• আপডেট টাইম : 17/07/2022 10:57 PM
  • 43 বার পঠিত
  • শরীফুল ইসলাম, কুষ্টিয়া
  • sramikawaz.com

দৌলতপুরসহ কুষ্টিয়ায় গ্রীষ্মকালীন তরমুজ চাষকরে সাফল্য পেয়েছেন কৃষকরা। কৃষি বিভাগের পরামর্শে আগামজাতের গ্রীষ্মকালীন তরমুজ চাষ করে অধিক লাভ হওয়ায় এখানকার কৃষকরা তরমুজ চাষে আগ্রহী হয়ে উঠছেন।

কুষ্টিয়ায় চলতি মৌসুমে ব্লাকবেরীসহ বিভিন্ন জাতের ১০ হেক্টর জমিতে গ্রীষ্মকালীন বিভিন্ন রংয়ের তরমুজ চাষ হয়েছে। এরমধ্যে দৌলতপুরে চাষ হয়েছে ২হেক্টর জমিতে। এতে বেশ সাফল্য পেয়েছেন কৃষকরা। প্রতি বিঘা জমিতে তরমুজ চাষে কৃষকদের খরচ হয়েছে প্রায় ৪০-৫০ হাজার টাকা। আর খরচ বাদ দিয়ে কৃষকদের লাভ হচ্ছে বিঘা প্রতি ৮০ হাজার টাকা থেকে একলক্ষ টাকা পর্যন্ত।

দৌলতপুরের শশীধরপুর গ্রামের কৃষক নাসির উদ্দিন শ্রমিক আওয়াজকে জানান, এবছর গ্রীষ্মকালীন তরমুজ করে বেশ লাভবান হয়েছেন। একবিঘা জমিতে গ্রষ্মকালীন তরমুজ চাষ করে খরচ বাদ দিয়ে প্রায় ১ লক্ষ টাকা আয় করেছেন। তরমুজ চাষ লাভজনক হওয়ায় আগামীতে এ চাষ বৃদ্ধি করবেন তিনি জানান।
দৌলতপুর কৃষি অফিস থেকে স¤্রাট নামে এক যুবক ১৫ শতক জমিতে গ্রীষ্মকালীন তরমুজ চাষের জন্য প্রদর্শনী প্লট নেয়। মাত্র ১৫হাজার টাকা খরচ করে সে ৫০হাজার টাকার তরমুজ বিক্রয় করেছেন। তার দেখাদেখি অনেক কৃষক তরমুজ চাষে আগ্রহী হচ্ছেন বলে স¤্রাট জানিয়েছেন।
গ্রীষ্মকালীন তরমুজ চাষ করে কৃষকরা লাভবান হওয়ায় তারা তরমুজ চাষে আগ্রহী হচ্ছেন। সে¶েত্রে কৃষি বিভাগও তাদের সার্বিক সহযোগিতা ও পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন দৌলতপুর কৃষি কর্মকর্তা মো. নুরুল ইসলাম।
ক্ষতিকর তামাক চাষ থেকে কৃষকদের বিরত রাখতে অধিক লাভজনক তরমুজসহ বিভিন্ন ধরণের ফসল চাষে কৃষকদের আগ্রহী করে তুলতে প্রয়োজন সরকারী প্রণোদনাসহ কৃষি বিভাগের অধিক তদারকি।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...