• আপডেট টাইম : 12/02/2022 11:53 PM
  • 547 বার পঠিত
  • এস.এইচ সোহাগঃ
  • sramikawaz.com

গাজীপুর মহাগরীর কোনাবাড়ী এম.এ কুদ্দুস উচ্চ বিদ্যালয়ের খেলার মাঠ দীর্ঘদিন ধরে অ‌বৈধ বাসস্ট‌্যান্ড ও কন্সট্রাশন ঠিকাদা‌রের দখল ক‌রে রে‌খে‌ছে। এতে শিক্ষার্থীরা মাঠে খেলাধুলা কর‌তে পার‌ছে না। খেলাধুলার অনুপযোগীসহ একই সঙ্গে ব্যাহত হচ্ছে বিদ্যালয়ের পাঠদান কার্যক্রম।

শিক্ষক-শিক্ষার্থী সূত্রে জানা যায়, কোনাবাড়ী এম. এ কুদ্দুস উচ্চ বিদ্যালয় ও ক‌লেজ ১৯৮৮ সা‌লে প্রায় ৬ বিঘা জায়গার উপর স্থাপিত হয়। বর্তমা‌নে এলাকায় এই স্কুল মাঠ ব‌্যতিত খেলাধুলার জন্য অন‌্য কোনো জায়গা না থাকায় শিক্ষার্থীরা ৩০ টাকা অ‌টো ভাড়া দি‌য়ে অন‌্য জায়গা‌তে খেলাধুলা কর‌তে যে‌তে হয়। জানাযায়, মাঠ দখল করার পূর্বে এলাকার ছাত্র ও যুবকরা এই বিদ্যালয়ের মাঠে খেলাধুলা কর‌তেন। ক‌য়েক মাস যাবত স্কুলের খেলার মাঠ অ‌বৈধ বাসস্ট্যান্ড ও কনস্ট্রাকশন ঠিকাদারদের দখলের পাশাপাশি সিটি কর্পোরেশন এলাকার সড়কের ভাঙ্গা ইট, রাবিশ, খোয়া যুক্ত পঁচা মাটির স্তুপ পুরো মাঠে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রাখার কারণে খেলাধুলার জন্য মাঠ‌টি পুরোপুরিভাবে অনুপোযোগী হয়ে রয়েছে।
শ‌নিবার ১২ ফেব্রুয়ারি সরেজমিনে গি‌য়ে জানাযায়, কয়েক মাস যাবত এই অবৈধ দখলদারদের কারণে মাঠে খেলাধুলা করতে পারছেন না। শিক্ষার্থীরা বলেন, খেলতে গিয়ে য‌দি বল প‌ড়ে বাস বা প্রাইভেট কারের কাঁচ ভেঙ্গে যায় সেক্ষেত্রে জরিমানা দিবে কে? কারণ দখলদারা এলাকার ভয়ঙ্কর প্রভাবশালী হওয়ায়, ভ‌য়ে কেউ মাঠে নামছেন না। অন‌্যদি‌কে বেশিরভাগ শিক্ষার্থী দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আগত।

প‌রিচয় গোপন রাখার শর্তে কয়েকজন শিক্ষার্থী বলেছেন, ইতিপূর্বে আমরা শিক্ষার্থীরা প্রধান শিক্ষকদের নিকট লিখিত দরখাস্ত করেছি মাঠ খালি করার জন্য, কিন্তু শিক্ষকেরা বলছেন আলোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন। কিন্তু কোনো ব‌্যবস্থা হয়‌নি এবং আমরা এও বলেছি প্রয়োজনে আমরা শিক্ষার্থীরা স্বেচ্ছাশ্রম ও টাকা দিয়ে মাঠ সমান ও খেলার উপযোগী করে নেব। তাতেও কেউ কোন সায় দেয়নি।

অনুসন্ধানে জানাযায় স্কুল মাঠ কেন্দ্রিক গড়ে ওঠা যমুনা মাইক্রোবাস স্ট্যান্ডে তালিকাবদ্ধ মোট ৪৮ টি মাইক্রোবাস রয়েছে এবং জেনিন প‌রিবহন নামে ৮/১০ টি বাস রয়েছে যেগুলো কোনাবাড়ীর কুদ্দুস নগর থেকে সিরাজগঞ্জের কাজীপুরের উদ্দেশ্যে নিয়‌মিত যাতায়াত করে। যমুনা মাই‌ক্রোবাস মা‌লিক সমি‌তির সদস‌্য খোক‌ন ব‌লেন, মস‌জিদ নির্মাণ কা‌জের জন‌্য ভাড়া বাবৎ কিছু টাকা দেয়া‌ হয়। কনস্ট্রাকশন ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের কর্মরত ক‌য়েক জনের সা‌থে কথা বলে জানার চেষ্টা করা হ‌লেও কেউ নি‌জের নাম বা প্রতিষ্ঠানের নাম ঠিকানা বলতে রাজি হননি।

এ বিষয়ে স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ জাহাঙ্গীর আলম (ভারপ্রাপ্ত) নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, তারা সব সময় এখানে গাড়ি রাখেনা আমরা বললে তাড়াতাড়ি সরিয়ে দিবেন। সরাতে বলেছিলেন কি না? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন না ওই ভাবে কখনো বলা হয়নি। তি‌নি আ‌রো ব‌লেন, স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা ও জমিদাতা এম এ কুদ্দুস সাহেবের নাতি আরিফ মাঝেমধ্যে কিছু গাড়ি রাখেন।

স্কুলের সিনিয়র শিক্ষক ও আওয়ামী লীগের নেতা এডভোকেট আব্দুর রহমান মাস্টার বলেন, এলাকার রাস্তা প্রশস্ত কর‌ণের কাজ চলা পর্যন্ত ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান এখা‌নে থাক‌বে। তবে এলাকার ছেলেরা মা‌ঠে দু-চারটি গাড়ি রাখে, অলরেডি তাদেরকে বলে দিয়েছি সরানোর জন্য।

এ বিষয়ে সিটি কর্পোরেশনের ৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর নাসির উদ্দিন মোল্লার ব‌লেন, স্কুল কর্তৃপক্ষ কোন অ‌ভি‌যোগ না কর‌লে আমার কিছু করণীয় নাই। স্কুল কর্তৃপক্ষ না চাই‌লে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান অবশ‌্যই বিকল্প ব‌্যবস্থা কর‌তেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...