• আপডেট টাইম : 05/11/2021 09:46 AM
  • 379 বার পঠিত
  • জাফর আহমদ
  • sramikawaz.com
বিরানী খাওয়া নিয়ে একটি গল্প আছে।  ভারতীয় একটি বাংলা সিনেমা দেখে গল্পটি মনে পড়ে গেলো। গল্পটি শ্রমিক আওয়াজ ও শ্রমিক আন্দোলনের সঙ্গে সম্পর্কিত। গল।পটি শ্রমিক আওয়াজ-এর  প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর বিশেষ সংখ্যাতে বলার চেষ্টা করেছি। কিন্তু এখন দেড় যুগ পর অভিনিত সিনেমায় নায়িকার জানীতে লেখক/পরিচালক যখন নিপুন ও ঋজু ভাষাতে বলাচ্ছেন, তখন বঞচনা ও  বৈষম্যের বিষয়টি জ্বলজ্বল করে উঠছে।  
 
 
* নায়ক সোহাম প্রথম বেতনের টাকা দিয়ে অফিসের সিনিয়র নারী কর্মকর্তা শুভশ্রীর সাথে বিরিয়ানী খেতে চাচ্ছেন। শুভশ্রী বলছেন, এমন অনেক মানুষ আছে যারা বিরানীর নাম শুধু শুনেছে, দেখেননি। তুমি তাদের কারো একজনের সঙ্গে খাও। তোমার মনে ইচ্ছার সাথে একজন বিরানী না খাওয়া মানুষ বিরানীর স্বাদ পাবে। 
 
* সেটা 2002 সালের দিকের কথা। বেক্মিকো ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের একটি গার্মেন্ট কারখানাতে তখন দুপুরের খাওয়ার দেয়া হতো। শ্রমিকদের দেয়া হতো ১৫ টাকার ভার্তা, ডাল আর ভাত। কোন কোন দিন মাছ বা সেদ্ধ ডিম থাকতো। পাশেই কাপড় দিয়ে ঘেরা কেন্টিনের অন্য দিকে কর্মকর্তাদের জন্য ৪৫ টাকার টাকা বরাদ্দের বিরানী খেতে দেয়া হতো। কর্মকর্তারা এক্সট্রা পকেট থেকে বাড়তি টাকা দিয়ে বিশেষ খাওয়ার ব্যবস্থা করতেন। কিন্তু খাওয়া হতো শ্রমিকদের পাশেই।শ্রমিকআওয়াজের তখন নাম ছিল অর্টার। উদ্যোক্তদারা সবাই ছিলেন ছদ্দ নামের। জয়া সরকার, এমএম হক, সারমি খান, এম আর মার্ক- সব চেনা মানুষের অচেনা নাম।
 
একই কেন্টিনের একদিকে ৪৫ টাকা দামের বিরানী বা ভাল মানের খাবার, অন্যদিকে ১৫ টাকার বরাদ্দের তুলনামূলক কম মানের আলু ভর্তা, এক টুকরো মাছ বা সেদ্ধ ডিম দেয়া হতো। শ্রমিকরা ক্ষুব্ধ ছিলেন। তাদের বক্তব্য অফিসাররা ভাল খান সমস্যা নেই। তবে দূরে খান। এক জায়গায় দুই রকম কেন ? আবার এই কর্মকর্তা তারাই যারা ঠিক মত বেতন দিতে পারতেন না, উৎপাদন নিতেন লক্ষ পূরণে করে। 
 
শ্রমিক আওয়াজ (তখন অল্টার) যে সব এলাকায় শ্রমিকরা পড়তেন তাদের অন্যতম হলো চক্রবতী, বেক্মিকো ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক। এলাকা। ওই কারখানায়ও জনায়েক শ্রমিক শ্রমিক আওয়াজ কিনতেন। তবে সব নেতাদের কাছে ঠিকই পৌছতো শ্রমিক আওয়াজ।  একটি সংখ্যায় এ রকম একটি ছড়া লেখা হলো-
‘ চোর সালারা খায় বিরানী আমারে দেয় ভর্তা
ভুলেও যদি তাকাই ওদিক বলে স্টুপিট, কুত্তা।--’
 
সেবার বেতন নিয়ে কারখানাটিতে সমস্যা হচ্ছিলো। সময় মত বেতন দিতে পারছিল না, ইনক্রিমন্টে নেই। শ্রমিকরা আন্দোলন করলেন, বিক্ষোভ করলেন। এবারের বিক্ষোভের মাত্রাটা একটু বেশি ও তীব্র হলো। শ্রমিকরা ভেতরের জমানো ক্ষোভ ঝাড়লেন। কারা যেন অফিসের কম্পিউটার, কাঁচের জানালা সব ভেঙ্গে দিলো। শোনা যায় কারা নাকি বাইরের থেকে এসে অফিসের কম্পিউটারও নিয়ে গেছে।
 
বেক্মিকোতে একজন জুনিয়র কর্মকর্তা ছিলেন যিনি পরবর্তিতে শ্রমিক আওয়াজে মোহাম্মদ আব্দুল্লা নামে লিখতেন। এখন বেক্মিকোর বড় কর্মকর্তা। তিনি ফেসবুকে শ্রমিক আওয়াজে-এর সাথে আছেন। এখন আপনারা পাশাপাশি বিরিয়ানী আর ভর্তা খান নাকি জানি না।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...