• আপডেট টাইম : 06/02/2024 06:50 PM
  • 51 বার পঠিত
  • আওয়াজ ডেস্ক
  • sramikawaz.com

১২ ঘণ্টার মধ্যে যশোর পৌরসভার রেলস্টেশন হরিজন কলোনির বিদ্যুৎ লাইন সচল করে না দিলে কঠোর আন্দোলনে যাওয়ার হুঁশিয়ার দিয়েছেন পৌরসভার হরিজনরা।

বিদ্যুৎ লাইন কেটে দেওয়ার প্রতিবাদে মঙ্গলবার (৬ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে যশোর শহরে বিক্ষোভ মিছিলে এ ঘোষণা দেন নেতারা।

যশোর পৌরসভা শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদ আয়োজিত বিক্ষোভ মিছিলে রেলস্টেশন হেলা সমাজ ও বাজার হরিজন কলোনি, মনিহার তালতলা কলোনি, পুরোনো পৌরসভা কলোনি ও ধর্মতলা কলোনির তিন শতাধিক হরিজন সদস্য দুই ঘণ্টা ধরে শহরে বিক্ষোভ করেন।


যশোর পৌরসভার শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদ সভাপতি মতি লাল বলেন, আজ রাত ১২টার মধ্যে যশোর পৌরসভার রেলস্টেশনের হরিজনদের দুটি কলোনির বিদ্যুৎ লাইন সচল করে না দিলে যশোর পৌরসভার বিরুদ্ধে কঠোর আন্দোলন ঘোষণা করবো।

তিনি বলেন, ‘ব্রিটিশ আমল থেকে আমাদের বাপ-দাদারা বসবাস করে আসছেন। তাদের কখনো বিদ্যুৎ বিল দিতে হয়নি। প্রিপেইড মিটার দেওয়া মানে বিদ্যুৎ বিল আগে দিয়ে ব্যবহার করতে হবে। পৌরসভা আমাদের মাত্র তিন হাজার টাকা করে বেতন দেয়। এটা দিয়ে কী হয়? বছরের পর বছর পৌর কর্তৃপক্ষ আমাদের সঙ্গে তামাশা করে আসছে। বেতন-ভাতা না বাড়িয়ে বিদ্যুৎ বিল চাপিয়ে দিচ্ছে। এটা অমানবিক বিষয়।’


এদিকে, বিদ্যুৎ লাইন কেটে দেওয়ার প্রতিবাদে গত দুদিন কাজ বন্ধ রেখেছেন যশোর পৌরসভার হরিজনরা। এতে শহরের মোড়ে মোড়ে ময়লার স্তূপ জমা হয়ে আছে। দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। পথচারীদের মুখে কাপড় দিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে।

শহরে ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিটি মোড়ে মোড়ে ময়লা স্তূপ তৈরি হয়েছে। কুকুর, বিড়াল, পাখি পা দিয়ে হাতড়ে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। স্কুল-কলেজগামী শিক্ষাথী ও পথচারীরা মুখ চেপে চলাচল করছেন।

শহরের রেলগেট তেঁতুলতলা এলাকার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা ময়লা না নিয়ে যাওয়ায় পশুপাখিতে এসব ময়লা ছড়িয়ে ছিটিয়ে ফেলছে। এতে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে, পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। এ বিষয়ে পৌর কর্তৃপক্ষের নজর দেওয়া দরকার।


যশোর পৌরসভা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক হিরন লাল সরকার বলেন, বর্তমান মেয়র আমাদের সঙ্গে আলোচনা না করে রেলস্টেশন এলাকার হরিজন কলোনির বিদ্যুতের লাইন বিচ্ছিন্ন রেখেছেন। তার প্রতিবাদে আমরা পৌরসভার সবধরনের পরিচ্ছন্নতার কাজ বন্ধ রেখেছি। সমস্যার সমাধান না হলে আমরা কঠোর কর্মসূচি দেবো।


এ বিষয়ে যশোর পৌরসভার প্যানেল মেয়র মোকছিমুল বারী অপু বলেন, পৌরসভার কোনো কোনো এলাকায় এনজিওকর্মীরা কাজ করেন, আবার কোনো কোনো এলাকায় পৌরসভার পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা কাজ করেন। পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা যে এলাকায় কাজ করেন এদের কিছু কর্মী স্ট্রাইক করেছেন।

তিনি বলেন, তিনটি কলোনির বিদ্যুৎ বিল বাকি সাড়ে পাঁচ কোটি টাকা। তাদের এ টাকা পৌরসভা পরিশোধ করবে না। এখন তারা যাই করুক তাদের সঙ্গে কোনো আপসে যাওয়া হবে না। আমরা নিজেরা সবাই বসে একটা সিদ্ধান্ত নেবো কী করা যায়।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...