• আপডেট টাইম : 07/06/2024 08:36 PM
  • 12 বার পঠিত
  • সীমা দত্ত সদস্য, কেন্দ্রীয় নির্বাহী ফোরাম।
  • sramikawaz.com

আজ ৭ জুন, শুক্রবার ২০২৪, সকাল ১১ টায়, জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ধনী গরিব বৈষম্যের বাজেট প্রত্যাখ্যান করে বাসদ (মার্কসবাদী)—র প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। দলের কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক কমরেড মাসুদ রানার সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় সদস্য এবং ঢাকা নগরের সমন্বয়ক কমরেড জয়দীপ ভট্টাচার্য ও সীমা দত্ত।

সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন,“গতকাল সরকার প্রায় ৮ লক্ষ কোটি টাকার বাজেট প্রণয়ন করেছে যার সিংহভাগ আসবে জনগণের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ করে। বাকি টাকা আভ্যন্তরীন ও বৈদেশিক ঋণ থেকে। অর্থাৎ জনগণ শুধু টাকা যোগাবে, ভোগ করবে ধনীরা। আওয়ামীলীগ সরকার একতরফা ও অবৈধ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে ক্ষমতায় বসে ২০২৪—২৫ সালের যে বাজেট ঘোষণা করেছে তাতে এফবিসিসিআই এর নেতাদের সন্তুষ্টি থেকেও বুঝা যায় এই বাজেট সর্বতোভাবে জনবিরোধী।”


সভাপতির বক্তব্যে কমরেড মাসুদ রানা বলেন, “ বাজেট বক্তৃতায় লোক ঠকানোর জন্য অনেক সুন্দর সুন্দর কথা বলা হয় কিন্তু কোন পরিকল্পনা নেয়া হয়না। জিনিসপত্রের আকাশছেঁায়া দাম মানুষের সবচেয়ে বড় সমস্যা। খাদ্যে মূল্যবৃদ্ধি প্রায় ১১%। ২০২২ সালের হিসেবে, উন্নয়নশীল ১৭টি দেশের মধ্যে খাবারের জন্যে সবচেয়ে বেশি মাথাপিছু খরচ করেন বাংলাদেশের নাগরিকেরা, যার পরিমাণ ৯২৪ ডলার। খাদ্যে মূল্যস্ফীতি কমিয়ে ৬.৫% আনার কথা বলা হয়েছে বাজেটে। অথচ এ বছরের মার্চ থেকে বিদ্যুতের দাম খুচরায় ৮.৫% এবং পাইকারিতে ৫% দর বাড়িয়েছে সরকার। প্রতি চারমাস পরপর তারা এটা বাড়াবে। প্রিপেইড মিটারে অস্বাভাবিক হারে বিল কাটা হচ্ছে, মানুষের অবস্থা দিশেহারা। বিদ্যুৎ, গ্যাস, পানিÑ এ সবকিছুর দাম বাড়িয়ে, আইএমএফের প্রেসক্রিপশন মেনে এই মূল্যস্ফীতি কমনোর কথা বলা মানে একটা ফাঁকা বুলি ছুড়ে দেয়া, দাম কমানো নয়। বাজেট ঘাটতি মোট বাজেটের ৩২% এর উপরে। বাস্তবে প্রতি অর্থবছর শেষে প্রকৃত ঘাটতি বাজেট দাঁড়ায় ৪৫% এর উপরে। এই ঘাটতি বাজেট দেশি—বিদেশি ঋণ নিয়ে পূরণ করা হয়, এবারও তাই হবে। এমনিতেই সরকার ঋণের ভারে জর্জরিত। ঋণের সুদ পরিশোধের জন্যই বাজেটে বরাদ্দ ১ লক্ষ ১৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকা, অর্থাৎ মোট বাজেটের সাত ভাগের এক ভাগ। ঋণনির্ভর এই বাজেটে কী করে চলমান অর্থনৈতিক সংকট, বৈদেশিক লেনদেনের বিপুল ঘাটতি, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ক্ষয়, ডলারের মূল্যবৃদ্ধি, উচ্চ মূল্যস্ফীতি ইত্যাদি কাঠামোগত সমস্যা মোকাবিলা করা হবে, তার কোন সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা নেই।

দুর্নীতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ, সুখী—সমৃদ্ধ বাংলাদেশ এসব কথা আছে, কিন্তু দুর্নীতি রোধে কোনো কার্যকর দিকনির্দেশনা নেই। আজিজ, বেনজীর, আনার—কাণ্ডে সরকারের দুর্নীতির যে ভয়াবহতা ফুটে উঠেছে, তা নিয়ে সারাদেশে তোলপাড় চলছে। অথচ বাজেট প্রস্তাবে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ রেখে দুর্নীতিকে আরও উৎসাহিত করার ব্যবস্থা হচ্ছে। বৈধ আয়ে সর্বোচ্চ কর যেখানে ৩০%, সেখানে ১৫% কর দিয়ে কালো টাকা সাদা করার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।


