• আপডেট টাইম : 27/11/2020 05:09 AM
  • 496 বার পঠিত
  • শরীফুল ইসলাম
  • sramikawaz.com

আগামজাতের চাষকরা মুলকাটা পিঁয়াজের পরিচর্জায় ব্যস্ত সময় পার করছেন কুষ্টিয়ার চাষীরা। ভোক্তা চাহিদা সম্পন্ন পিঁয়াজ চাষীদের অর্থকরী মসলা জাতীয় ফসল হওয়ায় পিঁয়াজ চাষ করে বছরের অর্থনৈতিক চাহিদা মিটিয়ে থাকেন তারা। বর্তমান বাজারে পিঁয়াজের দাম বেশী হওয়ায় লাভের আশায় কুষ্টিয়াসহ দৌলতপুরের চাষীরা পিঁয়াজ চাষ ও পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন।
চলতি মৌসুমে কুষ্টিয়া জেলায় ২,৫৫০ (দুই হাজার পাঁচশত পঞ্চাশ) হেক্টর জমিতে মুলকাটা পিঁয়াজ চাষের লক্ষ্যমাত্রার নির্ধারণ করা হয়েছে।

আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় ও বেশী দাম পাওয়ার আশায় এবছর পিঁয়াজ চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। মুলকাটা পিঁয়াজ সবচেয়ে পিঁয়াজ চাষ হয়ে থাকে জেলার দৌলতপুরে। ইতোমধ্যে ১,৯৫০ (এক হাজার নয়শত পঞ্চাশ) হেক্টরের বেশী জমিতে মুলকাটা পিঁয়াজ চাষ হয়েছে। ক’দিন পরেই স্বপনের অর্থকরী সোনালী ফসল পিঁয়াজ ঘরে তুলবেন চাষীরা। সে আশায় পিঁয়াজের পরিচর্যা নিয়ে ব্যস্ত সময় পর করছেন তারা। এবছর বীজের দাম বেশী হওয়ায় প্রতি বিঘা জমিতে পিঁয়াজ চাষে চাষীদের প্রায় ৩৫ থেকে ৪০ হাজার টাকা খরচ হচ্ছে। বিদেশ থেকে পিঁয়াজ আমদানি করা না হলে লাভের মুখ দেখবেন তারা।

দৌলতপুর উপজেলার ¯^রুপপুর গ্রামের পিঁয়াজ চাষী নিজাম উদ্দিন জানান, এবছর মুলকাটা পিঁয়াজের বীজের দাম বেশী হওয়ায় পিঁয়াজ চাষে খরচ বেশী হচ্ছে। বাজারমূল্য ৫০টাকা কেজির কম হলে পিঁয়াজ চাষে লোকসান গুনতে হবে।


তবে পিঁয়াজ চাষে চাষীদের বীজ, সারসহ প্রয়োজীয় প্রনোদনা ও পরামর্শ দেওয়ায় পিঁয়াজ চাষ ভাল হয়েছে এবং ফলনও ভাল হবে এমন আশা কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তরের। আর এমটাই জানিয়েছেন দৌলতপুর কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা সজিব আল মারুফ।


চড়ামূল্যের বাজারে চাষীদের উৎপাদিত নতুন পিঁয়াজ বাজারে আসলে পিঁয়াজের উচ্চমূল্যের ঝাঁজ কমবে বলে মনে করেন এ অঞ্চলের কৃষকসহ সর্বসাধারণ।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...