• আপডেট টাইম : 29/01/2022 10:25 AM
  • 664 বার পঠিত
  • শেখ হাসান আলী
  • sramikawaz.com

গার্মেন্টস শিল্পের প্রসার হচ্ছে। কারখানাগুলোর কার্যপরিধি বৃদ্ধি পাচ্ছে। বর্তমানে বিশ্বের যে কয়টা গ্রীণ ফ্যাক্টরি তার অন্যতম ৮ থেকে ১০টি বাংলাদেশে। এসব গ্রিন ফ্যাক্টরিগুলোর সংখ্যা ও কাজের মান উনয়ন বিশ্ববাজারে বাংলাদেশের তৈরি পোশাকের মূল্যবৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখছে। বিশ্ববাজারে বাংলাদেশ গার্মেন্টশিল্প এখন দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। গার্মেন্ট কারখানাগুলোর প্রযুক্তির পরিবর্তন হচ্ছে, ছোট ছোট কারখানাগুলো এখন অনেক বড় পরিসরে হাজার হাজার শ্রমিক নিয়ে মালিকরা কারখানা বৃদ্ধি করেছে; উৎপাদন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই গার্মেন্টস শিল্পের সাথে যুক্ত প্রায় ৪০ লাখ শ্রমিক রাতদিন কাজ করে যাচ্ছেন।


বাংলাদেশ গার্মেন্টস শ্রমিকদের বেশিরভাগই নারী শ্রমিক। মোট কর্মীর প্রায় ৭৪ শতাংশ নারী। বাংলাদেশে যারা উদ্যোক্তা তাদেরকে রাষ্ট্রীয়ভাবে বিভিন্নভাবে সাহায্য ও সহযোগিতা করা হয় সবসময় দেশের উন্নয়নের স্বার্থে। একটা শিল্পকে একটা দেশের সম্পদ হিসেবে রাষ্ট্র যেভাবে প্রটোকল দিয়ে রক্ষা করে, ঠিক তেমনি ভাবে একটা রাষ্ট্রের শ্রমিকদেরকে তার ন্যায্য মজুরি বেঁচে থাকার অধিকার সঠিক আইনের প্রয়োগ এবং বাক-স্বাধীনতা রক্ষা করা ও রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ কাজ। বাংলাদেশের উন্নয়ন ধারা যেভাবে অব্যাহত আছে এবং মানুষের বেঁচে থাকার জন্য যে ব্যয় হচ্ছে প্রতিনিয়ত তার সাথে সামঞ্জস্য রেখে গার্মেন্ট শ্রমিকরা তাল মিলিয়ে চলতে পারছে না। জীবন ধারণের জন্য যে মজুরি দরকার তা শ্রমিকরা পাচ্ছেন না।


মজুরি বোর্ড গঠনের সময় প্রতিবারই সরকারের পছন্দ মত লোক মজুরি বোর্ডে শ্রমিক প্রতিনিধি নিয়োগ করে। শ্রমিকরা মনে করে, শ্রমিক প্রতিনিধি নেওয়ার ক্ষেত্রে শ্রমিকদেরও পছন্দের বিষয়টিকে গুরুত্ব দেওয়া প্রয়োজন। তা না হলে শ্রমিকদেরকে হতাশাগ্রস্ত করে। সমসাময়িক বাজার ব্যবস্থা ও জীবন-মানের উপর সমীক্ষা করে সর্বনিম্ন মজুরি নির্ধারণ করা প্রয়োজন। বর্তমানে গার্মেন্ট শ্রমিকরা মজুরি পাচ্ছে তা দিয়ে কোনরকম সংসার চলে। আর এভাবে যদি একটা মানুষ পরিশ্রম করে ঠিক মতো খাবার খেতে না পারে তাহলে যত দিন যাবে আর দক্ষ শ্রমিক গুলো শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে ও কর্মহীন হয়ে পড়বে। গার্মেন্ট শিল্পকে টিকিয়ে রাখতে হলে এই শিল্পের এ সব বিষয় গুরুত্বসহকারে শ্রম মন্ত্রণালয় অথবা গার্মেন্টস শিল্পের জন্য আলাদা কোন মন্ত্রনালয় করে শ্রমিকদের জন্য পরিকল্পনা নেওয়া উচিত। একজন শ্রমিক যদি অসুস্থ হয়, বাংলাদেশের বর্তমান পেক্ষাপাটে যে শ্রমিক ৮০০০ টাকা মজুরি পায় সেই অসুস্থ শ্রমিকটি ঠিকমতো চিকিৎসা করতে পারেনা। ঠিকমত ভালো খাবার খেতে পারে না, গার্মেন্টস শিল্পের বেশিরভাগ শ্রমিক এই তরুণ যাদের বয়স ১৮ থেকে ৩৫ এর ভেতরে।


সরকার ১০০ ইকোনমিক জোন ঘোষণা করেছে। দিন যাচ্ছে আর গার্মেন্টশিল্পের কারখানা বৃদ্ধি পাচ্ছে। আরো বৃদ্ধি পাবে, পরিকল্পনা করে শ্রমিকদের সকল সুযোগ-সুবিধা সুবিধা ঠিক করে এইসব ইকোনমিক জোনগুলোকে গড়ে তোলা হোক।


আমি মনে করি এই শিল্পকে সঠিকভাবে পরিচালনা করলে অবশ্যই বাংলাদেশের অর্থনীতিতে অন্যতম অবদান রাখবে যা এখনো অব্যাহত আছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...