাংলাদেশে ৩ কোটি ৯৩ লক্ষ ৩০ হাজার পরিবারের ২ কোটি ৮২ লক্ষ ৬০ হাজার পরিবার গ্রামে বসবাস করে এবং ১ কোটি ১০ লক্ষ ৭০ হাজার পরিবার শহরে বসবাস করে। শহরে বসবাসকারী পরিবারের প্রায় অর্ধেক পরিবারেই গৃহকর্মী নিয়োগ করা হয়। স্থায়ী গৃহকর্মী এবং অস্থায়ী গৃহকর্মী উভয় ক্ষেত্রেই এখন গৃহকর্মীর ব্যাপক চাহিদা বিদ্যমান। কারন সরকারী বেসরকারী কর্মে নারীর অংশগ্রহণ ব্যাপক হারে বেড়ে যাওয়ায় গৃহ কর্মে নিয়োজিত নারীর কাজের চাহিদা বৃদ্ধি পেয়েছে। দেশের চাহিদার পাশাপাশি বিদেশেও গৃহ কর্মে নারীর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। বিশেষ করে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে নারী গৃহকর্মীরা ব্যাপক ভাবে চাকুরী নিয়ে অভিবাসিত হচ্ছেন।

অথচ গৃহ কর্মে নিয়োজিত নারীর কাজকে এখনো শ্রম আইনে অন্তর্ভূক্ত না করায় গৃহ কর্মীকে শ্রমিক । হিসাবে আখ্যায়িত করা যাচ্ছে না এবং সঠিকভাবে শ্রমের মজুরী থেকে ও তারা বঞ্চিত হচ্ছে। শুধু তাই নয় দেশে বিদেশে গৃহ কর্মীরা নানান হেনস্থার স্বীকার হচ্ছেন। বল প্রয়োগ করে তাদেরকে নানান কাজে নিয়োগ করা হচ্ছে। যৌন হেনস্থাসহ শারীরিক ও মানসিক নানান বঞ্চনার ¯^ীকার হচ্ছেন গৃহ কর্মীরা। বাংলাদেশের অভ্যন্তরে অভিবাসিত গৃহ শ্রমিকদের প্রায় ৯৯ ভাগই নারী। বিদেশে অভিবাসিত গৃহ শ্রমিকদের মধ্যে ও নারী শ্রমিকের সংখ্যা কম নয়। কিন্তু দেশে বিদেশে গৃহ কর্মে নিয়োজিত নারীর কাজকে সুরক্ষিত করার জন্য আইএলও কনভেনশন ১৮৯ অনুস্বাক্ষর না হওয়ায় নারীরা গৃহকর্মে সুরক্ষা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

গৃহকর্মে নিয়োজিত নারীর কর্মের সুরক্ষায় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার ২০১৫ সালে “গৃহকর্মী সুরক্ষা ও কল্যান নীতিমালা-২০১৫” নামে একটি নীতি প্রনয়ন করেছে। এই নীতিমালার মূল প্রতিপাদ্য বিষয় হল মজুরী নির্ধারন, গৃহ কর্মীর বয়স, গৃহকর্মী নিয়োগের চুক্তি ও নিয়োগপত্র প্রদান। কর্ম ঘন্টা, ছুটি, বিশ্রাম ও বিনোদন। প্রসূতিকালীন সুবিধা, চিকিৎসা, ধর্ম পালনের সুযোগ, নির্যাতনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা, গৃহকর্মীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা , শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশনের তহবিলের সুযোগ সুবিধা প্রাপ্তি, সরকারের ও নিয়োগকারীর দায়িত্ব ও কর্তব্য নির্ধারন, গৃহ কর্মীর দায়িত্ব ও কর্তব্য, চাকুরীর অবসান ইত্যাদি বিষয়ে সরকারের এ নীতিমালায় উঠে এসেছে।

