• আপডেট টাইম : 24/04/2022 05:03 PM
  • 102 বার পঠিত
  • আওয়াজ ডেস্ক
  • sramikawaz.com

মালয়েশিয়ায় জোরপূর্বক শ্রমের প্রতিকারের জন্য নিজ থেকেই সহজ উপায় অবলম্বন করার জন্য কেন্দ্রীয় সরকারকে পরামর্শ দিয়েছেন শ্রম অধ্যুষিত পেনাং রাজ্যের উপমুখ্যমন্ত্রী পি রামাসামি।

শনিবার ২৩ এপ্রিল এক বিবৃতিতে দেশটির কেন্দ্রীয় সরকারের মানবসম্পদ মন্ত্রী এম সারাভানানের উদ্দেশে তিনি বলেন, মন্ত্রী সারাভানানের উচিত কেন জোরপূর্বক শ্রম বিদ্যমান তা খুঁজে বের করা।

পি রামাসামি বলেন, জোর জবরদস্তি শ্রম সম্পর্কে তথ্য দেওয়ার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস বা আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থাকে (আইএলও) দায়িত্ব না দিয়ে নিজেদেরকে এই সমস্যার সমাধান করতে হবে।

মালয়েশিয়ায় জোরপূর্বক শ্রম ইস্যুটি সম্প্রতি খুব গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, মালয়েশিয়ায় শ্রম চর্চার বিষয়ে তদন্ত করা বা হস্তক্ষেপ করা যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস বা আইএলও'র কাজ নয়। এটি মূলত মালয়েশিয়ার সরকার ও মানবসম্পদ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব। জোরপূর্বক শ্রমের অভিযোগ দূর করার জন্য বিদেশি বা আন্তর্জাতিক সংস্থার ওপর নির্ভর করা খুব ভালো কিছু হবে না।

‘মার্কিন দূতাবাস ও আইএলও’র কাছে সহায়তা চাওয়া এই ইঙ্গিত দেয় যে, জোরপূর্বক শ্রমের ইস্যুটি পদ্ধতিগতভাবে তদন্ত করার জন্য নিজ মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দেওয়ার ক্ষেত্রে মন্ত্রীর (মানবসম্পদ মন্ত্রী) প্রশাসনিক ক্ষমতার অভাব রয়েছে। মন্ত্রণালয় মনে করে, কার্যকরী পদক্ষেপের পাশাপাশি নিয়োগকারীদের মনোভাব পরিবর্তনের মাধ্যমে জোরপূর্বক শ্রম নির্মূল করা যেতে পারে।’

চলতি সপ্তাহের শুরুর দিকে, মানবসম্পদ মন্ত্রী সারাভানান আইএলও এবং মালয়েশিয়ার মার্কিন দূতাবাসকে বলপূর্বক শ্রমের যেকোনো তদন্তের বিষয়ে মানবসম্পদ মন্ত্রণালয়কে অবহিত করতে বলেছিল, যাতে করে মালয়েশিয়ার পণ্য যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে বাধা দেওয়ার আগে সমাধান খুঁজে পাওয়া যায়।

এ বিষয়ে সারাভানান বলেন, বাধ্যতামূলক শ্রমের অভিযোগের কারণে মালয়েশিয়ার বেশ কিছু পণ্য মার্কিন কাস্টমস অ্যান্ড বর্ডার প্রোটেকশন (সিবিপি) এজেন্সি কর্তৃক রপ্তানি নিষেধাজ্ঞার শিকার হয়েছে। তবে মন্ত্রণালয় এখনও এ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে কোনো প্রতিবেদন পায়নি। ফলে এ নিয়ে কাজ করা কঠিন হয়ে পড়েছে।

তবে সারাভানানের এই বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় কুয়ালালামপুরের মার্কিন দূতাবাস শুক্রবার (২২ এপ্রিল) বলেছে, তারা জোরপূর্বক শ্রম সংক্রান্ত বিষয়ে মালয়েশিয়া সরকারের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রেখেছে।

এদিকে, জোর জবরদস্তি শ্রম ও মানবপাচারের চলমান অভিযোগের মধ্যেই নতুন করে শ্রম নিয়োগের জন্য বাংলাদেশের সঙ্গে মালয়েশিয়ার চুক্তি সম্পন্ন হয়েছে। গত বছরের ১৯ ডিসেম্বর চুক্তি স্বাক্ষরিত হলেও এখন পর্যন্ত দেশটির সরকার বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিয়োগ শুরু করেনি।

মালয়েশিয়া সরকারের মন্ত্রী ও সংসদ একাধিকবার বলেছেন, দেশটি ২০০৬-০৭ অর্থবছরের মতো অতিরিক্ত বাংলাদেশি কর্মী এনে ডাম্পিং গ্রাউন্ড করতে চায়না।

জানা গেছে, এ বছর কর্মী প্রেরণ ও নিয়োগে সংশ্লিষ্ট রিক্রুটিং এজেন্সি ও নিয়োগকর্তার সঠিক দায়িত্ব পালনের দিকেই বেশি গুরুত্ব দিয়েছে এই দুই দেশ। করোনা পরিস্থিতিতে বিদেশি কর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে নতুন নতুন নিয়ম যুক্ত হয়েছে। এতে করে নিয়োগকর্তাদের খরচ বেড়েছে। পক্ষান্তরে অতীতের ধারাবাহিকতায় এই খরচ কর্মীদের কাছ থেকেই আদায় করা হবে কিনা- এরও কোনো নিশ্চয়তা নেই। সব মিলিয়ে এ ব্যাপারে বাংলাদেশ বা মালয়েশিয়া কোনো পক্ষ থেকেই সঠিক তথ্য জানা যায় নি।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...