• আপডেট টাইম : 17/01/2024 12:37 PM
  • 38 বার পঠিত
  • আওয়াজ ডেস্ক
  • sramikawaz.com

টাঙ্গাইল মধুপুরে কৃষিতে দিনমজুরের কাজ করেন গারো কোচ নারীরা। মাতৃতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থায় গারো নারীরাই সংসারের প্রধান। সংসারের কাজও তাদেরই করতে হয়। কিন্তু গারো বলে শ্রমে মজুরি বৈষম্যের শিকার তারা।


সংবাদ মাধ্যমে ‘মজুরি বঞ্চিত গারো নারী শ্রমিক’ শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশের পর তা জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের দৃষ্টি আকৃষ্ট করে।

পরে এ ব্যাপারে তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থাগ্রহণ পূর্বক মানবাধিকার কমিশনকে জানাতে নির্দেশ দিয়েছেন চেয়ারম্যান ড. কামাল উদ্দিন আহমেদ।

নিজ স্বাক্ষরিত এক আদেশে তিনি বলেন, পত্রিকার প্রতিবেদন পর্যালোচনায় জানা যায়, মধুপুর গড় এলাকার চাপাইদ, সাইনামারী, নয়নপুর, কোনাবাড়ী, ধরাটি, মমিনপুর, দোখলা, পীরগাছা, বেদুরিয়া, কাকড়াগুনি, জালাবাদা, জয়নাগাছা, গায়রা, জাঙ্গালিয়া, বেরিবাইদ, মাগন্তিনগর, গেৎচুয়া, টেলকিসহ প্রায় ৫০টি গ্রামে গারো কোচ নারীরা কৃষিকাজে দিনমজুরের কাজ করে থাকেন। মাতৃতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থায় গারো নারীরাই সংসারের প্রধান বলে সংসারের প্রধান কাজগুলো তারাই করে থাকেন। ঘরে-বাইরের সব কাজে তাদের পদচারণা। কৃষিকাজে ব্যাপক শ্রম-ঘাম দিয়ে থাকেন তারা। সমানতালে পুরুষের সঙ্গে কাজ করেন। ধান কাটা, চারা রোপণ, জমি নিড়ানি, ফসল কাটা, কলাবাগানের পরিচর্যা, হলুদ-আদা উত্তোলন, আনারস বাগানে কাজসহ গৃহস্থালির নানা কাজে তাদের উপস্থিতি।


জীবন-জীবিকার জন্য কাকডাকা ভোর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত হাড়ভাঙা শ্রম দিয়ে এলাকার কৃষিকে তারা অনন্য করে তুললেও তারা রয়েছেন কম মজুরি পাওয়ার কষ্টে। কৃষি ও কৃষকের ভাগ্য বদলালেও পরিবর্তন হচ্ছে না তাদের ভাগ্য। এছাড়া বৈষম্যের কারণে তারা সামাজিক মর্যাদাও কম পাচ্ছেন।

প্রতিবেদনে আরো উল্লেখ করা হয়, মজুরি বৈষম্যের ব্যাপারে ভুক্তভোগী নির্মলা জানান, নারী বলে তাদের বেতন কম। কাজ সমান করলেও বেতন সমান দেওয়া হয় না। স্বামী, দুই ছেলে ও মেয়ে নিয়ে লোপিয়া ম্রংয়ের (৩৫) সংসার। তিনি মজুরির ভিত্তিতে মাঠে দিনমজুরের কাজ করেন। তার মজুরি দৈনিক ৩০০ টাকা। স্বামীর মজুরি ৪০০-৫০০ টাকা। নারী হওয়ার কারণে মজুরি বৈষম্য তিনি মেনে নিয়েছেন। ক্ষেতের মালিকরাও নারী হওয়ার কারণে মজুরি কমের কথা স্বীকার করেছেন।

পীরগাছা কোচপল্লির সুমিত্রা রানী কোচ (৪৮) ধানের জমিতে নিড়ানির কাজের ফাঁকে বলেন, অন্যের কাজ করেন। স্বামী-স্ত্রী দুজনে মিলে কাজ করেও ঊর্ধ্বমূল্যের বাজারে তাদের হিমশিম খেতে হয়।

রূপালী রানী (৪০) জানান, ছেলেমেয়েদের যাতে এ কাজ না করতে হয় সেজন্য পড়াশোনায় দিয়েছেন। শত কষ্টেও প্রতিদিন মাঠে ছোটেন কাজের সন্ধানে। মজুরি ছাড়া যখন চুক্তির ভিত্তিতে কাজ করেন, তখন তারা পুরুষের সমান মজুরি পান। তবে চুক্তিভিত্তিক কাজের সুযোগ কম। ফলে তাদের দৈনিক মজুরিতে কাজ করতে হয়।

কমিশন চেয়ারম্যান বলেন, গারোদের মধ্যে মাতৃতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থা বিদ্যমান এবং গারো নারীরাই সংসারের প্রধান হয়ে থাকেন। তা সত্ত্বেও মজুরিগত বৈষম্য তাদের ক্ষেত্রে বিদ্যমান। নারী হওয়ার কারণে গারো নারীরা মজুরি বৈষম্যর শিকার হচ্ছেন। সুযোগের সমতা নীতিকে অস্বীকার করে নারী-পুরুষ বৈষম্য সমাজের যে কোনো ক্ষেত্রে বা সব নাগরিকের ক্ষেত্রে মানবাধিকারের মূলনীতির পরিপন্থী।

রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আইন, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান যেখানে নারী ও পুরুষের সমান অধিকারের নিশ্চয়তা প্রদান করেছে সেখানে গারো কোচ নারীদের বেলায় তা মানা হচ্ছে না। যা সংবিধান পরিপন্থী ও মানবাধিকারের লঙ্ঘন মর্মে কমিশন মনে করে।

এ প্রেক্ষাপটে, একটি তদন্ত কমিটি গঠনপূর্বক বাস্তবিক প্রেক্ষাপট বিবেচনা করে তার অধিভুক্ত এলাকায় গারো, কোচ নারীসহ সমাজে এ ধরণের মজুরি বৈষম্য বিদ্যমান আছে কিনা তা চিহ্নিত করতে হবে। একইসঙ্গে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণসহ এই ধরণের বৈষম্যরোধে প্রয়োজনীয় প্রচারণা ও সামাজিক সচেতনতা অব্যাহত রাখার ব্যবস্থা গ্রহণপূর্বক কমিশনকে অবহিত করার জন্য টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসককে নির্দেশ দিয়েছে কমিশন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...