• আপডেট টাইম : 15/07/2023 10:48 AM
  • 470 বার পঠিত
  • মো: আল কামরান
  • sramikawaz.com

দেশে পোশাক শিল্প কারখানাতে ১৯৯৪ সালে প্রথম ন্যূনতম মজুরি ঘোষণা হয়েছিলো ৯৩০ টাকা্। তখন আমি শ্রমিক ছিলাম না এবং সংগঠনের সাথে যুক্তও ছিলাম না। ২০০০ সালে সোয়েটার কারখানাতে কাজ করার মধ্যে দিয়ে আমি এই সেক্টরে প্রবেশ করি।

আমার দেখা ও আমার আন্দোলনে যুক্ত হওয়ার সময়টা হলো ২০০৬ সাল। তৎকালীন সময়ে ন্যূনতম বেতন ৩,০০০ টাকা দাবি করলেও সরকার ১,৬৬২ টাকা ৫০ পয়সা ঘোষণা দেয়; যা ছিল খুবই কম ও অমানবিক। তৎকালিন সময়ে মালিকদের যে মুনাফা হতো তা থেকে  ৩,০০০ নয় ৫,০০০ টাকা ন্যূনতম বেতন দিলেও তাদের সমস্যা হতো না।

আমাদের দেশের শ্রমিক সংগঠনগুলো আগে থেকেই শ্রমিকদের ন্যূনতম বেতন কম চেয়ে আসছেন । এখনো জীবনযাপন করতে গেলে আমরা যে বেতন পাই, তা দিয়ে দুইজনের পরিবার নিয়ে চলাও কষ্টকর।

বর্তমান বাজার দর এতো উর্ধ্বগামী যে ২০০৬, ২০১০, ২০১৩ ও ২০১৮ সালের বেতনের দাবির আর এই দাবির তুলনায় প্রাপ্তিটা খুবই কম হয়েছে। সেই হিসেবে আমরা এখন নিম্ন আয়ের তালিকায় মধ্যেই পড়ে আছি।

যেখানে দেশের অন্যান্য শ্রমিক কাজ করে ৮ টা থেকে ৫ টা পর্যন্ত, যাদের হাজিরা হয় কমপক্ষে ৬০০ টাকা থেকে ১০০০ টাকা। সেখানে এখনো আমাদের ৩,০০০/৪,০০০ টাকার মধ্যে; এতে করে প্রমাণ হয় মজুরিতে এখনো আমরা অনেক পিছিয়ে আছি।

সরকার যেখানে স্মার্ট বাংলাদেশ বা উন্নত দেশের কথা বলছে, আর এই পরিবর্তনের একমাত্র ধারক ও বাহক এই পোশাক শ্রমিক। সেখানে রপ্তানি আয়ের জন্য পোশাক কারখানা যেমন দরকার, তেমনি দরকার এই শ্রমিকদের জীবনযাপনের উপযোগি ভালো বেতন। ভালো মজুরিতে তাদের শরীর স্বাস্থ্য মন সবই ভালো থাকবে। যদিও এই ভাল থাকার জন্য ২৩,০০০ টাকারও বেশি বেতনের দরকার। তারপরও বর্তমান প্রেক্ষাপটকে চিন্তা করে এবারে শ্রমিক ও শ্রমিক সংগঠনগুলো দাবি তুলেছেন ন্যূনতন বেতন ২৩০০০ টাকা।

উৎপাদনের জন্য উপযোগি পরিবেশ হলো সুস্থ্য দেহমনে কাজ করার পরিবেশ। সরকার নিশ্চই কথাটি মনে রেখে বেতন নির্ধারণ করবে। যদি শ্রমিকের জীবন মান বেতন না দেওয়া হয়, যদি বেতন বৃদ্ধির কদিন পরেই নিত্যপণ্যের দাম বাড়িয়ে, বাড়িভাড়া বাড়িয়ে, পরিবহন খরচ বাড়িয়ে সব বাড়তি টাকা নিয়ে যায়; যদি আগের অবস্থাতে শ্রমিকদের ফিরে যেতে হয় তাহলে শ্রমিকের কষ্ট আবার বাড়বে, আবার অস্থিরতা বাড়বে। আর এত উৎপাদন ব্যহত হবে।

 

 

মো. আল কামরান:

ভারপ্রাপ্ত সভাপতি,  স্বাধীন বাংলা গার্মেন্টস শ্রমিক কর্মচারী ফেডারেশন ।

 

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...