• আপডেট টাইম : 09/09/2021 10:39 PM
  • 533 বার পঠিত
  • রোজিনা আক্তার সুমি
  • sramikawaz.com

যুগ যুগ ধরে দেশে দেশে নারীর প্রতি বৈষম্য মূলক আচরণ করা হয়েছে। উন্নয়ন ও সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে অনেক দেশ পরিবর্তনও এনেছে, কিন্তু সেই তুলনায় বাংলাদেশ এখনো অনেক পিছিয়ে। যদিও কাগজ কলমে স্বীকৃতি আছে। বাস্তবে তা অধরাই রয়ে গেছে।


আজ দেশ মধ্য আয়ের রূপান্তরের পথে। উন্নয়ন প্রচেষ্টার অব্যাহত স্বীকৃতিও মিলছে। কিন্তু নারীর প্রতি বৈষম্য, হয়রানী ও নির্যাতন কমে নাই। গ্রাম থেকে উঠে আসা নারী শ্রমিকের হাতে সেলাই করা পোশাক সারা বিশ্বে রপ্তানি হচ্ছে। মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে ‘মেইড ইন বাংলাদেশ’ ব্র্যান্ড। কিন্তু যে নারী এই অর্জনের পেছনের কারিগর সেই নারী জীবন যাপনের মান মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারেনি। পুরুষতান্ত্রিক সমাজ বরাবরই নারীকে দাবিয়ে রাখার চেষ্টা করেছে, এখনো রাখছে।


কৃষি কাজ থেকে শুরু করে ঘরে বাইরে, পাহাড় ও সমতলে কোথায় নেই নারীর অবদান! গৃহশ্রমিক, নির্মাণশ্রমিক, চা শ্রমিক, চিংড়ি উৎপাদন শ্রমিক, চাঁতাল শ্রমিক, গার্মেন্টস শ্রমিক, রেষ্টুরেন্ট শ্রমিক ও বিভিন্ন শপিংমল, বিউটি পার্লার উদ্যোক্তা সহ পুলিশ, সেনাবাহিনী, আনসার বাহিনী, বিমান বাহিনী, ডাক্তার, নার্স, পাইলট সহ কোথায় নেই নারী! আজ নারীরা পাহাড় থেকে সমতল সর্বত্র সমান ভাবে এগিয়ে যাচ্ছে নারী।


সেই সঙ্গে যুগের সাথে তাল মিলিয়ে ডিজিটালের রূপে পরিবর্তনেও আজ নারী। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে নারীর প্রতি হয়রানি, নির্যাতন, সহিংসতা দিন দিন বেড়েই চলছে। আইনে অধিকার দিলেও বাস্তবে তা আলাদা। নিজের রোজগারের টাকা নিজের প্রয়োজনেও ব্যয় করতে পারেনা অনুমতি ছাড়া। আমি অনেক দেখেছি প্রতিদিনই যৌতুকের জন্য জীবন দিতে হচ্ছে, সংসার ছাড়তে হয়েছে কিন্তূ দেনমোহরের জন্য এমন হতে দেখিনি।


গার্মেন্টস কারখানায় নারী শ্রমিকদের হয়রানির শেষ নাই। অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ সহ গায়ে হাত তোলা হয়, পরিবহন সেক্টরে যৌন হয়রানি শিকার হতে হয়। অফিস টাইমে মালিকরা নিজ¯^ পরিবহণের ব্যবস্থা না করায় গর্ভবতী নারী সহ সকল নারীরা প্রতিদিন যৌন হয়রানি সহ বিভিন্ন রকম হ্যারেজমেন্টের শিকার হচ্ছেন। এগুলো দেখার কেউ নাই বললেই চলে। যদি ২/১ জন প্রতিবাদ করে তাহলেই শুরু হয় বংশ পরিচয় থেকে নারীর চরিত্র নিয়ে আঙ্গুল তোলা। সব সময় নারীর চরিত্র নিয়ে কথা বলা যেন একটি সহজ কাজে পরিনত হয়েছে, এটা যেন একটি অভ্যাসে পরিনত হয়ে গেছে।


প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে বিরোধী দলীয় নেত্রী সবাই নারী। তবুও নারীর ন্যায় বিচার পায় না। আমরা দাবি জানাচ্ছি আইএলও-এর ১৮৯ কনভেনশন বাস্তবায়ন করে নারী শ্রমিকদের জন্য একটি শোভন কর্ম পরিবেশ তৈরি করে দেয়া হোক। প্রতিটি কারখানায় এন্টি-হ্যারেজমেন্ট কমিটি আইন বা নিয়ম মেনে কমিটি গঠন ও পরিচালিত হোক। প্রতিতিটি কারখানায় যদি ট্রেড ইউনিয়ন থাকতো এবং নেতারা যদি সিবিএ-এর মাধ্যমে দাবিনামা দিতে পারতো তাহলে কিছুটা মুক্তির পথ দেখা যেতো।


এই দেশ আমাদের, দেশের মানুষ আমাদের তাই সবার কথা চিন্তা করে সবাই সবার জায়গা থেকে যদি সঠিক ধাবে দায়িত্ব পালন করে এবং আইন মানে তাহলেই কিছুটা হলেও নারীর প্রতি বৈষম্য দূর হবে। আমি মনে করি শি¶ার হার বাড়লেও সু-শি¶ার হার বাড়েনি। তাই আজও আমাদের সেই ১৮৫৭ সালের মতো অধিকার চাই বলে চিৎকার দিতে হয়। সবাই যদি যে যার জায়গা থেকে দৃষ্টিভঙ্গি বদলাতো তাহলে অবশ্যই সমাজ পরির্বতন হতো। সরকার বা কারো একার পক্ষে পরিবর্তন সম্ভব নয়। পরিবর্তনের জন্য সকলের সম্মিলিত ও ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টা দরকার। আসুন আমরা ঐকবদ্ধ হই, পরিবর্তন করি।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...