• আপডেট টাইম : 26/05/2024 08:37 PM
  • 31 বার পঠিত
  • সংবাদ বিজ্ঞপ্তি
  • sramikawaz.com

আসন্ন বাজেটে ক্ষেতমজুরসহ গ্রামীণ মজুরদের দাবি বাস্তবায়নে পর্যাপ্ত বরাদ্দের দাবীতে ক্ষেতমজুর সমিতির উদ্যোগে ২৫ মে সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে বক্তারা বলেন, প্রতিবছর বাজেট হয়। কিন্তু দেশের বেশিরভাগ মানুষের স্বার্থে সেই বাজেট হয় না। ‘আমি আর ডামি’ নির্বাচনের সরকার সরকার সাধারণ জনগণের কথা চিন্তা করেনা। লুটপাটে দেশজর্জরিত।


সভাপতির বক্তৃতায় ডা. ফজলুর রহমান বলেন, প্রতি বছর বাজেট লক্ষ কোটি টাকার বাজেট হলেও দেশের সিংহভাগ মানুষের জন্য সেই বাজেটে বরাদ্দ থাকে না দেখার মতো। তিনি বলেন, সরকার দেশের বেশিরভাগ মানুষের সংগঠনের সাথে বাজেট তৈরীর আগে আলোচনা করেনা, তারা আলোচনা করে লুটেরা ধনীক, ব্যবসায়ীদের সাথে। ফলে বাজেটে সাধারণ শ্রমজীবী মানুষের জন্য সেখানে পর্যাপ্ত বরাদ্দ থাকে না। আবার সামাজিক নিরাপত্তা খাতের নামে যাও বরাদ্দ থাকে তার যৎসামান্যই অল্প কিছু মানুষের কাছে পৌঁছায়, আর বেশির ভাগ চলে যায় লুটপাটকারীদের পকেটে।


সমাবেশে সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. আনোয়ার হোসেন রেজা বলেন, দীর্ঘদিন ধরে ক্ষেতমজুরসহ গ্রামীণ মজুরদের দাবি সারা বছর কাজ ও ন্যায্য মজুরির নিশ্চয়তার দাবি। কিন্তু সরকার গ্রামের মানুষকে কাজ দিতে ব্যর্থ হচ্ছে। তিনি ক্ষেতমজুরসহ গ্রামীণ মজুরদের সারা বছর কাজের জন্য বিভিন্ন স্কিম চালু করা, ‘১০০ দিনের কর্মসৃজন কর্মসূচি’ সকল উপজেলায় চালু, প্রকৃত গ্রামীণ মজুরদেরকে ১০০ দিনের কাজে নিয়োগ মজুরি কমপক্ষে ৮০০ টাকা নির্ধারণ করার জন্য বাজেটে বরাদ্দ রাখার দাবি জানান।


সমাবেশে অন্যান্য বক্তারা বলেন, দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতিতে মানুষ অতিষ্ট। নেতৃবৃন্দ গ্রামীণ মজুমদের জন্য রেশনিং ব্যবস্থা চালু করে ৫ টাকা কেজি দরে চাল-লাটা লবণ, ৩০ টাকা কেজি দরে সয়াবিন তেল ও মসুরের ডাল, ১৫ টাকা কেজি ধরে চিনি ও কেরোসিন এবং সাবানসহ নিত্যপণ্য কম দামে রেশনের মাধ্যমে দেওয়ার দাবি করেন।সমাবেশে নেতৃবৃন্দ ক্ষেতমজুরের কর্মক্ষম সন্তানদের ভকেশনাল সহ বিভিন্ন ট্রেনিং দিয়ে কাজের উপযুক্ত করে সরকারি খরচে বিদেশে পাঠানো ও তাদের প্রেরিত রেমিটেন্স থেকে মাসে মাসে কিস্তিতে সেই টাকা পরিশোধের ব্যবস্থার দাবি করেন।


সমাবেশে নেতৃবৃন্দ গ্রামীণ মজুরদের বয়স ষাট বছর হলেই তাদেরকে বিনা জমায় প্রতি মাসে ১০ হাজার টাকা করে পেনশন দিতে হবে। এই পেনশন নারী পুরুষ উভয়কেই দিতে হবে।


গ্রামীণ দরিদ্র মানুষ ¯^াস্থ্যসেবা থেকে সবসময় অবহেলিত। এজন্য থানা/উপজেলা ¯^াস্থ্য কমপ্লেক্সে সার্বক্ষণিকভাবে পর্যাপ্ত ডাক্তার ও গরিব রোগীদের বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা প্রদানের দাবি করা হয়। সমাবেশে গরিব মানুষের জন্য ১০০ ইউনিট পর্যন্ত বিদ্যুৎবিল মওকুফের দাবি জানানো হয়।


সংগঠনের সভাপতি ডা. ফজলুর রহমানের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন রেজা, নির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাড. সোহেল আহমেদ, সহ সাধারণ সম্পাদক অর্ণব সরকার, নির্বাহী কমিটির সদস্য রমেন বর্মন, মোতালেব হোসেন, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য অনিরুদ্ধ দাশ অঞ্জন, লোকনাথ বর্মন, কল্লোল বণিক। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন কৃষক সমিতির কেন্দ্রীয় নেতা জাহিদ হোসেন খান, শ্রমিক নেতা আব্দুল কাদের।
সমাবেশ শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে পুরানা পল্টনে এসে শেষ হয়।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...