• আপডেট টাইম : 08/04/2022 08:10 PM
  • 465 বার পঠিত
  • শেখ হাসান আলী
  • sramikawaz.com


ঈদ এলেই শ্রমিকদের বেতন বোনাস নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়। শ্রমিকদের মধ্যে হতাশা তৈরি হয়। পরিবার পরিজন নিয়ে শ্রমিক বিপদে পড়ে। নিরপায় হয়ে যায়। এ অবস্থায় বেতন বোনাসের দাবিতে পথে বের হন শ্রমিকরা। সড়কে অবরোধ তৈরি করে। এ অবস্থা ঈদের আগের দিনেও গড়ায়। ফলে বাড়িমুখি মানুষ ভোগান্তিতে পড়ে। একদিকে বেতন বোনাসের দাবিতে নিরুপায় শ্রমিকদের সড়ক অবরোধ, অন্যদিকে ঈদে ফেরা মানুষের ভোগান্তি। প্রতিবছর এমন ঘটনা ঘটছে। এ বছর ঈদে যাতে এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি না হয়, সে জন্য ২০ রোজার মধ্যে ঈদ বোনাস ও বেতন পরিশোধ করার দাবি জানিয়েছে শ্রমিক নেতৃবৃন্দ। শ্রমিক আওয়াজ-এর সাথে আলাপ কালে তারা এ দাবি জানান।


এ বিষয়ে বাংলাদেশ পোশাক শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন ফেডারেশনের সভাপতি মো. তুহিন চৌধুরি শ্রমিক আওয়াজকে বলেন, বর্তমানে মালিকদের ব্যবসা-বাণিজ্য অনেক ভালো, শ্রমিকদের ঈদের বোনাস এটা বড় কোনো দাবি না। বর্তমানে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি। যার সাথে শ্রমিকদের বর্তমান বেতনের কোন সামঞ্জস্য নেই। সরকার মালিকদের বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা দিয়েছে, প্রণোদনা দিয়েছে এবং এখনো দিয়ে যাচ্ছে। করোনার ঝুঁকির মধ্যেও শ্রমিকরা কাজ করে করছে। কিন্তু শ্রমিক তেমন কিছু পায়নি। আমাদের একটা কথা ভুলে গেলে চলবে না, গত দুইটা ঈদ শ্রমিকরা অনেক কষ্টে করে করেছে। বর্তমান বাজারদর ঊর্ধ্বগতি, জীবন যাপনের ব্যয় বেড়ে গেছে। প্রাপ্ত মজুরি দিয়ে শ্রমিকের চলছে না। শ্রমিকরা খুবই কষ্টে আছে। টিসিবির মাধ্যমে কম দামে খাদ্য পণ্য দেওয়া হচ্ছে। শ্রমিকরা লাইনে দাঁড়িয়ে নিতে সময় পাচ্ছে না। কারণ কারখানাগুলোতে এখন প্রচুর কাজের চাপ। অনেক প্রোডাকশন দিতে হয়। যার কারণে এই সুবিধা থেকে শ্রমিক বঞ্চিত হচ্ছে। শ্রমিকরা উৎপাদন করেও বঞ্চিত হচ্ছে মালিককে বেশি উৎপাদন করে দেওয়ার জন্য।


তুহিন বলেন, ২০ রোজার মধ্যে বেতন-বোনাস পরিশোধ করে শ্রমিককে তার পরিবার-পরিজন নিয়ে ঈদ করার সুযোগ করে দেওয়ার জন্য সরকারও মালিক- উভয়ে কাছে দাবি জানাচ্ছি।


শ্রমিকরা করোনার মধ্যে যেমন জীবনের ঝুকি নিয়ে কাজ করেছে। আবার করোনার ঝুঁকি কমে আসার পর বিদেশি ক্রেতারা বেশি বেশি কার্যাদেশ দিচ্ছে। এর ফলে মালিকরা কাজ বাড়িয়ে দিয়েছে। শ্রমিকরা বাড়তি কাজ করছে। উৎপাদন বেড়েছে, বেড়েছে রপ্তানি আয়। গত দুই বছরে শ্রমিকরা ভালভাবে ঈদ করতে পারেনি। ঈদে বাড়ি গিয়েও পায়ে হেটে বা ঈদের ছুটি না কাটিয়ে ঢাকায় ফিরতে হয়েছে।


