• আপডেট টাইম : 20/07/2022 06:41 PM
  • 77 বার পঠিত
ফাইল ছবি: দেশে ফেরার দাবিতে বিক্ষোভ রত রোহিঙ্গারা
  • আওয়াজ ডেস্ক
  • sramikawaz.com

 

রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে বাংলাদেশ ঝুঁকিতে পড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

তিনি মনে করেন, এই সংকট নিরসনে বাংলাদেশের বন্ধুরাষ্ট্রগুলোর দ্রুত সহযোগিতা প্রয়োজন। তাছাড়া মানবিক বিবেচনায় রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়া বাংলাদেশ সংকটে পড়বে।

রাজধানীর হোটেল র্যাডিশনে বুধবার দুপুরে ডিপ্লোম্যাটস পাবলিকেশন আয়োজিত ‘রোহিঙ্গা ও নার্কো টেররিজম’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘মানবিক বিবেচনায় মিয়ানমার থেকে আসা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছিল বাংলাদেশ। কিন্তু রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে বাংলাদেশ এখন মাদক, অস্ত্র চোরাচালানসহ সীমান্তে নিরাপত্তা ঝুঁকিতে পড়েছে। এই সংকটের সমাধান না হওয়ায় মানবিক দিক বিবেচনায় রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়া বাংলাদেশই এখন ভুক্তভোগী।’

তাই দ্রুত রোহিঙ্গা সংকট নিরসনে বন্ধুপ্রতিম রাষ্ট্রগুলোর সহযোগিতা প্রয়োজন বলে জানান মন্ত্রী।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘কোনো মাদকই বাংলাদেশে তৈরি হয় না। কিন্তু সেবন ও চোরাচালান হচ্ছে বাংলাদেশে। ইয়াবা তৈরি হচ্ছে মিয়ানমারে। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের বাহক ও চোরাচালানকারী হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। মাদকের হাব হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে রোহিঙ্গা আশ্রয় শিবিরগুলোকে।

‘রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে নানা আঙ্গিকে বাড়তি চাপ ও ঝুঁকিতে পড়েছে বাংলাদেশ। এর মধ্যে মাদক চোরাচালান, মানব পাচার, সীমান্ত নিরাপত্তা উল্লেখযোগ্য। মানবিক বিবেচনায় রোহিঙ্গাদের ভার বহন করতে গিয়ে এই চাপ নিতে হচ্ছে।’

কোনো ধরনের মাদক উৎপাদন না করেও বাংলাদেশই এর ভুক্তভোগী বলে জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।


একই সেমিনারে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ‘মিয়ানমারই রোহিঙ্গা ক্রাইসিস তৈরি করেছে। তাদের রাজনৈতিক প্রতিশ্রুতি ছিল এর সমাধান করার। আমরা প্রত্যাশা করব, মিয়ানমার তাদের রাজনৈতিক প্রতিশ্রুতি রক্ষা করে রোহিঙ্গা নাগরিকদের ফিরিয়ে নেবে।’

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের আশ্রয় দেয়ার পর ২০১৭ সাল থেকে প্রতি বছর ধারাবাহিকভাবে বাংলাদেশে মাদক চোরাচালান বেড়েছে উল্লেখ করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কী পরিমাণ মাদক জব্দ করেছে এর পরিসংখ্যান তুলে ধরেন পররাষ্ট্র সচিব৷

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ মাদক উৎপাদন করে না। তবুও রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ার পর থেকে মাদক চোরাচালান, অপরাধপ্রবণতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। চোরাচালানের কেন্দ্রে রয়েছে রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলো। মানব পাচারের ঘটনাও ঘটছে রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলো থেকে। পুলিশ ছাড়াও সেখানে নিয়োজিত আনসার, বিজিবি, এপিবিএন ও সেনাবাহিনী অপরাধ দমন এবং অপরাধীদের ধরতে চেষ্টা করে যাচ্ছে।’

পাশাপাশি ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের স্থানান্তরের ফলে মানব পাচারের ঘটনা কমবে উল্লেখ করে সচিব বলেন, ‘বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের প্রায় ৫০ শতাংশই শিশু। যাদের অনেকে সন্ত্রাসবাদ, মাদক চোরাচালানে জড়াচ্ছে।’

মিয়ানমার ও বাংলাদেশের মধ্যে কৌশল গ্রহণে ঘাটতি আছে উল্লেখ করে সচিব বলেন, ‘এ ক্ষেত্রে আসিয়ানকে কার্যকর ভূমিকা পালন করতে পারে। তাই আসিয়ানে রোহিঙ্গা সমস্যার বিষয়গুলো তুলে ধরতে হবে।’

সেমিনারের শুরুতেই কিনোট স্পিকার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের প্রফেসর ড. ইমতিয়াজ আহমেদ। রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ার পর থেকে দেশে মাদক চোরাচালান, মাদক উদ্ধার, অস্ত্র জব্দ, মানব পাচারসহ বাংলাদেশের ওপর সব নেতিবাচক প্রভাবের বিশ্লেষণ করেন তিনি।

সেমিনারে আরও উপস্থিত ছিলেন ব্রিটিশ হাইকমিশনার, সৌদি রাষ্ট্রদূত, নিরাপত্তা বিশ্লেষক ও সাবেক নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) এম সাখওয়াত হোসেন, আর্মড ফোর্সেস ডিভিশনের সাবেক প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার (পিএসও) লে. জেনারেল (অব.) মাহফুজুর রহমানসহ অন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি ও বিভিন্ন দূতাবাস কর্মকর্তারা।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...