শিক্ষা—স্বাস্থ্য—সামাজিক সুরক্ষায় বরাদ্দ নেই, বরাদ্দ বেড়েছে জনপ্রশাসন ও প্রতিরক্ষা খাতে। ১৭ কোটি মানুষের জন্য স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ রাখা হয়েছে বাজেটের ৫.১৯%। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার সুপারিশ অনুযায়ী, স্বাস্থ্যখাতে বরাদ্দ হতে হবে জিডিপির ৫% ও মোট বাজেটের ১৫%। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে একজন রোগীকে চিকিৎসা ব্যয়ের ৭৪% মেটাতে হয় নিজের পকেটের টাকায়, বর্তমানে সরকার ব্যয় করে মাত্র ২৬%। যার ফলে চিকিৎসা ব্যয় মেটাতে গিয়ে প্রতিবছর বাংলাদেশের ১ কোটি ১৪ লাখের বেশি মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে নেমে যাচ্ছে। মূল্যস্ফীতির এই সময়ে স্বাস্থ্যখাতে জনগণের দায় না নিয়ে বরং আরও বৃদ্ধি করা হলো।
[
শিক্ষা খাতে জাতীয় বাজেটের প্রায় ১১.৮৮% অর্থাৎ মোট জিডিপির ২% এরও কম শিক্ষা খাতে বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে। শিক্ষাখাতে জাতীয় বাজেটের ২৫% বরাদ্দের দাবি প্রায় সকল মহল থেকে করা হয়েছে। ইউনেস্কোর পরামর্শ অনুযায়ী, একটি দেশের মোট জিডিপির ৬% শিক্ষাখাতে ব্যয় করা উচিত।
[
জনপ্রশাসন খাতে অতীতের মতো এবারও সর্বোচ্চ ২২.১% বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। ২০২৪—২৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে প্রতিরক্ষা খাতের বরাদ্দ ধরা হয়েছে মোট বাজেটের ৫.৩%; যা ২০২৩—২৪ অর্থবছরের চেয়ে ০.৭% বেশি। বাজেটের দিকে তাকালে আমরা দেখবো, বাজেটের ২২.১% জনপ্রশাসন খাতে, ১৪.২৪% ঋণের সুদ পরিশোধে, ৫.৩% প্রতিরক্ষা খাতে, ৪.২% জনশৃঙ্খলা ও নিরাপত্তা খাতেÑ অর্থাৎ এ চারটি অনুৎপাদনশীল খাতে ব্যয় হবে বাজেটের মোট ৪৫.৮৪%। আর শিক্ষা (১১.৮৮), স্বাস্থ্য (৫.১৯) কৃষি (৬.৬৩)Ñ এ তিনটি গুরুত্বপূর্ণ খাতে ব্যয় করা হবে মোট বাজেটের মাত্র ২৩.৭%।
[

এই বাজেটে ধনীরা পাবে করছাড় আর গরীবরা যোগাবে দেশ চালানোর খরচ। এবারের বাজেটে পরোক্ষ কর ৬৩.৪% এবং তা যোগাবে সাধারণ মানুষ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের শুল্ক ও ভ্যাট ইত্যাদি পরোক্ষ করের মাধ্যমে। আগে শিল্পের কাঁচামালে শুল্ক ছিল না, এখন ১% শুল্ক দিতে হবে। কাঁচামালের দাম বৃদ্ধির প্রভাব সরাসরি ভোক্তার উপর গিয়ে পড়বে। মোবাইল ফোনের কল রেট, বিদ্যুৎসাশ্রয়ী বাতি ও টিউবলাইট, মেট্রোরেলের ভাড়া, দেশি ফ্রিজ, পানির ফিল্টার, বিনোদনকেন্দ্র, ফলের রস, আইসক্রিমÑ ইত্যাদিতে ভ্যাট বাড়ানোর ফল ভোগ করবে মধ্যবিত্ত ও নিম্নমধ্যবিত্ত মানুষ। অন্যদিকে বাজেটে শতকোটি টাকার মালিকদের করপোরেট করহার ২৭.৫% থেকে কমিয়ে ২৫% করা হয়েছে।

মূল্যবৃদ্ধি, টাকার মান কমে যাওয়া ও মজুরি না বাড়ার কারণে নিম্নমধ্যবিত্ত, নিম্নবিত্ত ও দরিদ্র মানুষের জন্য সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচী বিস্তৃত করা দরকার ছিল। বর্তমানে মধ্যবিত্তরাও টিসিবির লাইনে দাঁড়াচ্ছেন। অথচ এ বছর বাজেটে এই খাতে বরাদ্দ করা হয়েছে জিডিপির ২.৩৮%। মানুষের সংকট বাড়ছে, কিন্তু সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচীতে বরাদ্দ কমছে। আবার শিক্ষাখাতের মতোই এই খাতেও ব্যাপক গেঁাজামিল দেয়া আছে। সঞ্চয়পত্রের বাড়তি সুদ, সরকারি চাকরিজীবীদের পেনশন, স্কুল—কলেজ শিক্ষার্থীদের বৃত্তি, কৃষিখাতে ভর্তুকি, সিটি কর্পোরেশনের পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের জন্য আবাসন নির্মাণ, উপকূলে আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণÑ এ সবই সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচীর অন্তর্ভুক্ত করা হয়।


ফলে কোন গভীর ব্যাখ্যা—বিশ্লেষণ ছাড়াই, প্রাথমিক দৃষ্টিতে দেখলেও এই বাজেটকে ধনীবান্ধব, জনবিরোধী একটা বাজেট বলা যায়। জনগণের কথা যতটুকু লেখা আছে সেগুলো স্বপ্ন আর ইচ্ছার কথাÑ বাস্তব পরিকল্পনা করা হয়েছে বৃহৎ ব্যবসায়ীদের জন্য, তাদের উন্নতি ও মুনাফাবৃদ্ধির জন্য।”

নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে এই জনবিরোধী বাজেট প্রত্যাহারের দাবি জানান। ফ্যাসিবাদী সরকারের বিরুদ্ধে গণআন্দোলনকে জোড়দার করতে সকল বাম—গণতন্ত্রমনা জনগণের প্রতি আহ্বান জানান।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...