• আপডেট টাইম : 30/04/2024 07:36 PM
  • 225 বার পঠিত
  • ইদ্রিশ আলি
  • sramikawaz.com

 

ব্রিটিশ সমাজ সংস্কারক রবার্ট ওয়েনের এক চিন্তা থেকে, যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে ট্রেড ইউনিয়নগুলো ১৮৮৬ সালে দিনে ৮ ঘণ্টা কাজের দাবিতে এক প্রতিবাদ কর্মসূচি শুরু করে। ৮ ঘণ্টা কাজের দাবি পূরণে শ্রমিকরা স্লোগান ঠিক করেন, 'আট ঘণ্টা কাজ, আট ঘণ্টা বিনোদন এবং আট ঘণ্টা বিশ্রাম'।

১৮৮৬ খৃষ্টাব্দে পহেলা মে আমেরিকার শিকাগো শহরের হে মার্কেটের শ্রমিকদের শান্তিপুর্ন  অবস্থান ধর্মঘটে পুলিশ লাঠি চার্জ করে গুলি করে শ্রমিক হত্যা করে, অনেক শ্রমিক আহত হয়। পরে চার শ্রমিকনেতাকে প্রহসনমুলক বিচারের মাধ্যমে ফাঁসি দিয়ে হত্য করে।

সেই দিনটিকে স্মরণ করে সারা দুনিয়ার শ্রমিকশ্রেনি মে দিবসকে শ্রমিকদের অধিকার আদায়ের জন্য প্রেরণার দিবস হিসেবে পালন করে আসছে।

বাংলাদেশেও ঘটা করে মে দিবস পালিত হয়ে আসছে এবং মে দিবস সরকার ছুটি দিন । সরকারের শ্রম দপ্তর ঘটা করে মে দিবস পালন করে থাকে, এবারো করবে। রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী বানী দিয়ে থাকেন।

দেশের সকল শ্রমিক ফেডারেশন, ট্রেড ফেডারেশন, এনজিও, সামাজিক সংগঠনগুলো সভা সমাবেশ শোভাযাত্রা মধ্যে দিয়ে দিবস টি পালন করে থাকে। মে দিবস আসে মে দিবস যায়। এ মে দিবস বর্তমানে শুধুমাত্র আনুষ্ঠানিকতার মধ্যে আটকে গেছে।  এর যে উদ্দেশ্য, ত্যাগ, জীবন বিসর্জন- এ সব কিছু ভুলে গেছে নানা। বা আনুষ্ঠানিকতায় শ্রমিকদের থেকে আড়াল করা হয়েছে।

দেশে অনেক শ্রমিক সংগঠন আছে। তারপরেও শ্রমিকদের যে নুন্যতম যে অধিকার তা আজও বাস্তবায়িত করা যায় নি।

স্বাধীনতার ৫৩ বৎসর পার হয়ে গেলো কিন্তু শ্রমিকদের জন্য জাতীয় নিম্নতম মজুরি বাস্তবায়ন হলো না, কর্মক্ষেত্রে নিরাপত্তা, সামাজিক নিরাপত্তা, আইএলও কনভেনশন ৮৭/৯৮ সেমিনার সিম্পোজিয়ামে সীমাবদ্ধ থেকে গেল, বাস্তবে তার প্রতিফলন দেখা যাচ্ছে না।

এই জন্য সরকার মালিক যতটা না দায়ী, তার থেকে শ্রমিক সংগঠন গুলো অনেক গুণ বেশি দায়ী।

দেশে বাস্তবতা হলো  শ্রমিক সংগঠন আছে কিন্তু শ্রমিকরা চাকরি হারা হচ্ছে, বে-আইনি ভাবে কারখানা বন্ধ করে শ্রমিকদের রাস্তায় দাঁড় করিয়ে দিচ্ছে। শ্রম আইন লঙ্ঘিত হচ্ছে কিংবা ঘোষিত মজুরি বাস্তবায়ন হচ্ছে না, শ্রমিকরা বঞ্চিত হচ্ছে। তখন কোন শ্রমিক সংগঠনকে আন্দোলনে দেখছি না। এক-দুটি সংগঠন আছে- যারা  জানপ্রাণ দিয়ে চেষ্টা করে যাচ্ছে )

 

আন্দোলনে নাই বা কেমন করে বলি, গার্মেন্ট সেক্টরে গত মজুরির আন্দোলনে সময় একশো টির মতো শ্রমিক সংগঠন নিজের নিজের ব্যানারে, জোট বদ্ধ হয়ে রাজপথে থেকেছে। কিন্তু মজুরি ঘোষণার আগ দিয়ে তাদের বেশির ভাগ সংগঠন মালিকদের সাথে মোটা টাকায় আন্দোলন বিক্রি করে দেশ মধ্যে দেশের বাহিরে ঘুরতে চলে গেছে।

আবার মজুরি ঘোষণা হলে কিছু সংগঠনের নেতৃত্ব  মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ দিয়ে শ্রমিকদের রাজপথে ফেলে ঘরে উঠে যায়।  এই সকল শ্রমিক সংগঠন বা নেতৃত্বের কাছে শ্রমিকের থেকে নিজেদের স্বার্থ বড়ো।

তখন শ্রমিকরা নিজেরাই আন্দোলনের সিদ্ধান্ত নিয়ে কারখানা ছেড়ে রাজপথে বেরিয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাবার সিদ্ধান্ত নেয়। আন্দোলনে  চারজন শ্রমিকে প্রাণ চলে যায়,  হাজার হাজার শ্রমিক চাকরি হারা হয়, হাজার হাজার শ্রমিকদের নামে মামলা হয় এবং শত শত শ্রমিক গ্রেফতার হলেন তখন কেউ কেউ ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা করে।

তখন আর কোন শ্রমিক সংগঠনকে শ্রমিকদের পাশে দেখা যায়নি। এ সময় দুয়েকটি শ্রমিক সংগঠন চেষ্টা করলেও শেষ পর্যন্ত তাও কঠিন হয়ে যায়।  

 

যখন দেখি শ্রমিক সংগঠনগুলো শ্রমিকদের আন্দোলনকে মালিক ও শ্রমিকদের থেকে আর্থিক সুবিধা আদায়ের মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করে থাকে তখন নিজেকে শ্রমিকনেতা হিসেবে পরিচয় দিতে লজ্জা বোধ করি।

 

এবারের মে দিবসে শ্রমিকদের কাছে আহবান, আর কোন ভুল করা যাবেনা, শ্রমিকদের অধিকার আদায়ের জন্য শ্রমিকদের ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে, বাইরে থেকে নয় নিজেদেরকে নেতৃত্ব দানে উপযুক্ত করে গড়ে তুলতে হবে।

দুনিয়ায় মজদুর এক এক ।

মো. ইদ্রিশ আলী, সভাপতি , বাংলাদেশ গার্মেন্টস সোয়েটার্স শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...