• আপডেট টাইম : 04/02/2024 07:58 PM
  • 50 বার পঠিত
  • সংবাদ বিজ্ঞপ্তি
  • sramikawaz.com

দেশের শ্রেণি-সচেতন ও বিপ্লবী ধারার ট্রেড ইউনিয়নসমূহের জোট জাতীয় শ্রমিক কর্মচারী সংগ্রাম পরিষদ-এর উদ্যোগে অনুষ্ঠিত মতবিনিময়সভায় বক্তারা বলেছেন, দেশে ক্রমাগত শ্রমিক অধিকার সংকুচিত করা হচ্ছে। শ্রমিকদের ট্রেড ইউনিয়ন অধিকার, গণতান্ত্রিক অধিকার,
ন্যায্য মজুরির অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে। এই অবস্থা থেকে উত্তরণে কায়েমীস্বা র্থের অনুগত দালালির বিপরীতে শ্রমিক আন্দোলনকেসংগ্রামী ধারায় পরিচালিত করতে হবে। বক্তারা আন্দোলনমুখী ও আদর্শিক ধারার ট্রেড ইউনিয়নসমূহের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান।
মতবিনিময় সভা থেকে শ্রমিকপক্ষের দাবি না মানা হলে শ্রমিকদের সাধারণ দাবিতে দেশব্যাপী সর্বাত্মক ধর্মঘট আহবানের হুশিয়ারি দেনবক্তারা।
৪ ফেব্রয়ারি ২০২৪, রোববার, বেলা ১১টায় ঢাকার তোপখানা সড়কে বাংলাদেশ শিশু কল্যাণ পরিষদ মিলনায়তনে ‘শ্রমিক হত্যা,জবরদস্তিমূলক শ্রম পরিস্থিতি, নিবর্তনমূলক আইন ও ন্যায্য মজুরী বঞ্চিত শ্রমিক: গণতান্ত্রিক ও শ্রমিক অধিকার প্রতিষ্ঠায় করণীয়’ শীর্ষক
মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। জাতীয় শ্রমিক কর্মচারী সংগ্রাম পরিষদ-এর আহবায়ক বর্ষীয়ান শ্রমিকনেতা মনজুরুল আহসান খানেরসভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রারম্ভিক লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ শ্রমিক কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি জহিরুল ইসলাম।
জাতীয় শ্রমিক ফেডারেশন বাংলাদেশের সাধারণ সম্পাদক শামীম ঈমামের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ,সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের সভাপতি রাজেকুজ্জামান রতন, বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিযন সংঘের সভাপতি চৌধুরী আশিকুল আলম, গার্মেন্ট
শ্রমিক ঐক্য ফোরামের সভাপতি মোশরেফা মিশু, শ্রমিকনেতা হারুনার রশিদ ভুইয়া, এএএম ফয়েজ, সাদেকুর রহমান শামীম, মীরমোফাজ্জল হোসেন মোস্তাক, সুশান্ত সিনহা, মোজাফফর হোসেন, উজ্জল রায়, আব্দুল কুদ্দুস, মোহাম্মদ গোফরান, আব্দুল হাশিম কবির
প্রমুখ। মতবিনিময় সভায় চ-বাগান, পাটকল, পরিবহন, চাতাল ও রাইস মিল, পাদুকা শিল্প, গার্মেন্ট, টে·টাইলসহ বিভিন্নশিল্প ও খাতেরশ্রমিক প্রতিনিধিরা বক্তব্য রাখেন।
সভায় মনজুরুল আহসান খান বলেন, জাতীয় শ্রমিক কর্মচারী সংগ্রাম পরিষদ ১১ দফা দাবির ভিত্তিতে আন্দোলন করছে। সরকার শ্রমিকদেরন্যায্য দাবি না মানলে সারাদেশের সংগঠিত ও অসংগঠিত সকল খাতের শ্রমিকদের একত্রিত হয়ে সর্বাত্মক ধর্মঘটসহ কঠোর আন্দোলনে
নামতে হবে। তিনি আরো বলেন, অতীতের মত এবারও শ্রমিক আন্দোলন দেশের মানুষের ভোটাধিকার ও গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠায় পতদেখাবে।
সভায় আনু মুহাম্মদ বলেন, দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে রাষ্ট্রীয় সংস্থাগুলোসহক্ষমতাসীন দলের লাঠিয়াল বাহিনী যেভাবে শ্রমিকদের বিরুদ্ধেবল প্রয়োগ করছে, মজুরি বৃদ্ধির দাবি করায় শ্রমিকের ওপরে যেভাবে গুলি করা হলো তা দেখলে স্পষ্ট বোঝা যায় এটা একটা শ্রেণিযুদ্ধ। এই
শ্রেণিযুদ্ধে রাষ্ট্র একটা পক্ষে দাঁড়িয়েছে। আজ একথা বলার অপেক্ষা রাখে না, সব কিছুই মাফিয়া গোষ্ঠির নিয়ন্ত্রণে চলে গেছে। রাষ্ট্র তাদেরহয়ে ভূমিকা পালন করছে মাত্র।
তিনি আরো বলেন, কারো কারো এই বিভ্রান্তিহয়েছিল যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপিয় ইউনিয়ন বাংলাদেশে একটা সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্যভূমিকা রাখবে। এই বিভ্রান্তিতৈরী করতে পারাই তাদের সাফল্য। প্রকৃত অর্থে তারা নিজেদেরস্বা র্থ নিয়েই কাজ করে। তাদের ওপরে নির্ভর
করে শ্রমিকের অধিকার প্রতিষ্ঠা হবে না। শ্রমিকের অধিকার আদায়ে জোড়ালো শ্রমিক আন্দোলন ছাড়া কোন বিকল্প নেই।সভায় রাজেকুজ্জামান রতন বলেন, দেশে সংগঠিত শিল্প খাতের বাইরে বিপুল জনগোষ্ঠি অসংগঠিত বিভিন্ন খাতে কাজ করছে। সেবাখাতসহ
বহু অসংগঠিত পেশার শ্রমজীবী মানুষ শ্রম আইনের আওতার বাইরে থেকে যাচ্ছে। ফলে তারাআইনগত সকল সুরক্ষা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের শ্রমিক আন্দোলনে মজুরি ও অন্যান্য দাবিতে যতটা জোর দেয়া হয় ততটা জোরালোভাবে শ্রম আইন নিয়েআন্দোলন হয় না। যার ফলে শ্রমিকক্ষ র্থ বিরোধী শ্রম আইন দ্বারা শ্রমিকরা কাঠামোগতভাবে শোষণ, বঞ্ছনার শিকার হচ্ছে।সভায় মোশরেফা মিশু বলেন, সরকার শ্রমিক বিদ্বেষী ও মালিক শ্রেণির আজ্ঞাবহ। সীমাহীন দুঃখ ও যন্ত্রণা নিয়ে মানুষ বেঁচে আছে। শ্রমিকেরপক্ষে দৃঢ়ভাবে দাঁড়ানোর সংগঠন ও নেতৃত্বের অভাবপূরণ করে অগ্রসর হতে হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...