• আপডেট টাইম : 05/02/2022 07:28 PM
  • 130 বার পঠিত
  • শেখ সজীব আহমেদ, মালদ্বীপ থেকে
  • sramikawaz.com

খাবারের পানি আনতে গেলে সিরিয়াল, খাইতে গেলে সিরিয়াল, টয়লেট করতে গেলে সিরিয়াল, গোসল করতে গেলে সিরিয়াল, ব্যাংকে টাকা পাঠাতে গেলে সিরিয়াল, ডাক্তারের কাছে গেলে সিরিয়াল। শুধু সিরিয়াল আর সিরিয়াল। এসব সিরিয়াল নিয়েই থাকতে হয় অধিকাংশ সাধারণ প্রবাসী ভাইদের।

আর ঘুমাতে গেলে ছাড়পোকার জ্বালাতন তো আছেই। বৈধ কর্মরত লোকদের এরকম অবস্থানের সম্মুখীন হতে হয়। আর যারা অবৈধ কর্মরত আছেন তারা আরও কতই না কষ্টের মধ্যে রয়েছেন। মাস শেষে বেতন পায় না। অনেকের বেতনও মেরে দেয়। দেশে সহজে টাকা পাঠানো যায় না।

আমি আমার একটি ঘটনা বলি, মালদ্বীপে চায়না স্টেট কোম্পানিতে এসেই ঘুরে ঘুরে দেখলাম আশেপাশে কোথায় কী আছে?ঘুরতে ঘুরতে এই কোম্পানির কর্মরত একবাঙালি ভাইয়ের সঙ্গে পরিচয় হলো। সে বলল, 'আরে ভাই,কিল্লেগা যে মালদ্বীপে আইলেন?

যে দেহ নিয়া আইলেন, সে দেহ তো এমন থাকবে না রে ভাই। কাজে যে পরিশ্রম, আর যে রোদ, দুইদিন কাজ করলে তো কাজের সাইডে পাওয়া যাবে না আপনাকে। মালদ্বীপে কারো জ্বর হলে, সেই জ্বর কতটা যে ভয়ংকর; যার হয় সেই বুঝে। এই তো কয়েক দিন হলো এক লোক জ্বরে মারা গেছে। লোকটারে চাপা মাটি দিয়া ফেলছে। মইরা গেলে লাশটা দেশেও পাঠায় না।’

এভাবে লোকটি আমাকে আরো অনেক কিছু বলল। আমার মনে ভয় ঢুকে দিলো। চিন্তা পড়ে গেলাম।কেউ কেউ জ্বরে ভুগতেছে এবং কাঁদতেছে তাও দেখলাম।

অবশেষে কাজ শুরু করলাম।এক সপ্তাহ কাজ না করতেই শরীর ব্যথা আর জ্বর-জ্বর ভাব। বিছানা থেকে উঠতে কষ্ট হচ্ছে, কাজের সাইডে যাব কী করে? তাহলে কি লোকটির কথাই সত্যি? আমি জ্বরে মারা গেলে আমার লাশ চাপা মাটি দিয়ে ফেলবে? লাশ দেশে যাবে না?

নীরবে কিছুক্ষণ কাঁদলাম। আরো দশ-বারোজন আমার মতো অসু্স্থ, জ্বর হয়েছে। কোম্পানির একবাংলা বস আমাদের হাসপাতালে নিয়ে যাবে চিকিৎসা করার জন্য।

হাসপাতালে আসলাম, ডাক্তারের ভিজিট এই দেশের দুইশত রুপিয়া, বাংলা টাকা প্রায় এক হাজার টাকা। রক্ত পরীক্ষা করলাম। রক্ত পরীক্ষা করতে ছয়শত রুপিয়া। তারপর ডাক্তারের কাছে গেলাম।সিরিয়াল তো আছেই।সকালে এসেছি বিকেল হয়ে যাচ্ছে।

পেসক্রিপশন লিখে দিল। ফার্মেসির দোকানে গিয়ে মাত্র পনেরো রুপিয়া বাংলা টাকা পঁচাত্তর টাকার ঔষদ দেয়া হলো। সব টাকা বাংলা বসেই দিচ্ছে। এর দুই দিন পর সুস্থ হয়ে গেলাম। তারপর ঠিকমতো কাজ-কর্ম করতে লাগলাম।

মাস শেষে, যখন বেতন পাইলাম তখন দেখি বেতন থেকে পঞ্চাশ ডলার কেটে রেখেছে। কারণ জানতে চাইলে বলে,এই পরিমাণ নাকি আমার চিকিৎসার সময় খরচ হয়েছিল। আমার মনটা খারাপ হয়ে গেল।

এক-দুই ডলার না,পঞ্চাশ ডলার। বাংলা টাকা চার হাজারের কিছু বেশি হবে। শুধু আমার নয় সবার কাছ থেকে ডলার কেটে রেখেছে।

