• আপডেট টাইম : 01/03/2022 05:07 PM
  • 146 বার পঠিত
  • আওয়াজ ডেস্ক
  • sramikawaz.com

যে সময় এ প্রতিবেদন লেখা হচ্ছে, তখন তিনি ব্যাট করে চলেছেন। ভারতীয় এই ব্যাটারের নাম সিদ্ধার্থ মোহিত। শুক্রবার রাত থেকেই ব্যাট করা শুরু করেছেন মুম্বাইয়ের এই ব্যাটার। গিনেস বুক অব ওয়াল্ডে নাম তোলার জন্য শুধুমাত্র টানা ৫০ ঘণ্টা ব্যাটিংই নয়, টানা ৭২ ঘণ্টা অর্থ্যাৎ বিরতিহীনভাবে তিনটি দিন ব্যাটিং করে যেতে চান সিদ্ধার্থ।

১৯ বছর বয়সী সিদ্ধার্থ মোহিত জেনেছেন, ২০১৫ সালে পুণের বিরাগ মারে টানা ৫০ ঘণ্টা ৪ মিনিট ৫১ সেকেন্ড ব্যাট করেছিলেন। সেটাই গিনেস বুক অব ওয়াল্ডে টানা ব্যাটিং করার রেকর্ড হয়ে আছে। সিদ্ধার্থ মোহিত সেই রেকর্ড এরই মধ্যে ভেঙে দিয়েছেন।

বিরাগ মারে বোলার এবং বোলিং মেশিন দুই ধরনের বোলিংয়ের বিরুদ্ধেই ব্যাট করেছিলেন। সিদ্ধার্থ শুধুমাত্র বোলারদের বিরুদ্ধে ব্যাট করে যাচ্ছেন। তিনি যা করছেন তা সাধারণত সব ক্রিকেটার করতে চান না। টানা ৭২ ঘণ্টা ব্যাট করার ভাবনা নিয়েই নেটে ঢুকেছেন তিনি।

সিদ্ধার্থের কোচ জ্বলা সিংহ। সংবাদ মাধ্যমকে তিনি বলেন, ‘একদিন সে এসে আমাকে বলে যে টানা ৫২ ঘণ্টা ব্যাট করার যে রেকর্ড রয়েছে তা ভেঙে দিতে চায়। আমি আগে কখনও এই ধরনের রেকর্ডের কথা শুনিনি।’

সিদ্ধার্থের এমন আবেদন শুরুতে গুরুত্ব দিয়ে দেখেননি জ্বলা। কিন্তু সিদ্ধার্থ এক সপ্তাহ পর ফের সেই আবেদন জানায়। তখন জ্বলা তার কোচিং নেটে সিদ্ধার্থকে এই রেকর্ড ভাঙার জন্য সব রকম সাহায্য করতে রাজি হন।

সিদ্ধার্থ তার বন্ধু, ভাইবোনদের সাহায্য নেন গিনেস বুকে নাম দেওয়ার নিয়ম নিয়ে। সেই নিয়ম মেনে এই চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হন সিদ্ধার্থ। মোহিতের চাচাতো ভাই বৈভব পাওয়ার তিনদিনের জন্য সাক্ষী জোগাড় করেন, যারা লক্ষ্য রাখবে সিদ্ধার্থ সব নিয়ম মানছেন কি না। সেই সাক্ষীরা এক একজন চার ঘণ্টা করে সিদ্ধার্থের উপর নজর রাখছেন। একজন পুরো ঘটনাটা ভিডিও করেছেন।

সিদ্ধার্থ তার বন্ধুদের মুম্বাইয়ের থানেতে ডেকে নিয়েছেন তাকে বল করার জন্য। সিদ্ধার্থের মা সেজল বলেন, ‘সে কোনো একটা রেকর্ড গড়তে চায়। আলাদা কিছু করার ভাবনা রয়েছে তার; কিন্তু কী করতে চায় সেটা জানি না। লকডাউনের সময় ও এটা নিয়ে অনেক অনুশীলন করেছে। ব্যাট করা সহজ নয়, তাও আবার এত ঘণ্টা ধরে! ওর বন্ধুরা ওকে সাহায্য করেছে। আমি ক্রিকেট বুঝি না, কিন্তু আমার ছেলের পাশে আছি।’

যেভাবে বা যে নিয়মে ব্যাট করে যাচ্ছেন সিদ্ধার্থ? ব্যাটিং শুরু করার পর প্রতি ঘণ্টায় পাঁচ মিনিটের জন্য বিশ্রাম নিতে পারবেন সিদ্ধার্থ। প্রাকৃতিক ডাকে সাড়া দেওয়ার প্রয়োজন হলে সেই বিরতিও নিতে পারবেন তিনি।

অনুশীলন নেটের পাশে কিছু বিছানাও রাখা হয়েছে। সিদ্ধার্থ শুধু প্রোটিন জাতীয় খাবার এবং পানীয় খাচ্ছেন। তার কোচ ভাবতে পারেননি যে মারের রেকর্ড ভেঙে দিতে পারবেন তার ছাত্র। সে রেকর্ড ভাঙতে গিয়ে তিনটি ব্যাট ভেঙেছেন সিদ্ধার্থ।

কনিষ্ঠ আঙুলেও চোট পেয়েছেন তিনি। মারের রেকর্ড ভাঙার পর আধ ঘণ্টার বিরতি নিয়েছেন সিদ্ধার্থ। সেই বিরতির সময় তিনি বলেন, ‘হঠাৎ করেই আমার মাথায় এই ভাবনা আসে। অনেকেই বলেছিল সম্ভব হবে না কিন্তু আমি সেই রেকর্ড গড়তে পেরে খুশি।’

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...