• আপডেট টাইম : 27/06/2022 08:39 AM
  • 137 বার পঠিত
  • শরীফুল ইসলাম, কুষ্টিয়া
  • sramikawaz.com

 


ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় কুষ্টিয়ার গরুর সবসময়ই বাড়তি চাহিদা থাকে। তাই কোরবানীর ঈদকে সামনে রেখে প্রতিবছরের ন্যায় এবছরও কুষ্টিয়ার খামারীরা লালন-পালন করেছে গরুসহ বিভিন্ন ধরণের কোরবানীর পশু। তবে এবারের কোরবানীর হাটে ক্রেতাদের নজর কাড়তে পারে তুফান, টাইগার, বাহাদুর ও মানিকসহ বিভিন্ন নামে পালন করা গরু।
গত দুই বছরের করোনার ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলায় ছোট বড় প্রায় ৪ হাজার খামারী এবার লালন পালন করেছে দেশীয় জাতসহ বিভিন্ন জাতের গরু। খামারীরা এদের কারো নাম দিয়েছেন তুফান, কারো নাম টাইগার, কারো নাম বাহাদুর আবার কারো নাম মানিক। নামের সাথে পালনকরা এসব গরুর মিলও রয়েছে। দেখতে যেমন আকর্ষনীয় গায়ে গতরেও তেমন হৃষ্ট পুষ্ট আবার ওজনেও এক একটি ১৬শ’ থেকে ১৮শ’ কেজি বা ৪০ থেকে ৪৫ মন। বাড়তি লাভের আশায় এদের কাউকে ঢাকা, কাউকে চট্টগ্রাম দেশের বিভিন্ন স্থানে নেওয়া হতে পারে। তবে পার্শ্ববর্তী দেশ থেকে গরু আমদানি হওয়ার শঙ্কাও রয়েছে খামারীদের মাঝে।
কুমারখালী উপজেলার কয়া ইউনিয়নের রায়ডাঙ্গা গ্রামের খামারী সাইফুল ইসলাম এবার কোরবানীর ঈদে টাইগার ও তুফানই উপজেলার মধ্যে সবচেয়ে বড় গরু বলে দাবি করেছেন। তিনি জানান, তিন বছর আগে তার নিজ খামারেই জন্ম হয় টাইগার ও তুফানের। জন্মের পর থেকেই তাদেরকে কোনো ¶তিকর ওষুধ ছাড়াই দেশীয় খাবার খাইয়ে লালন-পালন করেছেন। টাইগার ও তুফানকে দেখতে বিভিন্ন এলাকার মানুষ প্রতিদিনই ভিড় করে। ক্রেতারাও আসছেন। সাইফুল ইসলাম তার পোষা গরু দু’টির দাম হেঁকেছেন ৩২ লাখ টাকা।
উপজেলার আরেক খামারী ¯^রণ আহমেদ অনেকটা সখের বসেই বাহাদুর নামের একটি দেশীয় গরু পালন করে এলাকাবাসীকে তাক লাগিয়েছেন। ¯^রন আহমেদ লেখাপড়ার পাশাপাশি সখ করে বাহাদুরকে লালন পালন করেছে। এবারের ঈদে বাহাদুরকে বিক্রি করতে চায়। বিশাল দেহের বাহাদুরের ওজন প্রায় ১২শ’ কেজি হবে। ¯^রণের দাবী এবছর উপজেলার দেশী জাতের কোরবানীর গরুর মধ্যে তার বাহাদুরই সেরা।
পশু পালনে প্রাণী সম্পদ বিভাগ খামারীদের বিভিন্ন ধরণের পরামর্শ ও সুযোগ সুবিধা দিয়ে থাকেন বলে কুমারখালী উপজেলায় খামারীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। কোরবানীর ঈদকে সামনে রেখে খামারীদের পালন করা পশু স্থানীয় চাহিদা পুরণের পাশাপাশি দেশের চাহিদা পুরণে সহায়ক হবে বলে জানিয়েছেন কুমারখালী উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ নুরে আলম সিদ্দিকী।
কুমারখালী উপজেলায় এবছর ৩ হাজার ৭৬৭টি খামারে ২৫ হাজার ৬৯৯টি গরু লালন পালন করেছেন খামারীরা। যার অর্ধেক স্থানীয় চাহিদা মিটাবে, বাঁকীটা দেশের চাহিদা পুরণ করবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...