যাই হোক, এক বছর পর এই কোম্পানি থেকে পালিয়ে অন্য কোম্পানিতে যুক্ত হলাম। অবৈধভাবে এখন কর্মরত। আমার মতো অনেকেই এই কোম্পানি থেকে পালিয়েছে,অনেকে বা দেশে চলে গেছে। যাদের নিজস্ব লোক আছে, তাদের অন্য কোনো কোম্পানিতে কাজ করতে সমস্যা হচ্ছে না। আমার মতো যাদের কেউ নেই,ধরতে হয় দালাল। সেই দালালই টাকার বিনিময়ে কাজ ঠিক করে দেয়। কেউ বা প্রতারণার শিকার হয়ে চোখের জল ঝরিয়ে নিজে নিজেকেই শান্তনা দিতে থাকে।
আমারা এখানে প্রায় এক লাখ বাঙালি প্রবাসী আছি। এর মধ্যে পঞ্চাশ হাজারের মতো অবৈধভাবে কর্মরত। আবার শতাধিক বাঙালি মাদকের ফাঁদে, নারী কেলেঙ্কারি, এছাড়া মহামারিসহ অন্য কোনো অপরাধ করার কারণে মালদ্বীপের কারাগারে বন্দি আছেন। এর কোনো বিহিতও হচ্ছে না।

যা হোক, কাগজ-পত্র ঠিক না থাকায়, ব্যাংকে টাকা পাঠানো যায় না।অনেক কোম্পানি আছে ডলারের বেতন ধরে ডলার দেয় না। দেয় মালদ্বীপের স্থানীয় টাকা (রুপিয়া)। এই টাকা (রুপিয়া) ব্যাংকে নেয় না।তবে রুপিয়া দিয়ে ডলার কেনা যায়।ডলার কিনে তারপর দেশে টাকা পাঠানো হয় ব্যাংকের মাধ্যমেই (যাদের কাগজপত্র ঠিক আছে)। আমার মতো যাদের কাগজপত্র ঠিক নেই, পাঠাতে হয় বিকাশে।

ব্যাংক রেট যদি এক রুপিয়া বাংলা পাঁচ টাকা হয় বিকাশ রেটে গিয়ে চার টাকা। মাঝে মাঝে বিকাশওয়ালারা ইচ্ছাকৃতভাবে বিকাশ খরচ বাড়িয়ে ফেলে।

বিকাশে বিশ হাজার পাঠালে প্রায় দুই হাজার টাকা খরচ পরে যায়। সব জায়গায় বিকাশ খরচ এক রকম নিচ্ছে না। জায়গা বুঝে তারা বিকাশ খরচটা বাড়িয়ে ফেলে। নিরুপায় হয়ে আমাদের ছাড়তে হয় এই বিকাশে। রুপিয়া দিয়ে ডলার কিনতে গেলে এক ডলার প্রায় উনিশ টাকা আর বেচতে গেলে পনেরো-ষোলো রুপিয়া পাওয়া যায়।

এছাড়া অবৈধভাবে যারা কর্মরত আছে তাদের, কিছু কিছু কোম্পানির বাঙালি কন্ট্রাক্টদার বেতন গুলো মেরে দেয়, এমনকি এদেশের কিছু কোম্পানির মালিকও। তাহলে কোথায় যাবে সাধারণ প্রবাসী ভাই! আমার মতো যারা অবৈধভাবে আছে মারা গেলে লাশটিও দেশে পাঠানো যায় না। যদিও পাঠায়, ভিক্ষা করে চাঁদা তুলে পাঠানো হয়। দেশে লাশ পাঠাতে প্রায় দুই-তিন লাখ খরচ হয়ে যায়।যদি এই পরিমাণে চাঁদার মাধ্যমে টাকা না ওঠে তাহলে মালদ্বীপেই লাশ দাফন করে ফেলতে বাধ্য হয়।

এই তো ২২ ডিসেম্বর ২০২১ বুধবার বাংলাদেশ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহাম্মদ সলিহের আমন্ত্রণে মালদ্বীপ এসেছিলেন ছয় দিনের সফরে।

দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য, বিনিয়োগ ও সংযোগের উন্নয়নে ফলপ্রসু আলোচনা করেছেন। বেশ কয়েকটি দ্বিপক্ষীয় চুক্তি স্বাক্ষর করেছেন।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আকুল আবেদন- অবৈধদের বৈধকরণ করা, রাষ্ট্রীয়ভাবে সহজে লাশ দেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করা, কারাগারে যারা আছেন তাদের দেশে নিয়ে বিচারের ব্যবস্থা করা, বেতন সমস্যা সমাধান করা, বাংলাদেশে যাতে সহজভাবে স্বল্প খরচে টাকা পাঠানো যায় এ ব্যাপারে একটি ব্যাংকের দ্রুত ব্যবস্থা করুন।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...