• আপডেট টাইম : 05/08/2022 10:14 AM
  • 286 বার পঠিত
  • শরীফুল ইসলাম, কুষ্টিয়া
  • sramikawaz.com


কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের প্রাগপুর থেকে ছেড়ে আসা ঢাকা গামী ঈগল পরিবহনের চলন্ত বাসে ডাকাতির সময় প্রতিবাদ করায় ধর্ষণের শিকার হয়েছেন গাড়ীর যাত্রী দৌলতপুর উপজেলার হোসেনাবাদ গ্রামের এক নারী। গাড়ীতে থাকা একাধিক প্রত্যক্ষদর্শী যাত্রীদেন ওইদিনের ডাকাতির ঘটনার বর্ণনায় অমানবিক তথ্য বেরিয়ে আসে।
মঙ্গলবার দিবাগত রাতে ঢাকা টাঙ্গাইল মহসড়কে চাঞ্চল্যকর ডাকাতি ও ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। গাড়ীতে যাত্রী ছিলেন কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার তারাগুনিয়া সালিমপুর গ্রামের ফল ব্যবসায়ী হেকমত আলী, তার স্ত্রী জেসমিন আরা ও শাশুড়ি শিল্পিয়ারা খাতুন। হেকমত আলী গত মঙ্গলবার রাতে স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য দুই সন্তান ও শাশুড়িকে নিয়ে ওই বাসে ঢাকার উদ্দেশে যাচ্ছিলেন। প্রায় ৩ ঘন্টা ব্যাপী ডাকাতরা বাসের ভেতর তান্ডব চালায়। বুধবার সারাদিন তারা পুলিশের নিয়ন্ত্রনে ছিলেন। ডাকাতি হওয়ার কারণে অর্থাভাবে স্ত্রীর চিকিৎসা না নিয়ে বুধবার রাতে তারা বাড়ি ফিরে আসেন।


সেদিন কি ঘটেছিল ওই বাসের মধ্যে?
বৃহস্পতিবার দুপুরে নিজ বাড়িতে ঘটনার বর্ণণা দেন গাড়ির যাত্রী হেকমত আলী, স্ত্রী জেসমিন আরা ও তার শাশুড়ি শিল্পিয়ারা খাতুন। এ সময় হেকমত আলী বলেন, স্ত্রী জেসমিন, তাঁদের চার বছরের ছেলে ও দুই বছরের মেয়ে, শাশুড়ি শিল্পিয়ারা খাতুনকে নিয়ে মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮ টার দিকে দৌলতপুর উপজেলার তারাগুনিয়া বাজার থেকে ঈগল পরিবহনের বাসে ওঠেন। বাসে ১০ থেকে ১৫ জন যাত্রী ছিলেন। প্রতিদিনের ন্যায় বাসটি একই উপজেলার ভারত সীমান্তবর্তী প্রাগপুর থেকে ছেড়ে আসে। ঈগল পরিবহন বাসটি বনপাড়া হয়ে রাত সাড়ে ১১টার দিকে সিরাজগঞ্জে একটি হোটেলে গিয়ে যাত্রা বিরতি করে। সেখানে বিরতি শেষে রাত পৌনে ১২টার দিকে ঢাকার দিকে রওনা হয়।


হেকমত আলীর বর্নণা মতে, বাসটি কিছু দুর যাওয়ার পর রাত ১২টার দিকে মহাসড়কের ওপর ৪ জন তরুণ বাসের সামনে থেকে হাত তুলে ইশারা দেন। বাস চালকের সহকারী সড়কের পাশে দাঁড়িয়ে ওই তরুণদের সঙ্গে কথা বলেন। দু’এক মিনিটের মধ্যে তরুণেরা বাসে উঠে পড়েন এবং সুপারভাইজারের সঙ্গে কথা বলে বাসের পেছনের দিকের ছিটে বসেন। ৪ তরুণের প্রত্যেকের মুখে মাস্ক ও একজনের পিঠে ব্যাগ ছিল। তাঁরা পেছনে বসার পরপরই মোবাইল টিপতে থাকে। বাসটি আরও ১৫ মিনিট চলার পর রাস্তা থেকে আরও ৫ জন যাত্রী একইভাবে বাসে ওঠেন। কয়েক মিনিট পর আরেকটু সামনে গিয়ে আরও ২জন বাসে ওঠেন। কিছুক্ষণ পর রাস্তা থেকে ওঠা যাত্রীদের মধ্যে থেকে একজন বাসের চালককে বাস থামাতে বলেন। চালক থামাতে রাজি না হলে তাঁকে মারধর করেন তারা। এসময় চালককে সরিয়ে চালকের আসনে বসে তারা বাসের নিয়ন্ত্রণ নেন। ডাকাতরা পুরুষ যাত্রীদের গলায় ছুরি ও কাঁচি ধরে রাখেন। কোন যাত্রী চিৎকার করতে না পারেন সে জন্য গাড়ীর পর্দা কেটে পুরুষ যাত্রীদের মুখ, হাত ও পা বেঁধে ছিটের নিচে বসিয়ে রাখেন। বাসে থাকা ১০ থেকে ১২ জন নারী যাত্রীর মধ্যে একজনের চোখ, মুখ ও হাত বেঁধে ফেলা হয়। বাঁকিদের চোখ, মুখ ও হাত খোলা ছিল। বাস তখন ¯^াভাবিক গতিতে চলতে থাকে। তবে বাসের সব আলো নিভিয়ে দেয়া হয়। যাত্রী বেশি ওই ডাকাতেরা প্রত্যেকের শরীর তল্লশি করে টাকা, মুঠোফোন এবং নারী যাত্রীদের কাছ থেকে ¯^র্ণালংকার লুটে নেয়।


