• আপডেট টাইম : 05/05/2022 08:17 PM
  • 244 বার পঠিত
  • জেড এম কামরুল আনাম
  • sramikawaz.com

এক দিন পর মে দিবস, যা শ্রমিক দিবস হিসেবে আখ্যায়িত। বর্তমানে বাংলাদেশে সাত কোটির বেশি শ্রমজীবী রয়েছেন। যাদের মধ্যে পাঁচ কোটির বেশি শ্রমিক কাজ করেন অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতে। এসব শ্রমিকের অধিকাংশই অসংগঠিত। যাদের নামমাত্র মজুরি দিয়ে কাজ করানো হয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তাদের কোনো নিয়োগপত্র দেওয়া হয় না। কর্মঘণ্টা নির্ধারণে ইতিহাস সৃষ্টিকারী শ্রমিক আন্দোলনের শতাধিক বছর পার হলেও আমাদের দেশে অনেক ক্ষেত্রেই শ্রমিকের আট কর্মঘণ্টার দাবি আজও আদায় হয়নি। শ্রমিকরা এখনও বাঁচার মতো মজুরি এবং আইএলও কনভেনশন ৮৭ ও ৯৮ অনুযায়ী অবাধ ট্রেড ইউনিয়ন অধিকারসহ বিভিন্ন সামাজিক মর্যাদা ও সুরক্ষা থেকে বঞ্চিত।

শ্রমিকের নিরাপত্তার বিষয়টি এখনও উপেক্ষিত নানা ক্ষেত্রে। শ্রমিক কাজ শেষে নিরাপদে ঘরে ফিরে আসবেন, তার নিশ্চয়তাও নেই। নানা অজুহাতে বিনা নোটিশে ছাঁটাই, বেতন কেটে রাখা, হয়রানি, যৌন নিপীড়নের অভিযোগও কম নয়। বাংলাদেশের শ্রমবাজারে প্রতি বছর নতুন করে যুক্ত হচ্ছে প্রায় ২০ লাখ মানুষ। অষ্টম-পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে নানা উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। ২০৩০ সালের মধ্যে ১০০টি বিশেষায়িত অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে, যেখানে প্রায় এক কোটি লোকের কর্মসংস্থান হবে। বিশ্ব অর্থনীতিকে বদলে দেওয়া তিনটি শিল্পবিপল্গব- ১৭৮৪ সালে বাষ্পীয় ইঞ্জিন আবিস্কার, ১৮৭০ সালে বিদ্যুৎ আবিস্কার এবং ১৯৬৯ সালে ইন্টারনেট আবিস্কার জনশক্তির জন্য যে স্বস্তি এনে দিয়েছিল, ঠিক তার বিপরীত চ্যালেঞ্জ হয়ে এসেছে চতুর্থ শিল্পবিপ্লব বা ডিজিটাল প্রযুক্তি। প্রথম তিনটি শিল্পবিপ্লব শুধু মানুষের শারীরিক পরিশ্রমকে প্রতিস্থাপন করলেও একই সঙ্গে শারীরিক ও মানসিক পরিশ্রমকে প্রতিস্থাপন করবে চতুর্থ শিল্পবিপ্লব। আধুনিক ও স্মার্ট প্রযুক্তি ব্যবহার করে প্রচলিত উৎপাদন এবং শিল্পব্যবস্থাকে স্বয়ংক্রিয় করে তোলা হবে। তাই একদিকে রোবটিকস, ভার্চুয়াল রিয়েলিটি, আর্টিফিশিয়াল ইনটেলিজেন্স, ইন্টারনেট অব থিংস, থ্রিডি প্রিন্টিং, জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং, কোয়ান্টাম কম্পিউটিং ও অন্যান্য অত্যাধুনিক প্রযুক্তি মানুষকে কঠিন শ্রম থেকে মুক্তি দিলেও একটি মেশিনের বিপরীতে ছাঁটাই হতে পারেন প্রায় ১০ জন কর্মী। দক্ষতা ঘাটতির কারণে বিশ্বের প্রায় ৮০ কোটি মানুষ চাকরি হারাতে পারেন বলে মনে করছে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম। এ প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মেলাতে না পেরে বেকার হতে পারেন দেশ-বিদেশে চাকরিরত প্রায় ৫৭ লাখ অদক্ষ বাংলাদেশি শ্রমিক। নিয়মিত শ্রমিকের পরিবর্তে অনিয়মিত শ্রমিক নিয়োগের দিকে ঝুঁকবে প্রতিষ্ঠান এবং হ্রাস পাবে শ্রমিকের বেতন-ভাতাসহ অন্যান্য সুবিধাও।


টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার (এসডিজি) ১৭টি লক্ষ্যের মধ্যে ৮ নম্বরে সুনির্দিষ্টভাবে সবার জন্য শোভন কাজ নিশ্চিত করার কথা বলা হয়েছে। ২০৩০ সালের মধ্যে শোভন কাজের মাধ্যমে শ্রম বৈষম্য কমিয়ে আনতে হবে এবং বিশাল শ্রম শক্তিকে নতুন প্রযুক্তির সঙ্গে সম্পৃক্ত করে দক্ষতার উন্নয়ন ঘটাতে হবে। এরই মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চতুর্থ শিল্পবিপল্গবের জন্য অত্যাধুনিক প্রযুক্তি উদ্ভাবনের মাধ্যমে শিল্পের বিকাশ, প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কর্মিবাহিনী সৃষ্টি এবং পরিবেশ সংরক্ষণ- এই তিনটি বিষয়ে গুরুত্ব দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। তবে চতুর্থ শিল্পবিপল্গবের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে যাওয়ার প্রতিযোগিতায় হারিয়ে যেতে পারে কর্মক্ষেত্রে শ্রমিকের পেশাগত স্বাস্থ্যসুরক্ষা ও নিরাপত্তার বিষয়টি। তাই শ্রমিকের কর্মঘণ্টার দাবির মুখে উঠে আসা মে দিবস এখন আর শুধু কর্মঘণ্টায় সীমাবদ্ধ নেই। জীবনধারণের উপযোগী মজুরি, পেশাগত স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা, সংগঠনের অধিকারের পাশাপাশি প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলার দক্ষতা অর্জনের বিষয়টিও আলোচনায় আসা জরুরি। যে শ্রমজীবী মানুষের শ্রম-ঘামের বিনিময়ে বাংলাদেশ আজ বিশ্ব অর্থনীতিতে ভূমিকা রাখছে, তাদের অধিকারবঞ্চিত রেখে জাতি হিসেবে এগিয়ে যাওয়ার এবং সামগ্রিক উন্নয়নের কোনো সুযোগ নেই। বর্তমানে বিশ্বব্যাপী শোভন কাজ আজ শ্রমজীবী মানুষের সর্বজনীন দাবিতে পরিণত হয়েছে। শ্রমজীবী মানুষের কর্মের গুণ ও পরিমাণ বিবেচনায় নূ্যনতমভাবে বাঁচার মতো বা জীবনধারণের জন্য যুক্তিসংগত মজুরির বিনিময়ে কর্মসংস্থান নিশ্চিত হোক।

জেড এম কামরুল আনাম
সভাপতি
বাংলাদেশ বস্ত্র ও পোশাক শিল্প শ্রমিক লীগ

* লেখাটি মে দিবস উপলক্ষে লেখা। 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...