• আপডেট টাইম : 04/08/2022 11:55 PM
  • 20 বার পঠিত
  • প্রেস বিজ্ঞপ্তি
  • sramikawaz.com

 

মৌলভীবাজার শহর থেকে ব্যাটারি চালিত রিকশা-ভ্যান, ইজিবাইক উচ্ছেদ না করার দাবিতে মৌলভীবাজার জেলা রিকশা শ্রমিক ইউনিয়নের উদ্যোগে শহরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

৩ আগষ্ট বুধবার সন্ধ্যার আগে ইউনিয়নের চৌমুহনাস্থ কার্যালয়ে নেতাকর্মীরা সমবেত হয়ে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করে কোর্ট রোড, চৌমুহনা, সেন্ট্রাল রোড, কুসুমবাগ এলাকা প্রদক্ষিণ করে এসআর প্লাজার সামনে এসে সমাপ্ত হয়। পরে এস আর প্লাজার সামনে অনুষ্ঠিত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন মৌলভীবাজার জেলা রিকশা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো: সোহেল মিয়া।

ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মো: দুলাল মিয়ার পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘ মৌলভীবাজার জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক রজত বিশ্বাস, হোটেল শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মোঃ শাহিন মিয়া, রিকশা শ্রমিক ইউনিয়নের জে সহ-সভাপতি মোঃ গিয়াসউদ্দিন, সহ-সাধারণ সম্পাদক মো: জসিমউদ্দিন এবং রিকশা শ্রমিক ইউনিয়নের বিভিন্ন আঞ্চলিক কমিটির নেতৃবৃন্দ।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, ব্যাটারি চালিত রিকশা-ভ্যান শ্রমিকরা প্রতিদিন গভীর রাত পর্যন্ত প্রখর রোদ ও ঝড়বৃষ্টির মধ্যে অমানুষিক পরিশ্রম করে রিকশা-ভ্যান চালিয়ে দুঃখ কষ্টের জীবন জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন। গ্রাম্য জোতদার মহাজনের শোষণে জমি-জমা হারিয়ে জীবিকার তাগিদে শহরে রিকশা-ভ্যান চালিয়ে যাত্রী সাধারণের সেবা প্রদানের মাধ্যমে রিকশা শ্রমিকরা জীবন ও জীবিকা রক্ষার সংগ্রামে লিপ্ত। তার উপর চাল, আটা, ডাল, তেল, লবন, চিনিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের মূল্যের লাগামহীন অব্যাহত ঊর্ধ্বগতির বাজারে রিকশা-ভ্যান শ্রমিকদের বেঁেচ থাকা দায় হয়ে পড়েছে। এরকম সময়ে শহরে ব্যাটারি চালিত রিকশা-ভ্যান উচ্ছেদ তৎপরতা শ্রমিকদের আরও দুর্বিষহ পরিস্থিতির মধ্যে ফেলে দিচ্ছে। অথচ গত ৪ এপ্রিল/২০২২ উচ্চ আদালতের এক রায়ে মহাসড়কে ব্যাটারি চালিত তিন চাকার যানবাহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা প্রদান করা হলেও আঞ্চলিক সড়কে ও শহরের মধ্যে ব্যাটারি চালিত রিকশা-ভ্যান চলাচলে কোন নিষেধাজ্ঞা প্রদান করা হয়নি। তারপরও সম্প্রতি ব্যাপকভাবে ব্যাটারি চালিত রিকশা ও ভ্যান ধরপাকড় চলছে।
বক্তারা বলেন, করোনা মহামারি ও সাম্প্রতিক বন্যায় বিপর্যস্ত নি¤œআয়ের জনগণ বর্তমানের দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন উর্দ্ধগতিতে দিশেহারা। এরকম সময়ে শ্রমিকদের জীবন ও জীবিকার কথা বিবেচনা না করে ব্যাটারি চালিত রিকশা-ভ্যান উচ্ছেদের সিদ্ধান্ত চরম অমানবিক। এখন বিদ্যুত সাশ্রয়ের কথা বলে ব্যাটারি চালিত রিকশা-ভ্যান চলতে দেওয়া হচ্ছে না। অতীতেও কখনো দূর্ঘটনার অজুহাতে, কখনো যানজটের অজুহাতে ব্যাটারি চালিত রিকশা-ভ্যান উচ্ছেদ করার চেষ্ঠা হয়েছে। সরকার ব্যাটারি চালিত এসকল রিকশা-ভ্যান ও ইজিবাইক বিক্রিতে কোন বাঁধা দেয়নি, এমন কি এখনও শোরূম খোলে এসব পরিবহণ বিক্রি হচ্ছে। দরিদ্র জনগণ সহায় সম্বল বিক্রি করে, এনজিও থেকে চড়া সুদে ঋণ নিয়ে ব্যাটারি চালিত রিকশা-ভ্যান-ইজিবাইক কিনে যখন আতœকর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছেন তখন সরকার কখনো যানজট, কখনো দূর্ঘটনার অজুহাত তুলে আর এখন বিদ্যুত অপচয়ের অজুহাতে এই বাহনগুলো উচ্ছেদ করতে চাচ্ছে।

আমরা মনে করি দূর্নীতি, সিস্টেম লস ও অব্যবস্থপনার বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করেও বিদ্যুত সাশ্রয় করা সম্ভব; একই সাথে অনুৎপাদনশীল খাতে বিদ্যুতের ব্যবহার কমানো হলে সরকারকে নিরীহ রিকশা-ভ্যান শ্রমিকদের জীবিকার উপর খড়্গ হস্ত হতে হবে না। তাই শত শত রিকশা-ভ্যান শ্রমিকদের জীবিকা রক্ষায় আমার অবিলম্বে এই তৎপরতা বন্ধ করার দাবি জানাচ্ছি।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...