এ বিষয়ে গার্মেন্টস শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের কেন্দ্রীয় সহ-সাধারণ সম্পাদক ও গাজীপুর জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক জালাল হাওলাদার শ্রমিক আওয়াজকে বলেন, ঈদ সামনে করে ২০ রোজারে মধ্যে এক মাসের সম পরিমান ঈদ বোনাস ও এপ্রিল মাসের বেতন দিতে হবে। যাতে শ্রমিকরা ঈদে বাড়ি যাওয়ার আগে ঈদের আগে কেনা কাটা করতে পারে। করোনা মহামারীর মধ্যে শ্রমিকরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করেছে। করোনার পরে বেশি বেশি কার্যাদেশ থাকায় শ্রমিকরা ১২ থেকে ১৮ ঘন্টা কাজ করছেন। শ্রমিকরা মহামারী ও বেশি কাজ থাকার সময়ে নিজের জীবনের বাজি রেখে কাজ করেছে, বেশি বেশি মুনাফা করেছে। তাই বেতন বোনাস দেওয়ার ক্ষেত্রে যেন কোন রকম তাল-বাহনা না করে। সেটা হলে তাহলে শ্রমিকরা বসে থাকবে না।


করোনা মহামারী মোকাবেলা করার জন্য তৈরি পোশাক শিল্প সহ সকল উদ্যোক্তারা প্রণোদনা পেয়েছে। শ্রমিকরা করোনার মধ্যেও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করেছে। কিন্তু শ্রমিকরা কতটা তার প্রনোদনা পেয়েছে- এ বিষয়ে টিইউসির সংগঠক ও চট্ট্রগ্রাম অঞ্চলে সংগঠন রত ফজলুল করিম মিন্টু শ্রমিক আওয়াজকে বলেন, সরকার মালিকদেরকে প্রণোদনা দিয়েছে। শ্রমিকরা ঝুঁকি নিয়ে কাজ করলেও তার বিনিময়ে কোন ঝুঁকি ভাতা পায়নি।


ঈদের ১০ দিন আগে বেতন-বোনাস পরিশোধ করতে হবে এবং অবশ্যই বেসিকের সমপরিমাণ বোনাস দিতে হবে। যেহেতু সরকারি কর্মচারীদের বেসিকের সমপরিমাণ বোনাস দিচ্ছে। এমনকি পহেলা বৈশাখের বাতাও প্রদান করছে। তাহলে গার্মেন্টস শ্রমিকরা কি দোষ করেছে? তারা কেন বেসিকের সমপরিমাণ বোনাস পাবেন না? আমি মনে করি একটি রাষ্ট্র দ্বৈত নীতি চলতে পারে না।


করোনা কাটিয়ে না উঠতে রাশিয়া-ইউক্রেইন যুদ্ধ বিশ^ জুড়ে নিত্যপণ্যের বাজার পরিস্থিতি তালমাটাল হয়ে গেছে। এর প্রভাব বাংলাদেশেও পড়েছে। আগে থেকে পণের দাম বেড়েছে। যুদ্ধ পরিস্থিতি আরও নাজুক করে তুলেছে। এ অবস্থায় প্রাপ্ত মজুরিতে শ্রমিকদের চলতে কষ্ট হচ্ছে। এরই মধ্যে এসেছে ঈদ। এ বিষয়ে বাংলাদেশ বস্ত্র ও পোশাক শিল্প শ্রমিক লীগ সাভার আশুলিয়া আঞ্চলিক কমিটি সভাপতি মোঃ শামীম হাসান বলেন, শ্রমিক আওয়াজকে বলেন, প্রত্যেকটা ঈদেই শ্রমিকদেরকে এরকম সমস্যায় পড়তে হয়। তবে সব কারখানায় এরকম দুর্ঘটনা ঘটে না। কিছু কিছু কারখানার মধ্যে এমন অবস্থা দেখা যায়, যারা সাব-কন্ট্রাক্টে অন্য কারখানা থেকে এনে কাজ করে। এরকম কারখানাতেই শ্রমিকদের বেতন বোনাসের জন্য আন্দোলন করতে হয়।


তবে আমরা চাচ্ছি প্রত্যেকটি শ্রমিক যেন বেতন ও বোনাস ২০ রোজার আগেই পেতে পারে। এ ব্যবস্থা যেন সরকার ও মালিক উভয় পক্ষ মিলে করে থাকে। সরকারের তদারকির মাধ্যমে সঠিক সময়ে বেতন-বোনাস পায়। শ্রমিক তার পরিবারের সাথে যেন আনন্দের সাথে ঈদ উদযাপন করতে পারে। ##

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...