হেকমত আলীর স্ত্রী প্রত্যক্ষদর্শী জেসমিন আরা বলেন, সবার সাথে তাঁর ¯^ামী হেকমত আলীরও হাত বাঁধা হয়। তবে জেসমিনের চোখ খোলা ছিল। জেসমিনের এক ছিট পেছনে ছিলেন এক নারী। তাঁর থেকে দুই হাত দূরে এক নারীকে তল্লাশি করার সময় ওই নারী প্রতিবাদ করেন। ওই নারী ডাকাত দলকে বলেন, ‘তোরা যে কাজ করছিস, সেটা ঠিক না। আমার এলাকা পাবনায় হলে তোদের দেখে নিতাম।’ এ কথা শোনার পর দুই তরুণ ওই নারীকে মারধর করেন এবং পেছনের একটি ছিটে নিয়ে গিয়ে জোরপূর্বক শারীরিকভাবে (ধর্ষণ) নির্যাতন করে।


জেসমিন আরা বলেন, তিনি সিটে তাঁর এক সন্তানকে বুকে জড়িয়ে মাথা নিচ করে সৃষ্টিকর্তার (আল্লাহ্র) নাম নিচ্ছিলেন। সামনের আরেক সিটে তাঁর মা বসেছিলেন আরেক সন্তানকে নিয়ে। তাঁদের এক শিশু কান্না করলে ডাকাত দলের একজন এসে বাচ্চাকে ধমক দেয় এবং তাদের মতো ছিনতাইকারী না হওয়ার পরামর্শ দেয়।


হেকমত আলী ও তাঁর স্ত্রী জেসমিন আরও বলেন, ডাকাত দলের সরদারকে তাঁরা ‘কাকা’ বলে সম্বোধন করছিলেন। নুরু, সাব্বির, রকি নামেও কয়েকজনকে তারা নাম ধরে ডাকেন। রাত ৩টার দিকে ডাকাতেরা টাকা, মুঠোফোন ও ¯^র্ণালংকার নিজেদের মধ্যে ভাগাভাগি শুরু করে। বাসের ভেতরে ভাগাভাগি নিয়েও তাদের মধ্যে বাকবিতন্ডা হয়। ডাকাতি ও নির্যাতন (ধর্ষণ) শেষে সড়কের এক পাশের একটি খাদে গাড়িটি কাত করে রেখে তারা দ্রুত নেমে যায়। গাড়ির প্রায় সব যাত্রীকেই ডাকাতরা মারধর করেন বলে হেকমত আলী ও তার স্ত্রী জেসমিন আরা জানায়।
হকমত আলীর শাশুড়ি শিল্পিয়ারা খাতুন বলেন, ভোরের দিকে যখন পুলিশ আসে, তখন কয়েকজন যাত্রীকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। কয়েকজনকে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। বুধবার সারা দিন তাঁরা মধুপুর থানাতেই ছিলেন। রাত ৯টার দিকে বিআরটিসির একটি গাড়িতে টিকিট কেটে দিয়ে তাঁদের বাড়িতে পাঠিয়ে দেয় পুলিশ।
ধর্ষণের শিকার পাবনার গৃহবধু ও দৌলতপুরের হোসেনাবাদ এলাকার ওই নারীর বাবা বলেন, বছর চারেক আগে পাবনায় তার মেয়ের বিয়ে হয়। তার কোন সন্তানাদী হয়নি। মঙ্গলবার গার্মেন্টে চাকরী করার জন্য সে ঢাকা যাচ্ছিল। এ ঘটনার সুষ্ঠ বিচার ও দোষীদর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চান তিনি।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...