• আপডেট টাইম : 02/10/2022 10:53 AM
  • 229 বার পঠিত
  • আ.স.ম. জাকারিয়া
  • sramikawaz.com

আজ থেকে ছয় বছর আগে অর্থাৎ ২০১৬ সালের ১০ সেপ্টেম্বর গাজীপুর জেলার টঙ্গীস্থ বিসিক শিল্প এলাকায় ট্যাম্পাকো ফয়েল কারখানায় সংগঠিত হয় আবহ অগ্নিকান্ড।

যেদিন আগুন লেগেছিল, তার দুদিন পরই ‘ঈদ’। কেউ রাতের শিপ্টে কাজ করে, অপেক্ষামান বেতন ভাতায় জন্য, আর কেউ আসছে কর্মে নিয়োজিত হবে। মুহূর্তের মধ্যেই ঘটে গেল ঘটনা। লন্ডভন্ড হয়ে গেল সব, জীবšত মানুষ পরিণত হলো লাশে। স্বপ্ন হলো চুরমার।
সে এক নিদারুন দৃশ্য। একজন মানুষ দেখলো কি ভাবে সে মরছে। নিজের মৃত্যু সে নিজে প্রত্যক্ষ করছে। বাঁচার জন্য আকুতি জানাচ্ছে। বাইরে অপেক্ষামান জনতা শুনছে, আকুতি। কিন্তু পারছেনা তাকে বাঁচাতে। একদিকে আগুনের লেলিহান শিখা, অন্যদিকে মালিকের তৈরী বন্দী শালা নামক কারখানা। দরজা জানালা যেখানে রয়েছে জাল দ্বারা আটকানো। ফলে সাধ্য কার রক্ষা করে তাদের।
মালিক কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা। করখানা অভ্যšতরে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা বৈদ্যুতিক তার, ক্যামিক্যাল সামগ্রী। দুর্বল গ্যাস সংযোগ। কম মূল্যের মেয়াদ উত্তীর্ণ বয়লার। অরক্ষিত গ্যাসলাইন বৈদ্যুতিক সংযোগ।
সবদিকে বিবেচনায় কমদামে কেনা সামগ্রী। অল্প জায়গায় গাদাগাদি করে কাজ করা। মালিকদের অধিক মুনাফা প্রাপ্তির মানসিকতার ফল। মৃত্যু বরণ করে ৪০ জন শ্রমিক আহত হয় ৫০ জনের ও অধিক । নিখোঁজ হয় কয়েকজন। নষ্ট হয় কোটি কোটি টাকার সম্পদ। ক্ষত্রিগ্রস্থ হয় আশ পাশের বাড়ি, দোকান, প্রতিষ্ঠান। মারা যায় পথচারীও।
প্রায় ১০০ পরিবার সেদিনের ঈদ আনন্দ বঞ্চিত হয়। পাশা পাশি এক অনিশ্চিত জীবনের মধ্যে প্রবেশ করে।
কেউ হারিয়েছে সšতান। কেউ বাবা, কেউ  স্বামী , ইহ জনমে আর তাদের পাবে না। রাষ্ট্র, সরকার, মালিক, তথাকথিত শ্রমিক নেতা সবাই কিছুদিনের জন্য তাদের খোঁজ খবর নিয়েছে। দয়া দাকষণ্য দেখিয়েছে।
এখন আর কেউ তাদের খবর রাখে না। সবাই যার-যার মত। অথচ ঘটনার দিন থেকে বেশ কিছুদিন যাবৎ কথার ফুলঝুরি ছড়িয়ে ছিল, আমরা তোমাদের পাশে আছি। মালিক বলেছে নিহত, আহত শ্রমিকদের পরিবার পরিজনদের দেখবে। তাদের সুখ, দুঃখের সাথী হবে।
সরকার মহোদয়, যারা রাষ্ট্র ক্ষমতা রয়েছে তারা জোরালো কন্ঠে বলেছিল, শ্রমিক হত্যাকারীদের বিচারহবে। দূর্ঘটনার যথাযথ তদšত সাপেক্ষ ব্যবস্থা নেয়া হবে।
শ্রমিক নেতারা বলেছিল, যথাযথ ক্ষতিপূরণ আদায়করবে। দূর্ঘটনার সাথে জড়িতদের শাস্তি চাই। কিন্তু দুর্ভাগ্য কেউ কথা রাখেনি। সরকার ব্যবস্থা গ্রহণ কিেন। শ্রমিক নেতারা শ্রেণি স্বার্থ  রক্ষা করেনি।
ট্যাম্পাকো কারখানা এখন পূর্বের ন্যায় মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে, উৎপাদন হচ্ছে। মালিকের লাভ লোকসানের হিসাব কষা হচ্ছে।
অথচ যারা অকালে জীবন দিল, যাদের পরিবার পরিজন নিঃস্ব হলো। যাদের সšতান, স্ত্রী, পুত্র অনিশ্চিত জীবন যাপন করছে, তাদের বেঁচে থাকার অবলম্বন হলো কি-না সে খবর এখন আর কেউ রাখে না।
