• আপডেট টাইম : 01/05/2023 05:41 PM
  • 512 বার পঠিত
  • এমএম আকাশ
  • sramikawaz.com

 

এম এম আকাশ

পহেলা মে এলেই শ্রমিকদের ‘খুন রাঙা লাল ঝান্ডা’ মনে পড়ে যায়। স্মরণে আসে তাদের ৮ ঘণ্টা কাজ, ৮ ঘণ্টা ঘুম, ৮ ঘণ্টা অন্যান্য কাজ ও বিনোদনের দাবির কথা। শ্রমিকও যে একজন স্বাভাবিক মানুষ; যন্ত্রের মতো শুধু কারখানায় যাওয়া, কাজ করা আর কাজ শেষে খেয়ে-দেয়ে কোনোমতে পরদিন আবার কাজে যাওয়া যে মানবিক জীবন হতে পারে না– সেই কথাটা প্রতিষ্ঠা করার জন্য কী ভীষণ লড়াই-ই না শ্রমিকশ্রেণিকে করতে হয়েছিল পুঁজিবাদের প্রথম যুগে!

পুঁজিবাদের দুর্গ আমেরিকার শিকাগোর হে মার্কেটে সেই সংগ্রামের সূত্রপাত ঘটেছিল। পরবর্তী সময়ে সেই সংগ্রামের পথ অনুসরণ করে উন্নত পুঁজিবাদী দেশগুলোতে ৮ ঘণ্টার বেশি কাজ করানো বেআইনি ঘোষণা করা হয়েছিল। অতি উন্নত পুঁজিবাদী দেশে যেখানে যন্ত্রই প্রধান কাজ করতে সক্ষম, সেখানে শ্রমিকের উৎপাদনশীলতাও অনেক বেশি– সেসব উন্নত পুঁজিবাদী দেশে শ্রমঘণ্টা কমে এসেছে; যদিও শোষণের আপেক্ষিক হার কমেনি। কিন্তু আমাদের মতো দেশে ব্যাপারটা ঘটেছে একদম উল্টো। এখানে শ্রমের উৎপাদনশীলতা কম; মালিকের মুনাফাপ্রীতি বা লোভ বেশি; পুঁজি বিনিয়োগ কম, পাচার বেশি। আবার কর্মসৃষ্টি কম। ফলে বেকার শ্রমিকদের অঢেল সরবরাহ বেড়েই চলেছে। যে কারণে মজুরি আপেক্ষিকভাবে কোথাও কোথাও এত নিচে নেমে গেছে যে, একজন শ্রমিক একা আর কিছুতেই সংসারের বোঝা টানতে পারছে না। তাই আনুষ্ঠানিক খাতের শিল্প-কারখানায় কর্মরত স্বামী-স্ত্রী দু’জন কাজ না করলে আজ তাদের সংসারে নুন আনতে পানতা ফুরায়। একেই সরকার বলছে উন্নয়ন, আর বিদেশিরা বলছে ‘দারিদ্র্য’ হ্রাস!

আনুষ্ঠানিক খাতে তো তবু কাজ ও আয়ের একটা নিশ্চয়তা আছে। কিন্তু এই অনুন্নত প্রান্তিক পুঁজিবাদী দেশে বেকার, অর্ধ-বেকার, ছদ্ম-বেকারদের নিয়ে গঠিত বিশাল অনানুষ্ঠানিক খাতের শ্রমিকদের অবস্থা সাধারণভাবে আরও খারাপ। তাদের সংখ্যাই প্রায় ৮০ শতাংশ। তাদের জন্য নিয়মকানুন, শ্রমঘণ্টার কোনো বালাই নেই। বাধ্য হয়ে শ্রমিকরা কেউ শহরে থেকে ১২-১৪ ঘণ্টা কারখানায় ওভারটাইম করে রোজগারের টাকা গ্রামের বাড়িতে থাকা পরিবারের কাছে পাঠাতে বাধ্য হয়। কোনো কোনো শ্রমিক কাজের সন্ধানে ভাসমান শ্রমিক হিসেবে বাধ্য হয়ে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় চলে যায়। বিদেশ-বিভূঁইয়ে চলে যায় এবং সেখান থেকে তার রোজগারের উদ্বৃত্ত দিয়ে পরিবারের ভরণ-পোষণ করে। যে কারণে বাংলাদেশে নিচের ৪০ শতাংশের আয় বেড়েছে শম্বুক গতিতে;  ওপরের ৫ শতাংশের আয় বেড়েছে রকেটের গতিতে। সর্বশেষ সরকারি খানা জরিপেও একই চিত্র ফুটে উঠেছে।

