• আপডেট টাইম : 15/01/2024 05:15 PM
  • 87 বার পঠিত
  • শরীফুল ইসলাম,কুষ্টিয়া
  • sramikawaz.com

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে হাইব্রীড ও উচ্চ ফলনশীল জাতের তুলার চাষ সম্প্রসারিত হওয়ায় তুলার ফলনও বৃদ্ধি পেয়েছে। তুলা লাভজনক অর্থকরী ফসল হওয়ায় তুলার বাজারমূল্যও বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে প্রতিবছরই তুলা চাষে চাষীদের আগ্রহ বাড়ছে। এবছর বৈরী আবহাওয়ার কারণে তুলার উৎপাদন খরচ বেশী হওয়ায় লাভ নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন তুলা চাষীরা। তবে তুলা চাষ সম্প্রসারণের লক্ষ্যে চাষীদের প্রশি¶ণের পাশাপাশি উন্নত জাতের বীজ সরবরাহ ও ন্যায্যমুল্য নিশ্চিত করতে কাজ করছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তারা।
তুলা উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানিয়েছে, জেলার সীমান্তবর্তী দৌলতপুর উপজেলায় ২ হাজার ১০০ হেক্টর জমিতে হাইব্রীড ও উচ্চ ফলনশীল জাতের তুলার চাষ হয়েছে। তবে চলতি মৌসুমে তুলা চাষে প্রতিকুল আবহাওয়ার কারনে তুলা গাছ থেকে ফুল ও ফল ঝরে যাওয়ায় আশানারুপ সুবিধা করতে পারছেন না বলে জানিয়েছেন চাষীরা। উপজেলার প্রাগপুর ইউনিয়নের প্রাগপুর গ্রামের তুলাচাষী খোকন আলী জানান, গত বছরের তুলনায় এ বছরে চাষীরা লোকশানের শঙ্কায় রয়েছেন। এর কারন বৈরী আবহাওয়া ও বাড়তি খরচ।
উপজেলার আদাবড়িয়া ইউনিয়নের ধর্মদহ গ্রামের তুলাচাষী রেজাউল ইসলাম জনান, প্রতিবিঘা জমিতে তুলা চাষে খরচ হচ্ছে ১০ হাজার টাক থেকে ১২ হাজার টাকা। প্রতিবিঘা জমিতে তুলার ফলন হবে ৮ মন থেকে ১০ মন। এবছর তুলার মিল মালিকরা এ-গ্রেডের প্রতিমন তুলা ৩ হাজার ৮০০ টাকা এবং বি-গ্রেডের তুলা ৩ হাজার ৪০০ টাকা দরে ক্রয় করছেন। ৮ মাস থেকে ৯ মাসের ফসল হিসেবে সময় অনুপাতে খুব একটা লাভ হচ্ছেনা বলে চাষীদের দাবী। আগামীতে লোকশান কমাতে প্রতিমন তুলা ৪ হাজার ২০০ টাকা থেকে ৪ হাজার ৫০০ টাকা নির্ধারন করার দাবী জানিয়েছেন চাষীরা।
আল মদিনা তুলা কারখানার মালিক গোলাম সাব্বির জানান, আন্তর্জাতিক বাজার সমš^য় করে তুলার ময়েশ্চার ১-১৪ হলে এ-গ্রেড এবং ১৫-১৮ ময়েশ্চার হলে বি-গ্রেড করে দাম নির্ধারন করা হয়েছে। এবছরে তুলা ক্রয় করা হচ্ছে এ-গ্রেড প্রতিমন ৩ হাজার ৮০০ টাকা এবং বি-গ্রেড ৩ হাজার ৪০০ টাকা দরে।
কুষ্টিয়া তুলা উন্নয়ন প্রধান কর্মকর্তা কৃষিবিদ শেখ আল মামুন বলেন, গত মৌসুমের তুলনায় এবছর তুলার চাষ বেড়েছে। আগামী মৌসুমে চাষীদের প্রণোদনার ব্যবস্থা করা হবে। তিনি বলেন, প্রতিনিয়ত চাষিীদের পরামর্শ ও প্রশি¶ণ দেওয়া হচ্ছে। এবছর দৌলতপুর উপজেলায় ২ হাজার ১০০ হেক্টর জমিতে তুলার চাষ হয়েছে। বৈরী আবহাওয়ার কারনে চাষীরা কিছুটা ¶তিগ্রস্থ হয়েছেন। চাষীদের প্রশি¶নের পাশাপাশি বীজ নির্ধারণ, বীজতলা রোগমুক্ত রাখতে চাষীদের সঙ্গে সার্ব¶নিক যোগাযোগ রাখা হয় বলেও জানান কৃষিবিদ শেখ আল মামুন।
হাইব্রীড জাতের উচ্চ ফলনশীল তুলা চাষে চাষীদের আগ্রহী করতে তুলার ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করতে হবে। ফলে বাড়বে তুলা চাষ ও চাষীর সংখ্যা। আর এমনটাই মনে করেন তুলা চাষে জড়িতরা।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...