দেশের অভ্যন্তরে বিশেষ করে গ্রামাঞ্চলে কম বয়সী নারী শিশুদেরকে পেটে ভাতে মজুরী বিহীন কর্মী হিসাবে গৃহকর্মে নিয়োজিত হতে দেখা যায়। থাকা-খাওয়া পোষাক পরিচ্ছদের বিনিময়ে ও গৃহ কর্মে নিয়োজিত করা হয়। আবার নির্দিষ্ট পরিমান কাজের জন্য নির্দিষ্ট মজুরীর বিনিময়েও গৃহকর্মী নিয়োজিত হয়। তবে গত কয়েক বছরে এ ব্যাপারে পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায় এজন্য যে, গৃহকর্মী পাওয়াটাই দুঃস্কর হয়ে পরেছে। বিশেষ করে শহরের নিয়োগকারী পরিবারগুলো মজুরীর ভিত্তিতে অন্যান্য সুযোগ সুবিধাসহ গৃহকর্মী নিয়োগে বাধ্য হচ্ছেন। গৃহ কর্মে নিয়োজিত কর্মীরা নির্যাতন, যৌন হয়রানি, বন্ধিদসা, অ¯^াস্থ্যকর থাকার পরিবেশ, কর্ম ঘন্টা নির্ধারণ না থাকা ইত্যাদি কারণে পূর্ণকালীন গৃহকর্মী পাওটা দুঃস্কর। গৃহকর্মীদের অসচেতনতা, স্বল্প শিক্ষা বা শিক্ষা না থাকা, অতিরিক্ত লোভ ইত্যাদি কারণে বিদেশে অবৈধ পথে অভিবাসিত হয়ে নানা সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। কখনও কখনও লাশ হয়ে দেশে ফিরছে গৃহকর্মীরা। গৃহকর্মে নিয়োজিত হতে ইচ্ছুক কর্মীদের প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ , সচেতনতা, শিক্ষা ইত্যাদি বিষয়ে দক্ষ করে গড়ে তুলে বৈধ পথে বিদেশে পাঠাতে পারলে যেমন বৈধ চাকুরীর নিশ্চয়তা পাওয়া যায় তেমনি দেশে রেমিটেন্স প্রবাহ বৃদ্ধি করা যায়। বিশেষ করে বিদেশে অভিবাসিত গৃহকর্মীদের সে দেশের আইনকানুন, সামাজিক রীতি-নীতি, কাজের ধরন প্রভৃতি সম্পর্কে সম্মক ধারনা থাকলে তারা নানারকম প্রতিকুলতা, হয়রানি, দৈহিক-মানসিক এবং যৌন নির্যাতন থেকে রক্ষা পেতে পারে।

আই এল ও কনভেনশন ১৮৯ অনুস্বারের মাধ্যমে গৃহ শ্রমিকদের আইনী সুরক্ষায় আনা গেলে গৃহ কর্মীদেরকে গৃহ শ্রমিক মর্যাদা প্রদান করা যাবে। শ্রম আইনে যুক্ত করার মাধ্যমে গৃহ কর্মে নিয়োজিত গৃহ শ্রমিকদের স্ব স্ব মর্যাদায় অধিষ্ঠিত করা গেলে আমাদের সমাজের পিছিয়ে পরা লক্ষ লক্ষ নারী কর্মের মূলধারায় চলে আসবে। নারী, সমাজ, দেশ উপকৃত হবে। মহান মে দিবস তখনই তাৎপর্যপূর্ন হবে যখন নর-নারীর কাজের সম অধিকার- সমাজ রাষ্ট্র কর্তৃক ¯^ীকৃত হবে। নারীর অগ্রণী ভূমিকা ছাড়া ৩১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ ৪১ সালের মধ্যে উন্নত বাংলাদেশ অধরা থেকে যাবে। তাই মহান মে দিবসের শ্লোগান হোক “শ্রমিক মালিক নির্বিশেষ- মুজিব বর্ষে গরব দেশ। নারী পুরুষ নির্বিশেষ- মুজিব বর্ষে গরব দেশ।”

মো. মহিউদ্দিন : অর্থ সম্পাদক, জাতীয় শ্রমিক লীগ, কেন্দ্রীয় কমিটি। সাধারণ সম্পাদক রূপালী ব্যাংক সিবিএ

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...