• আপডেট টাইম : 02/07/2022 10:54 PM
  • 83 বার পঠিত
  • শরীফুল ইসলাম, কুষ্টিয়া
  • sramikawaz.com

কোরবানীর ঈদকে সামনে রেখে কুষ্টিয়ার ৩৫ হাজার খামারী এবছর কোরবানীর পশু প্রস্তুত করেছেন। দেশীয় পদ্ধতি ও প্রাকৃতিক পরিবেশে ক্ষুদ্র খামারী বা কৃষকরা গরু মোটাতাজা করেছেন। তবে গোখাদ্যের দাম বেশি হওয়ায় অনেক কৃষক বড় গরু মোটা তাজাকরণ ছেড়ে ঝুঁকেছেন ছোট গরু পালনে। গরু ব্যবসায়ীরা ইতোমধ্যে ট্রাকভর্তি গরু নিয়ে পদ্মা সেতু দিয়েও ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের কোরবানীর পশুহাটে পৌঁছানো শুরু করেছেন বাড়তি লাভের আশায়। তবে পশু ক্রয়ে ক্রেতাদের আগ্রহ তেমন একটা লক্ষ্য করা যাচ্ছেনা বলে খামারীরা জানিয়েছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানাগেছে, কুষ্টিয়ায় এবছর ছোট বড় ৩৫ হাজারে খামারে ১ লক্ষ ৮০ হাজার কোরবানীর পশু প্রস্তুত হয়েছে। ঢাকা ও চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে কুষ্টিয়া জেলার কোরবানীর পশুর চাহিদা বেশী থাকায় জেলার বিভিন্ন এলাকার খামারী ও কৃষকরা বেশ কয়েক বছর ধরে কোরবানীর পশু পালন করে আসছেন। এবছরও সন্তান সমতুল্য পরমযতেœ কোরবানীর পশু প্রস্তুত করেছেন তারা। তবে খাদ্যের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় পশু পালনে খরচা বেশী পড়ায় লাভ নিয়েও শঙ্কা রয়েছে খামারীদের। তারপরও গত কয়েক বছরের লোকসানের বোঝা কমাতে শেষ মুহুর্তে কোরবানীর পশু প্রস্তত করে হাটে তুলতে ব্যস্তার শেষ নেই খামারীদের। দেশের বাইরে থেকে পশু না আসলে এবার লাভের মুখ দেখবেন এমন আসা খামারী ও ব্যবসায়ীদের।

জেলার দৌলতপুর উপজেলার দৌলতখালী গ্রামের খামারী মজিবর রহমান জানান, এবছর ছোট বড় ১৫টি গরু প্রস্তুত করা হয়েছে। গরু কিনতে ব্যাপারীরা খোঁজখবর নিচ্ছেন। গোখাদ্যের মূল্য বৃদ্ধির কারণে গরু পালনে খরচ বেশী হয়েছে। এবারও যদি লাভ না হয় তা’হলে খামার বন্ধ করা ছাড়া উপায় থাকবেনা। একই অভিব্যক্তি সাদীপুর গ্রামের ক্ষুদ্র খামারী হুমায়ুন আহমেদের। তিনি জানান, দেশের বাইরে থেকে গরু না আসলে এবছর লাভের মুখ দেখার সম্ভাবনা রয়েছে।

খামারী ও পশু পালনকারী কৃষকদের পশু পালনে সার্বিক সহায়তা ও পরামর্শ দেওয়ার পাশাপাশি সবধরণের সহায়তা দিয়ে থাকেন। তাই প্রতিবছরই এ জেলায় বৃদ্ধি পাচ্ছে খামার ও পশুর সংখ্যা। এবছরও কুষ্টিয়ার পশু স্থানীয় চাহিদা পুরণের পাশাপাশি দেশের কোরবানীর চাহিদা পুরণে সক্ষম হবে বলে জানিয়েছেন, জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. সিদ্দিকুর রহমান।

করোনার ক্ষতি পুসিয়ে নিতে এবং পার্শ্ববতী দেশ ভারত থেকে গরু না আসলে কুষ্টিয়ার খামারীদের পালনকরা গরু বা বিভিন্ন ধরণের পশু দেশের কোরবানীর চাহিদা মিটাতে সক্ষম হবে এবং আর্থিকভাবে তারা হবেন লাভবান এমনটাই মনে করে সংশ্লিষ্টরা।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...