• আপডেট টাইম : 19/02/2022 07:32 PM
  • 128 বার পঠিত
  • আওয়াজ ডেস্ক
  • sramikawaz.com

মালয়েশিয়াকে বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম শ্রমবাজার হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ১৯৭৭ সালের পর থেকে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে কর্মসংস্থান ভিসায় মালয়েশিয়া যাচ্ছেন বাংলাদেশি অভিবাসী শ্রমিকরা। তবে বেতন, ডকুমেন্টেশন, ভিসা নবায়ন, রেমিট্যান্স প্রেরণ, পারমিট, চাহিদার বিপরীতে অধিক শ্রমিক প্রেরণ ইত্যাদি বিষয় নিয়ে এক পর্যায়ে দুই সরকারের মধ্যে মনস্তাত্ত্বিক বিরোধ দেখা দেয়। ২০০৯ সালের দিকে এসে সমস্যা আরো জটিল হলে বাংলাদেশিদের জন্য মালয়েশিয়া সরকার কর্মসংস্থানের সুযোগই বন্ধ করে দেয়।

তবে ২০১১ সালে দুই সরকার জিটুজি ভিত্তিতে শ্রমিক নিয়োগে নতুন একটি চুক্তি করে। এর ফলে অভিবাসন খরচ কমবে সরকার এমন কথা বললেও ২০১৬ সাল পর্যন্ত মাত্র ৮৫০০ বাংলাদেশিকে কর্মসংস্থান ভিসায় মালয়েশিয়া প্রেরণ সম্ভব হয়। ব্যবস্থাটি এমন বিপর্যয় ডেকে আনে যে মালয়েশিয়ায় অবৈধভাবে যাওয়ার হার বহুগুণ বেড়ে যায়। সমুদ্রপথে পাচার, স্টুডেন্ট ভিসা, ভিজিট ভিসা, ট্রেনিং ভিসার নামে অবৈধ অভিবাসনের পথ বেছে নেয় দালাল চক্র। তাদের ফাঁদে পড়ে প্রান্তিক পর্যায়ের বহু অভিবাসী থাইল্যান্ডের গহিন অন্ধকার জঙ্গলে মারাও গেছে। এমনকি থাইল্যান্ডের বিভিন্ন এলাকায় গণকবরেরও সন্ধান পাওয়া যায়। ফলে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়, প্রশ্নবিদ্ধ হয় জিটুজি পদ্ধতিও।
আসলে স্বল্প খরচে অভিবাসনের পক্ষে কথা বলা হলেও জিটুজি ব্যবস্থাকে বাস্তবায়িত করার পক্ষে অবকাঠামো ছিল না। জিটুজির দুর্বলতাগুলো কাটিয়ে উঠতে দুই সরকার এরপর জিটুজি প্লাস নামে নতুন সমঝোতা চুক্তি করে। কেন্দ্রীয় ডাটাবেইস সামনে রেখে মালয়েশিয়ার সরকার সিস্টেমটিকে ডিজিটাইজও করে এবং বেস্টিনেটকে সেই প্রক্রিয়াকরণের দায়িত্ব দেওয়া হয়। এ ছাড়াও তারা বাংলাদেশ অংশ থেকে ১০টি রিক্রুটিং প্রতিষ্ঠান নির্বাচন করে। নতুন এই চুক্তির সুবাদে দুই বছরেই উল্লেখযোগ্য সংখ্যক দুই লাখ ৭৮ হাজার বাংলাদেশি যথাযথ কর্মসংস্থান ভিসা নিয়ে মালয়েশিয়ায় যেতে সক্ষম হয়।

মালয়েশিয়ার সরকার ঢাকায় এনইএফসি (মালয়েশিয়ান এমপ্লয়মেন্ট ফ্যাসিলিটেশন সেন্টার) অফিসও স্থাপন করে ঢাকাস্থ সংস্থা, কর্মচারী ও মালয়েশিয়ান হাইকমিশন এবং মালয়েশিয়ার সরকারি বিভাগ ও নিয়োগকারীদের সাথে সমন্বয় করার লক্ষ্যে। জিটুজি প্লাস ব্যবস্থাটি নিয়ে দুই দেশেই অভিযোগও উঠছিল কম। এ ছাড়া এর সুফল হিসেবে মালয়েশিয়ার দিকে অবৈধ মানবপাচার বন্ধ হয়ে যায়।

