• আপডেট টাইম : 23/05/2023 05:48 PM
  • 353 বার পঠিত
ফাইল ছবি
  • আয়োজ ডেস্ক :
  • sramikawaz.com

বাংলাদেশে অবাধ ট্রেড ইউনিয়ন চর্চার বিষয়ে জানতে চেয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের ট্রেড রিপ্রেজেনটেটিভ (ইউএসটিআর) কার্যালয়ের সফররত প্রতিনিধিরা। আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার পথনকশা অনুযায়ী, শ্রম আইন সংশোধন এবং বিধিমালা হচ্ছে কিনা, সে বিষয়েও জানতে চেয়েছেন তাঁরা। গতকাল সোমবার শ্রমিক নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে শ্রম অধিকার-সংক্রান্ত বিভিন্ন অনিয়ম রোধে শ্রমিকদের আরও সংগঠিত ও সোচ্চার হওয়ার পরামর্শও দেওয়া হয়েছে ইউএসটিআরের পক্ষ থেকে।

রাজধানীর গুলশানে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক আন্তর্জাতিক শ্রম অধিকারবিষয়ক সংগঠন সলিডারিটি সেন্টার কার্যালয়ে এ বৈঠক হয়। বৈঠকে ইউএসটিআরের ১২ সদস্যের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন সংস্থার দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়াবিষয়ক ভারপ্রাপ্ত অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি ব্রেনডেন লিঞ্চ।

 শ্রমিক নেতাদের মধ্যে ছিলেন শ্রমিক-কর্মচারী ঐক্য পরিষদের (স্কপ) শীর্ষ নেতা এবং সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের সভাপতি রাজেকুজ্জামান রতন, বাংলাদেশ পোশাক শিল্প শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি তৌহিদুর রহমান,  বাংলাদেশ সেন্টার ফর ওয়ার্কার্স সলিডারিটির নির্বাহী পরিচালক কল্পনা আক্তার, মুক্ত গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের সহসভাপতি রাশেদুল আলম রাজু ও ইন্ডাস্ট্রিয়াল বাংলাদেশ কাউন্সিলের সাবেক সাধারণ সম্পদক সালাহ উদ্দিন স্বপন।

আইএলওর পথনকশা অনুযায়ী, শ্রম আইন সংশোধন এবং বিধিমালা প্রণয়নের প্রতিশ্রুতি রয়েছে সরকারের। আইএলও এবং অন্যান্য আন্তর্জাতিক ফোরামে বাংলদেশের পক্ষ থেকে এ প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, শ্রমিক নেতারা শ্রম অধিকারবিষয়ক বিভিন্ন জটিলতা এবং সীমাবদ্ধতার কথা তুলে ধরেন ইউএসটিআর প্রতিনিধি দলের কাছে। তাদের প্রধান অভিযোগ ছিল, স্বাধীন ট্রেড ইউনিয়ন গঠনে বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতা নিয়ে। স্বাধীন ট্রেড ইউনিয়নের ক্ষেত্রে মালিক কর্তৃপক্ষের নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গিই প্রধান প্রতিবন্ধকতা বলে উল্লেখ করেন তাঁরা। সংশোধিত শ্রম আইনে কোনো কারখানার মোট শ্রমিকের ২০ শতাংশের সই থাকলে ট্রেড ইউনিয়ন নিবন্ধনের কথা বলা হয়েছে। তবে এ-সংক্রান্ত শ্রম দপ্তরের পরিদর্শনে মালিক কর্তৃপক্ষ কারসাজি করে শ্রমিকের সংখ্যা বেশি দেখায়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এ কারণে ট্রেড ইউনিয়নের নিবন্ধনের জন্য ২০ শতাংশের সীমা পূরণ করা সম্ভব হয় না। ‘হলুদ ট্রেড ইউনিয়ন’-এর দৌরাত্ম্যও চলছে সমানতালে।

মালিকরা নিজস্ব লোকবল দিয়েও এ ধরনের ট্রেড ইউনিয়ন করে নিচ্ছে, যারা শ্রমিকদের পরিবর্তে মালিকদের স্বার্থ সংরক্ষণ করে থাকে। নিবন্ধিত ট্রেড ইউনিয়নের হিসাব নিয়েও আছে কারসাজি। সরকারি হিসাবে ট্রেড ইউনিয়নের সংখ্যা এখন ১ হাজার ২০০ দেখানো হচ্ছে। অথচ বাস্তবতা হচ্ছে, প্রকৃত ট্রেড ইউনিয়ন প্রকাশিত তথ্যের ৫ শতাংশও হবে না। যে ক’টি ট্রেড ইউনিয়ন করা সম্ভব হয়েছে, সেগুলো কেবল দুর্বল মালিকদের কারখানায়ই হয়েছে। প্রভাবশালী মালিকদের কারখানায় ট্রেড ইউনিয়ন করা সম্ভব হচ্ছে না। রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ এলাকা (ইপিজেড) এবং ইপিজেডের বাইরে একই ট্রেড ইউনিয়নের অভিন্ন আইনের প্রয়োজনীয়তার কথাও বলেন তাঁরা। সূত্র জানায়, এসব বিষয়ে শ্রমিকদের সোচ্চার হওয়ার পরামর্শ দেন তাঁরা। পাশাপাশি এ বিষয়ে ইউএসটিআরের পক্ষ থেকে বাংলাদেশ সরকারকে অনুরোধ করা হবে বলে আশ্বস্ত করা হয় শ্রমিক নেতাদের। শ্রম পরিস্থিতি সরেজমিন দেখতে ইউএসটিআরের প্রতিনিধি দলটি গতশনিবার ঢাকায় আসে। গত রোববার শ্রম মন্ত্রণালয়, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে বৈঠক করে তারা।

 বৈঠকে অংশ নেওয়া তৌহিদুর রহমান গণমাধ্যমকে জানান, স্বাধীন ট্রেড ইউনিয়নের বাস্তবতা ইউএসটিআরের প্রতিনিধিদের কাছে তুলে ধরেছেন তারা। ট্রেড ইউনিয়ন গঠনের উদ্যোগ নিলে বিভিন্ন সংস্থার মাধ্যমে হয়রানি করা হয়। এ ব্যাপারে একজন শ্রমিকের ৬৩ ধরনের তথ্য জানতে চায় কর্তৃপক্ষ। এ রকম বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতার কথা তুলে  ধরেছেন তাঁরা। জবাবে ইউএসটিআর প্রতিনিধিরা বলেছেন, অধিকার আদায়ে শ্রমিকদেরই সোচ্চার হতে হবে।

জানা গেছে, বৈঠকে পোশাক শ্রমিকদের মজুরির বিষয়টিও আলোচনায় উঠে আসে। পোশাক খাতের জন্য নিম্নতম মজুরি বোর্ডে বিগত বিএনপি সরকারের সময়ও শ্রমিক পক্ষের প্রতিনিধি করা হতো দলীয় শ্রমিক নেতাদের। সম্প্রতি গঠিত মজুরি বোর্ডেও বর্তমান সরকার এবং মালিক পক্ষের অনুগত শ্রমিক প্রতিনিধি মনোনীত করা হয়েছে। এ কারণে শ্রমিকরা কাঙ্ক্ষিত মজুরি পাবেন না বলে আশঙ্কার কথা জানানো হয়।

 মূল্যস্ফীতি বিবেচনায় ন্যূনতম ২৩ হাজার টাকা মজুরি নির্ধারণ হওয়া উচিত বলে ইউএসটিআরকে জানিয়েছেন শ্রমিক নেতারা।

সূত্র সমকাল

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...