ট্যাম্পাকো কারখানায় যে সকল কারণে দূর্ঘটনা ঘটলো যারা দায়ী তাদের কোন শা¯িত হলো না। কে অপরাধী তাও জানা গেল না।
বর্তমানে কারখানাটি চলছে, উৎপাদন হচ্ছে, শ্রমিক কাজ করছে। কারখানার নিরাপত্তা, শ্রমিকের নিরাপত্তা সহ সার্বিক ব্যবস্থা ঠিক ঠাক হয়েছে কি-না, সে খবর কেউ জানে না। রাখে ও না।
মালিক পক্ষ কথা দিয়েছিল, নিহত, আহত শ্রমিকদের পরিবার পরিজনদের থেকে চাকরি দেওয়া হবে। বা¯তবে তা দিয়েছে কিনা সে খবর শ্রমিক শ্রেণির প্রতিনিধিরা নিয়েছে কী ? যতদূর সম্ভব কেউ নেয়নি।
বয়লার বিস্ফোরণ, বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট, গ্যাস বিস্ফোরণ এ বিষয় গুলো বর্তমান বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে সকল ধরণের শিল্প কারখানায় বিদ্যমান।
মালিকদের অতিলোভী মানসিকতাই এর জন্য দায়ী, তারা মেয়াদ উত্তীর্ণ বয়লার কমদামের। যেন তেন ভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ, গ্যাস সংযোগ প্রদান। অনেক সময় বিদ্যুৎ এবং গ্যাস সংযোগ অবৈধ ভাবে দেওয়া হয় বিদায় তাড়াতাড়ি উৎপাদন শুরু করে। ফলে কারখানার শতভাগ নিরাপত্তা নিশ্চিত হয় না। তাছাড়া এ পর্যšত বাংলাদেশের যত কারখানায় দূর্ঘটনা ঘটেছে কোনটার সঠিক তদšত হয়নি। সরকার, আমলা, কামলা এক শ্রেণির রাজনীতিবিদ এবং শ্রমিক নেতারা বিষয়টি ধামাচাপা দিয়ে থাকে।
ফলে কারখানার নিরাপত্তা নিশ্চিত হয় না এবং নিরাপত্তাহীনতা এবং নিয়ম নীতির অভাবে কেউ শা¯িত পায় না বিদায় এসব ঘটনা ঘটছে।
ট্যাম্পাকো আবার মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। মালিকের সকল চিšতা দূরীভুত হয়ছে। লাভের হিসাব নিকাষ করা হচ্ছে। কিন্তু ট্যাম্পাকো কর্তৃপক্ষের অতি মুনাফা লোভী মানসিকতার শিকার হয়ে যারা প্রাণ হারালো, তাদের পরিবার পরিজনের জীবনের হিসাব কে করবে ?
গত ১০ সেপ্টেম্বর-২২ ছিল ট্যাম্পাকো দূর্ঘটনার দিন। কেউ খবর নে-নাই নিহত, আহত শ্রমিকদের পরিবার পরিজনের। যারা নিহত হয়েছে তাদের আত্মার শাšিত কামনা করা হয়নি। যারা আহত পঙ্গু হয়ে বেঁচে আছে তাদের জীবনের গল্প শুনা হয়নি। ‘‘কোন পত্রিকায় তাদের নিয়ে একটা কথা ও বলা হয়নি’’।
বিশেষ করে শ্রমিক শ্রেণির সংগঠন গুলো থেকে কোন রকম পদক্ষেফ বা কর্মসূচি নেয়া হয়নি। ছোট বড় কোন শ্রমিক নেতার কথা শোনা যায়নি। কত সহজে আমরা ভুলে যাই আমাদের শ্রেণিকে। ওরাতো ভুলে না। কত নির্মম, কত নিষ্ঠুর আমরা। কত সহজে আমরা আমাদের শ্রেনিকে ভুলে যাই। ভুলে যাই কর্তব্য।
১০ সেপ্টেম্বর তারিখ যখন আসবে, ঈদের চাঁদ উঠবে তখন ট্যাম্পাকো ফয়েল কারখানার নিহত, আহত, পঙ্গু অসহায় শ্রমিকদের পরিজনের হৃদয়ে জাগবে প্রিয় হারানোর বেদনা।
ট্যাম্পাকো ফয়েল কারখানার আশ-পাশের ক্সতিগ্রস্থ মানুষ জন তথা পথচারী, তাদের মনে উদিত হবে কতগুলো ঝলসে যাওয়া অসহায় মানুষের লাশের স্মৃতি।


আ.স.ম. জাকারিয়া : শিক্ষক, শ্রমিক নেতা ও সাংস্কৃতিককর্মী

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...