 

শ্রমিকদের জন্য আজ পর্যন্ত সরকার একটি স্থায়ী মজুরি বোর্ড নির্ধারণ করতে পারেনি। কয়েক বছর পরপর অস্থায়ীভাবে বোর্ড নির্ধারণ করে প্রকৃত মজুরি যখনই সরকারিভাবে সামান্য বাড়িয়ে নির্ধারণ করা হয়েছে, তখনই মালিকরা ঐক্যবদ্ধভাবে এর বিরোধিতা করেছেন। বর্তমানে  ত্রিপক্ষীয় বৈঠকে স্কপের পক্ষে জাতীয়ভাবে এবং বিশেষভাবে আনুষ্ঠানিক খাতের কারখানাগুলোর জন্য শ্রমিকদের বর্তমান দাবি– জাতীয় সর্বনিম্ন মজুরি হোক মাসিক ২০ (মতভেদে ২৫) হাজার টাকা। দ্রব্যমূল্য এখন যে মাত্রায় পৌঁছেছে, তাতে বেঁচে থাকতে হলে একজন লোকের মাসে কমপক্ষে ১০ হাজার টাকা প্রয়োজন। মাথার ওপর ছাদসহ ৪ জনের শ্রমিক পরিবারের জন্য তাই আসলে দরকার কমপক্ষে মাসিক ৪০ হাজার টাকা। দু’জনে চাকরি করলে ন্যূনতম ২০ হাজার টাকা করে এলে বাড়ি ভাড়া, শিক্ষা, চিকিৎসা, পরিবহন ও পকেট খরচ হিসাব করলে ৫০ হাজার টাকা ছাড়া ঢাকা শহরে পুত্র-কন্যাসহ একজন শ্রমিক ঠিকমতো বেঁচে থাকতে পারে না।

এবারের মে দিবসে শ্রমিক শ্রেণিকে সবার জন্য কাজ এবং ওই কাজের জন্য জাতীয় ন্যূনতম মজুরি জনপ্রতি ২০-২৫ হাজার টাকার দাবিতে নতুন করে জোট বাঁধতে দেখা যাচ্ছে। ওদিকে এর বিরুদ্ধে শিল্প-পুলিশ ও নানা নিবর্তনমূলক আইন (যেমন ধর্মঘট নিষিদ্ধকরণ) তৈরি করা হয়েছে। মজার বিষয় হচ্ছে, সরকার একদিকে  স্কপের (শ্রমিক-কর্মচারী ঐক্যপরিষদ) ভেতরে শ্রমিক লীগকে দিয়ে যে দাবি সমর্থন করাচ্ছে, অন্যদিকে মালিকদের দিক থেকে সেই দাবিই বিরোধিতা করার জন্য সাজ সাজ প্রস্তুতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে!

টাকার ক্রয়ক্ষমতা যেন অক্ষুণ্ন থাকে সে জন্য শ্রমিক শ্রেণিকে এই মে দিবসে আরও কতগুলো দাবি নিয়ে সংগ্রাম করতে হবে। তাই প্রকৃত মজুরি অক্ষুণ্ন রাখার জন্য দাবি হওয়া উচিত–

ক. একটি পরিবারের জন্য প্রয়োজনীয় পরিমাণে চাল-ডাল-লবণ-তেল-জ্বালানির নিয়মিত রেশন নিশ্চিত করতে হবে, যাতে বাজারে দাম বাড়ার ফলে মজুরিলব্ধ টাকার ক্রয়ক্ষমতা না কমে যায়। অনেক দেশে অবশ্য স্থায়ী মজুরি কমিশন রয়েছে, যারা মুদ্রাস্ফীতির সঙ্গে সঙ্গে বাৎসরিকভাবে টাকায় মজুরির পরিমাণ বাড়িয়ে দেয় বা সমহারে মহার্ঘ্য ভাতার ব্যবস্থা করে। সেই ব্যবস্থার দাবি করতে হবে।

খ. আবাসন– একটি মৌলিক সাংবিধানিক অধিকার। শ্রমিক কলোনি গড়ে তুলে কারখানা ও শিল্প এলাকায় শ্রমিকদের আবাসনের ব্যবস্থা করা দরকার। বর্তমানে যেভাবে বাড়ি ভাড়া দফায় দফায় বাড়িয়ে শ্রমিকদের আয়ের বড় অংশ খাজনাভোগী বাড়ির মালিকরা পকেটস্থ করছে, তা না ঠেকাতে পারলে শুধু রেশন বাড়িয়ে শ্রমিকদের সামাজিক সুরক্ষা দেওয়া যাবে না।

