• আপডেট টাইম : 09/10/2023 11:30 AM
  • 270 বার পঠিত
  • আওয়াজ প্রতিবেদক
  • sramikawaz.com

 

গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি প্রস্তাব করেছে ১৭ হাজার ৫৬৮ টাকা।  এ প্রস্তাবে শ্রমিকদের জীবন নির্বাহের ব্যয়ের প্রেক্ষিতে যে দাবি তা প্রতিফলন হয়নি। এটা মালিক ও আইএমএফ-বিশ্বব্যাংকের চাওয়ার প্রতিফলিত হয়েছে বলে মনে করেন গার্মেন্টস ঐক্য ফোরামের সভাপতি মোশরেফা মিশু। তিনি  বলেন, সিপিবি আর যাই হোক মালিকপক্ষের কেউ না। সিপিডির এ প্রস্তাব আমি প্রত্যাখান করছে।

 

সিপিডির গার্মেন্টস শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি প্রস্তাবের প্রতিক্রিয়ায় তিনি শ্রমিক আওয়াজকে এ কথা বলেন।

 

মোশরেফা মিশু বলেন, আমরা দেখে আসছি বরাবরই শ্রমিকদের পক্ষের দাবি সিপিডি কাছে কোন গুরুত্ব বহন করে না। তারা কি ধরণের অর্থনীতিবিদ, তারা  কি ধরণের গবেষক, শ্রমিকের বিপক্ষে গবেষণা করবে ? তাদের প্রস্তাব শ্রমিকের পক্ষে যাচ্ছে না। তারা শ্রমিকদের পক্ষে বলে যে গবেষণা পত্র দিয়েছে আমি শ্রমিকদের পক্ষ থেকে প্রত্যাখ্যান করছি।

 

তিনি বলেন, সিপিডি এটা করতে পারে না। তারা নিজেদের বড় বড় অর্থনীতিবিদ দাবি করে। শ্রমিক এখানে ঠিক মত খেতে পায় না, তারা কোথায় থাকছে, কয়বেলা খাচ্ছে, তাদের জীবনটা কেমন ভাবে চলছে,এগুলো সম্পর্কে গবেষনা করে গবেষণা করার দরকার ছিল। ‍ শ্রমিকরা যেন ভাল থাকতে পারে, তাদের জীবনের উন্নতির জন্য একটা গবেষণা পত্র দেওয়ার দরকার ছিল। কিন্তু তারা বুঝিয়ে দিলো,তারা শ্রমিক পক্ষের কেউ না। শ্রমিকের বিপক্ষে যারা আছে সিডিপি হচ্ছে তাদের। এবং সিপিডির গবেষণা শ্রমিকের বিপক্ষে যায়। সিপিডির গবেষণা শ্রমিকদের স্বার্থের সম্পূর্ণ বিপক্ষে।

আমরা আমাদের জোট থেকে গার্মেন্টস শ্রমিকদের জন্য ন্যূনতম মজুরি ঘোষণা করেছি ২৫ হাজার টাকা।  কোন কোন জোট ২৩ হাজার টাকা ন্যূনতম মজুরি দাবি করেছে। কিন্তু কোন জোটই ২০ টাকা নীচে ন্যূতম মজুরি দাবি করেনি। ২০ হাজার, ২৩ হাজার ও ২৫ হাজার ন্যূনতম মজুরি দাবি করা হয়েছে বিভিন্ন শ্রমিক জোটের পক্ষ থেকে। সিপিডির এই গবেষণা যেখানে শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি ১৭ হাজার প্রস্তাব করা হয়েছে;  আর যাই এটা শ্রমিক পক্ষের প্রতিনিধিত্ব করে না। এটা অত্যান্ত দুঃখজনক ব্যাপার; বলে এই শ্রমিকনেত্রী।

তিনি প্রশ্ন করেন, সিপিডি অর্থনীতিবিদদের একটি প্রতিষ্ঠান, তারা কি গবেষণা করলো। কোন ভিত্তিতে শ্রমিকদের এই ন্যূনতম মজুরি প্রস্তাব করলো?

তিনি বলেন, ৪ সদস্যের একটি পরিবারের মাসে কতটা চাল লাগে, কতটা ডাল লাগে, কোন খাদ্য কত লাগে আমরা বিস্তারিত তুল ধরেছি। সিপিডির এগুলো চোখে পড়ে না। শ্রমিকদের স্বার্থ, শ্রমিকদের এই জীবন যাদের চোখে পড়ে না, তারা আর যাই হোক, তারা শ্রমিকের শ্রেণির স্বার্থের পক্ষের গবেষক না। তারা আইএমএফম, বিশ্বব্যাংক ও মালিক শ্রেণির গবেষক, তারা শ্রমিক স্বার্থের গবেষক নয়।  এ কারণে সিপিডির এই প্রস্তাব আমি প্রত্যাখান করছি। জোরালো ভাবে আমরা প্রত্যাখান করছি।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...