মালয়েশিয়ায় প্রথমবারের মতো বাংলাদেশকে আনুষ্ঠানিকভাবে উৎস দেশ হিসেবে ঘোষণা করে। যেহেতু সম্পূর্ণ সিস্টেমটি ডিজিটাইজ করা হয়েছিল ফলে পুরো প্রক্রিয়াটি স্বচ্ছ ছিল এবং প্রতারণামূলক কর্মকাণ্ড পরিলক্ষিত হয়নি। কিন্তু দেশের বেশ কয়েকটি সংস্থা শুরু থেকেই এই ভালো উদ্যোগটিকে ভালোভাবে নেয়নি। তারা এর বিরুদ্ধে নামে এবং প্রক্রিয়াটিকে ঝুঁকিপূর্ণ করার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা চালায়। এমনকি তারা গণমাধ্যম ও সরকারসহ নানা মহলে এর বিরুদ্ধে প্রচারণা চালায়। এক পর্যায়ে মালয়েশিয়া সরকার ২০১৮ সালে বাজারটি বন্ধ করে দেয় এবং তদন্ত শুরু করে।

তদন্তের পর মালয়েশিয়ার মানবসম্পদ মন্ত্রী এম কুলাসেগারান তাদের পার্লামেন্টে জানান যে বাংলাদেশের ‘বিআরএ’ (বাংলাদেশ রিক্রুটিং এজেন্সিস) ও মালয়েশীয় প্রতিষ্ঠান ‌‌'বেস্টিনেট'-এর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ একেবারেই ভিত্তিহীন। পাশাপাশি দুই সরকার নতুন কর্মসূচি খুঁজে বের করারও চেষ্টা চালায়। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯ ডিসেম্বর ২০২১ নতুন আরেকটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। এখন পর্যন্ত মালয়েশিয়া সরকার নেপাল, ইন্দোনেশিয়ার মতো প্রতিবেশী দেশগুলোতে সীমিত পরিসরে কর্মসংস্থানের সুযোগ উন্মুক্ত করেছে স্বল্পসংখ্যক এজেন্সি এবং সহযোগী সংস্থার দ্বারা। তারা ইতিমধ্যে ২৮ জানুয়ারি থেকে শুরু হওয়া কৃষি খাতে এবং ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২২ থেকে অন্যান্য সকল সেক্টরে চাহিদাপত্র অনুমোদনের জন্য কেন্দ্রীয় সার্ভার খুলেছে।

নতুন এই এমওইউয়ের আওতায় মালয়েশিয়া সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে, প্রতিষ্ঠিত অনলাইন সিস্টেমের সাথে সমন্বয় করে ডিজিটাইজড ব্যবস্থায় কর্মসংস্থান হবে। বায়োমেট্রিক চিকিৎসা ব্যবস্থা, পাসপোর্ট, ওয়ার্ক পারমিট, ভিসা, সিকিউরিটি ক্লিয়ারেন্স প্রভৃতি কেন্দ্রীয়ভাবে সমন্বয় করা হবে। ঢাকায় এমইএফসি এর শাখা অফিস থাকবে এবং এফডাব্লিউয়ের কার্যাবলি সম্পাদন করবে এবং সমগ্র সিস্টেম মালয়েশীয় প্রতিষ্ঠান বেস্টিনেট দ্বারা পরিচালিত হবে। এ ছাড়া সীমিতসংখ্যক ২৫টি সংস্থা থাকবে, তাদের সহায়তা দেবে আরো আড়াই শ সংস্থা। এ ছাড়া মালয়েশিয়া সরকার কেন্দ্রীয় সার্ভারের সংঙ্গে সংযুক্ত করে স্বাস্থ্য পরীক্ষার ব্যবস্থা করবে। এ জন্য ৩৪টি মেডিক্যাল সেন্টারও নির্বাচন করা হয়েছে।

গত ১৯ ডিসেম্বর স্বাক্ষরিত নতুন এমওইউ অনুসারে, মালয়েশিয়া বাংলাদেশি কর্মীদের গ্রহণ করার জন্য সমস্ত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে এবং তাদের উদ্দেশ্য আন্তরিক ও সৎ। মালয়েশিয়া অন্যান্য দেশের সাথেও অনুরূপ সমঝোতা চুক্তি করেছে। এখন বাংলাদেশ যদি এই এমওইউর উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে বিলম্ব করে তাহলে মালয়েশিয়া অন্যান্য উৎস দেশ সন্ধান করতে পারে। তাই আমাদের সরকারপক্ষকে আমাদের জাতীয় স্বার্থে ইতিবাচক সাড়া দিতে হবে এবং বাজারটি টেকসই করতে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...