গ. শ্রমিকদের সন্তানদের জন্য শিক্ষা ও স্বাস্থ্যের ব্যবস্থা করতে হবে। এটা ছাড়া সমগ্র দেশ উন্নত মানবসম্পদের বা জ্ঞানভিত্তিক উন্নত দেশের পর্যায়ে পৌঁছাতে পারবে না।

 প্রশ্ন হচ্ছে– এগুলো মালিক করবেন, না সরকার করবে? শ্রমিকদের সমবায় সংগঠন করবে?  কীভাবে করবে? অর্থই বা কে দেবে? সাধারণভাবে কল্যাণ রাষ্ট্রের নীতি অনুসারে সমগ্র ধনিক শ্রেণির উদ্বৃত্ত থেকে কর আদায় করে তা দিয়ে সরকারকে তার ব্যবস্থা করতে হবে। এ জন্য প্রয়োজনীয় কর ব্যবস্থার সংশোধন ও নতুন করে বাজেট বরাদ্দ করতে হবে।

 একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের সংখ্যাগরিষ্ঠ নাগরিকরাই হচ্ছে সে দেশের মালিক। রাষ্ট্রকে তারা তাদের ইচ্ছা অনুযায়ী গণতান্ত্রিক ভোটের মাধ্যমে পরিচালিত করবে। রাষ্ট্রকে সংখ্যাগরিষ্ঠ শ্রমিক-কৃষকদের মালিকানাধীন রাষ্ট্রে পরিণত করা না গেলে গণতন্ত্রের প্রকৃত দাবি-দাওয়া কিছুতেই বাস্তবায়িত হবে না।

প্রসঙ্গত, বর্তমানে আমাদের দেশে ভোটের নামে চলছে টাকা-পেশিশক্তি ও প্রশাসনিক কারসাজির গণতন্ত্র। এই কর্তৃত্ববাদী ‘গণতন্ত্র’ প্রত্যাখ্যান করে গড়ে তুলতে হবে নিজেদের দ্বারা, নিজেদের জন্য, নিজেদের গণতন্ত্র। সেটা হবে স্বচ্ছ এবং সর্বস্তরের জনগণের দিক থেকে অংশগ্রহণমূলক আর রাষ্ট্রীয় কর্তৃত্বের দিক থেকে জবাবদিহিমূলক। জনগণ এখানে অধিকার উপভোগ করবে। প্রশাসকদের এখানে জবাবদিহিমূলকভাবে দায়িত্ব পালন করতে হবে।

এ ধরনের সামাজিক ব্যবস্থায় যাতে নতুন করে কায়েমি স্বার্থ গজিয়ে উঠতে না পারে, সে জন্য তৃণমূলে জনগণের স্বাধীন গণসংগঠন ও ধর্মঘট করার অধিকার কোনোভাবেই কেড়ে নেওয়া যাবে না। সম্প্রতি সরকার ঘোষণা করেছে– যে কোনো খাত বা প্রতিষ্ঠানকে ‘অত্যাবশ্যকীয়’ বা ‘জননিরাপত্তা’র জন্য গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা করে সেখানে কর্মরত সবার প্রতিবাদ-ধর্মঘটের অধিকার কমপক্ষে ১ বছরের জন্য স্থগিত রাখতে পারবে। যদিও প্রাথমিকভাবে পানি, বিদ্যুৎ, পয়ঃপ্রণালি, ডাক, অত্যাবশ্যকীয় খাদ্যদ্রব্য, প্রতিরক্ষা প্রভৃতি খাত নির্বাচিত করা হয়েছে; কিন্তু আইনে এমন ধারা রয়েছে যে, সংসদ চাইলে উৎপাদনশীল কলকারখানায়ও তা প্রয়োগ করতে পারবে।

বিলটি জাতীয় সংসদে উত্থাপিত হয়েছে; এখনও পাস হয়নি। শ্রমিক শ্রেণির বহু কষ্টে অর্জিত আইনসংগত ট্রেড ইউনিয়ন, দরকষাকষির সংগ্রাম ও বৈধ ধর্মঘটের মাধ্যমে সংগ্রাম এগিয়ে নেওয়ার বিশ্বব্যাপী স্বীকৃত অধিকার এই বিলে রহিত করা হচ্ছে। এবারের মে দিবসে তাই শ্রমিক শ্রেণিকেই সবার আগে নিজেদের সংগ্রাম করার অধিকার এবং ধর্মঘট করার হাতিয়ারকে রক্ষা করার জন্য রুখে দাঁড়াতে হবে।

অধ্যাপক ড. এম এম আকাশ: অর্থনীতিবিদ

 

samakam

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...