• আপডেট টাইম : 01/05/2024 01:38 PM
  • 86 বার পঠিত
  • আমিরুল হক আমিন
  • sramikawaz.com

আজ মহান মে দিবস-এর ১৩৮ বার্ষিকী। এই দিনে ১৮৮৬ সালে শ্রমিকদের অধিকার প্রতিষ্ঠার প্রথম লড়াইয়ে আমেরিকারসিকাগো শহরে হে মার্কেটে জীবন উৎসর্গকারী বীর শহিদদের সহ এ যাবৎ কালে বাংলাদেশ সহ সারা পৃথিবীর জীবন দানকারী
বীর শ্রমিক শহিদদের প্রতি বাংলাদেশের সবচাইতে বড় শিল্প “গার্মেন্টস” সেক্টরের সবচেয়ে বড় এবং প্রচিন সংগঠন জাতীয়গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশন-এর পক্ষ থেকে জানাই রক্তিম শুভেচ্ছা এবং গভির শ্রদ্ধা।

দেশের ৫ হাজার গার্মেন্টস কারখানায় কাজ করে ৪২ লক্ষ শ্রমিক কর্মচারী -- যাদের বেশির ভাগ নারী।

এই শিল্প দেশেররপ্তানির ৮৩% পূরণ করে। অথচ দ্রব্যমুল্যের উর্দ্ধগতি, মূল্যস্ফীতি, গ্যাস-বিদুৎ-পানির মূল্য বৃদ্ধি, বাড়ি ভাড়া বৃদ্ধি, যাতায়াত
ভাড়া-চিকিৎসা খরচ বৃদ্ধি সব কিছু মিলিয়ে এই শ্রমিকেরা দিশেহারা।

গার্মেন্টস শ্রমিকদের বর্তমান সময়ে সবচেয়ে জরুরী প্রয়োজন ঃ
১. গার্মেন্টস শ্রমিকদের জন্য পূর্ণাঙ্গ রেশনিং ব্যবস্থা চালু করতে হবে।
২. গার্মেন্টস শ্রমিকদের পূর্ণাঙ্গ ট্রেড ইউনিয়ন অধিকার।


৩. নারী শ্রমিকদের সম-অধিকার, সম-মর্যাদা, সম-মজুরী এবং সম-পদোন্নতি।
গার্মেন্টস শ্রমিকদের বর্তমান সময়ে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ ঃ
গার্মেন্টস সেক্টরে এই দশকে শুরু হয়েছে ডিজিটালাইজেশন এবং অটোমেশন। ডিজিটালাইজেশন এবং অটোমেশন এর কারণেলক্ষ লক্ষ গার্মেন্টস শ্রমিক বেকার হচ্ছে। অথচ সরকার, শ্রম মন্ত্রণালয়, বিজিএমইএ, বিকেএমইএ এবং গার্মেন্টস মালিকদের এ
ব্যপারে কোন মাথা ব্যাথা নেই --- যা অতান্ত লজ্জাজনক। এ অবস্থায় ঃ
১. ডিজিটালাইজেশন এবং অটোমেশন শুরুর আগে শ্রমিক সংগঠন এবং কারখানা ভিত্তিক ইউনিয়নের সাথে আলোচনাকরতে হবে।


২. ডিজিটালাইজেশন এবং অটোমেশন এর কারণে বেকার হওয়া শ্রমিকদের অবিলম্বে বিকল্প কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে
হবে।
৩. শ্রমিকদের প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে।
৪. বেকার/চাকুরীচ্যূত শ্রমিকদের আইনি ক্ষতিপূরণের বাইরে গোল্ডেন হ্যান্ড-সেক এর মতো প্রত্যাক শ্রমিককে ২০ মাসেরবাড়তি ক্ষতিপূরণ দিতে হবে।


গার্মেস্টস শিল্পের সাথে সর্ম্পকিত সাম্প্রতিক সময়ে সংগঠিত আন্তর্জাতিক প্রদক্ষেপ ঃ
আন্তর্জাতিক ভাবে সমসাময়িক সময়ে ঃ
১. এবৎসধহ ঝঁঢ়ঢ়ষু ঈযধরহ উবি উরষরমবহপব খধি
২. ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের ঈ.ঝ.উ.উ.উ.
৩. আমেরিকার ট.ঝ.ঞ.উ.জ এর জড়ধফ গধঢ় এসেছে।
বাংলাদেশের গার্মেন্টস শিল্পকে টিকে থাকা এবং সাস্টেনেইবল করার লক্ষ্যে উপরে উল্লেখিত ৩ টি বিষয়ের চাহিদা পূরণে
গার্মেন্টস শিল্পের আরো আধুনিকায়ন এবং উন্নয়ন করতে হবে।


র‌্যারীর পূর্বে ঘোষণা তুলে ধরেন ফেডারেশনের সভাপতি জনাব আমিরুল হক্ আমিন।


উপস্থিত ছিলেন ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মোঃ কবির হোসেন, সাংগঠনিকসম্পাদক ফরিদুল ইসলাম, যুব-সম্পাদক মুজাহিদুল আমিন অংকন, দপ্তর সম্পাদক মোঃ রিয়াদ হোসেন, সহ-সভাপতি মিসেসজেসমিন আক্তার, নারী বিষয়ক সম্পাদক সুইটি সুলতানা বিভিন্ন আঞ্চলিক নেতৃবৃন্দ, ট্রেড ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ প্রমূখ।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...